রবিবার, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর ও আশুগঞ্জের সব কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ!

B Baria Mapব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, আশুগঞ্জ ও কসবা উপজেলায় ৩১ মার্চ সোমবার ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। 

এর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর ও আশুগঞ্জ উপজেলার ২৫৯টি ভোট কেন্দ্রকেই ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাই ভোট গ্রহণ নিয়ে নির্দলীয়, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির (জেপি) প্রার্থীরা শঙ্কিত। 

ইতোমধ্যে নির্বাচনের প্রায় সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। সোমবার সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হবে। 

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর, কসবা ও আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মোট প্রার্থী ১৮ জন। তাদের মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরে ৮ জন, কসবায় ৬ জন ও আশুগঞ্জে ৪ জন। 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর: এ উপজেলার ১১১টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ হবে। এখানকার সবগুলো কেন্দ্রকেই ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে। এ উপজেলায় মোট ভোটার ২ লাখ ৯৭ হাজার ৬৫৩ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৪৯ হাজার ২৭৪ এবং নারী ভোটার ১ লাখ ৪৮ হাজার ৩৭৯ জন।

এ উপজেলায় ১১১টি কেন্দ্রের ৭৪৫টি বুথে ভোট গ্রহণ করা হবে। নির্বাচনে ১১১ জন প্রিজাইডিং কর্মকর্তা, ৭৪৫ জন সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ও ১ হাজার ৪৯০ জন পোলিং কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করবেন।



সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ড. আশরাফুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, প্রতিটি কেন্দ্রে ৪ জন পুলিশ, অস্ত্রধারী একজন আনসার সদস্য, লাঠি নিয়ে ৪ জন আনসার নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবেন। এছাড়া পুলিশের ৪টি স্ট্রাইকিং ফোর্স ও ৯টি মোবাইল টিম, র‌্যার ও সেনাবাহিনীর ৪টি করে স্ট্রাইকিং ফোর্স, বিজিবি সাতটি স্ট্রাইকিং ফোর্স দায়িত্ব পালন করবেন। 

আশুগঞ্জ: আশুগঞ্জ উপজেলার ৪৮টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ হবে। এ উপজেলাতেও সবগুলো কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে উপজেলা নির্বাচন কমিশন। এর মধ্যে উপজেলার চরচারতলা, দুর্গাপুর ও তালশহর তিনটি ইউনিয়নের সবগুলো কেন্দ্র বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। 

এ উপজেলায় মোট ভোটার এক লাখ পাঁচ হাজার ৫০৫ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫১ হাজার ৫৩৮ এবং নারী  ৫৩ হাজার ৯৬৭ জন।

এ উপজেলায় ৪৮টি কেন্দ্রের ৩২৭টি বুথে ভোট গ্রহণ করা হবে। নির্বাচনে ৪৮ জন প্রিজাইডিং কর্মকর্তা, ৩২৭ জন সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ও ৬৫৪ জন পোলিং কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করবেন।

আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম ফারুক জানান, প্রতিটি কেন্দ্রে ৪ জন করে পুলিশসহ আনসার বাহিনী মোতায়েন থাকবে। তাছাড়া প্রতি ৭টি কেন্দ্রের জন্য একটি করে মোবাইল টিম থাকবে। 



কসবা: এ উপজেলা ৭৩টি কেন্দ্র রয়েছে। তবে, এখানে কোনো কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ নয় বলে  জানিয়েছেন কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার জালাল সাইফুর রহমান।