সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মনে বাজে দেশের সুর

এলআরবি আর চিরকুট। দুটিই জনপ্রিয় ব্যান্ড। একটির বয়স ২৩ আর অন্যটি একেবারেই এ সময়ের। কনসার্টে কিংবা টিভির অনুষ্ঠানে এলআরবি তাদের পরিবেশনা শেষ করে জাতীয় সংগীতের সুর বাজিয়ে আর চিরকুট তাদের পরিবেশনা শুরু করে ‘ধনধান্য পুষ্পভরা’ গানটি দিয়ে। কথা হলো দুই প্রজন্মের এই দুটি ব্যান্ডের সদস্যদের সঙ্গে

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভের সামনে এলআরবির সদস্যরা l ছবি: খালেদ সরকারজিপিএ-৫ পাওয়া ছাত্রছাত্রীদের সংবর্ধনা দেওয়া হচ্ছে। প্রথম আলোর একটি অনুষ্ঠান। মঞ্চে গান গাইছে এলআরবি। গান তখন শেষ পর্যায়ে। আইয়ুব বাচ্চু তাঁর গিটারে একটি গানের সুর বাজাচ্ছেন। সুরটা পরিচিত মনে হলো। আরে! এ তো জাতীয় সংগীত!

নিজের অজান্তেই চেয়ার ছেড়ে দাঁড়িয়ে যাই। আশপাশের সবাই ততক্ষণে দাঁড়িয়ে গেছেন।

মঞ্চের পেছন দিকে বসে যিনি ড্রামস বাজাচ্ছিলেন, তিনিও এখন দাঁড়িয়ে বাজাচ্ছেন।

আইয়ুব বাচ্চুর গান আর জ্যামিং শুনতে শুনতে কিছুক্ষণ আগেও মঞ্চের সামনে থাকা ছেলেমেয়েরা যে উল্লাস করছিল, তখন তা থেমে গেছে। সারা মাঠে পিনপতন নীরবতা। কেউ কেউ আবার সেই সুরের সঙ্গে কণ্ঠ মেলাচ্ছেন।

‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি৷

চিরদিন তোমার আকাশ, তোমার বাতাস, আমার প্রাণে৷

ওমা আমার প্রাণে বাজায় বাঁশি সোনার বাংলা

আমি তোমায় ভালোবাসি।’…

মঞ্চ থেকে নেমে আইয়ুব বাচ্চু জানান, গত ২২ বছর বেশির ভাগ কনসার্টে জাতীয় সংগীতের স্থায়ী অংশটুকুর সুর বাজিয়ে তাঁদের পরিবেশনা শেষ করেছেন। হাতে সময় থাকলে শুধু স্থায়ী অংশটুকু নয়, গিটারে পুরো জাতীয় সংগীতই বাজান।

এভাবে কেন? আইয়ুব বাচ্চু বলেন, ‘দায়িত্ববোধের জায়গা থেকে কাজটা করছি। ব্যান্ডের গানের শ্রোতাদের বেশির ভাগই স্কুল, কলেজ কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রী। নতুন প্রজন্মের এই ছেলেমেয়েদের মধ্যে আমরা এভাবেই দেশাত্মবোধ জাগিয়ে তুলতে চাই।’

ইদানীং জাতীয় সংগীতের পাশাপাশি আইয়ুব বাচ্চু আরেকটি গানের সুর বাজান, ‘আমরা করব জয়, আমরা করব জয় একদিন’।

 

২.

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে চিরকুটের সদস্যরা l ছবি: কবির হোসেনচিরকুট তাদের কনসার্ট শুরু করে দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের ‘ধনধান্য পুষ্পভরা আমাদের এই বসুন্ধরা’ গানটি দিয়ে। প্রথম অ্যালবাম চিরকুটনামা বের হয় ২০১০ সালে। কিন্তু তারা ব্যাপক পরিচিতি পায় আরও বছর খানেক পর। এরপর দেশে এবং দেশের বাইরে চিরকুটের কনসার্টের সংখ্যা দ্রুত বাড়তে থাকে। তখন কনসার্টের শুরুতেই তারা ‘ধনধান্য পুষ্পভরা আমাদের এই বসুন্ধরা’ গানটি গাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। চিরকুটের সুমী বললেন, ‘কনসার্ট শুরু করার জন্য আমরা সচেতনভাবেই এই গানটি বেছে নিই। আমরা তো বাংলা গান করি। অন্যদের গান খুব একটা করা হয় না। “ধনধান্য” গানটি সবার হৃদয় ছুঁয়ে যায়। সবাই গানটির সঙ্গে একাত্ম হতে পারেন। মঞ্চে যখন আমরা গানটি করি, তখন মঞ্চের সামনের অনেকেই আমাদের সঙ্গে কণ্ঠ মেলান। সে এক দারুণ অনুভূতি!’

২১ ফেব্রুয়ারি প্রথম আলো আয়োজন করে ‘বর্ণমেলা’। এই আয়োজনে গান করেছে চিরকুট। মঞ্চে উঠেই সুমি তাঁদের সঙ্গে সব শিশু-কিশোরকে গানটি গাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানান। মঞ্চের এক পাশে বসেছিল একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সুবিধাবঞ্চিত ২৩ জন ছেলেমেয়ে। সুমী মঞ্চে তাদেরকে ডেকে নেন। মঞ্চ আর মঞ্চের সামনে বসা সবাই তখন একসঙ্গে গেয়ে ওঠেন ‘ধনধান্য পুষ্পভরা আমাদের এই বসুন্ধরা’।

সুমি জানান, গত বছর তাঁরা শ্রীলঙ্কায় চারটি কনসার্টে গান গেয়েছেন। জাফনায় তিনটি আর কলম্বোতে একটি। জাফনা সংগীত উৎসবে তাঁদের সঙ্গে ছিল ১০টি দেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড। একই বছর নরওয়েতেও তাঁরা গিয়েছিলেন গান গাওয়ার জন্য। সেখানে তাঁরা গান গেয়েছেন ছয়টি কনসার্টে। সব কটি কনসার্টের শুরুতেই তাঁরা গেয়েছেন ‘ধনধান্য পুষ্পভরা আমাদের এই বসুন্ধরা’ গানটি।

সুমি বললেন, ‘গানটির সঙ্গে চিরকুট এখন একেবারে মিশে গেছে।’

 

৩.

এলআরবি যখন দেশের বাইরে কোনো কনসার্টে গান করে, সেসব কনসার্টের বেশির ভাগ দর্শক থাকেন প্রবাসী বাংলাদে​িশরা। ওই কনসার্টগুলোতে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতের সুর বাজানোর সময় অন্য রকম এক আবহ তৈরি হয়। আইয়ুব বাচ্চু বলেন, ‘দেশের বাইরে কনসার্টগুলোতে জাতীয় সংগীতের সুর বাজানোর সঙ্গে সঙ্গে পুরো আবহটা একবারে পাল্টে যায়। বাজানোর পর দেখি অনেকেরই চোখ ভেজা। কেউ আবার কেঁদেই চলেছে।’

এবার আইসিসি টি-২০ বিশ্বকাপ ক্রিকেট উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে আয়োজিত কনসার্টে এলআরবি একটি নতুন গান গেয়েছে। গানটির শিরোনাম ‘বাংলাদেশ’।

আইয়ুব বাচ্চু বলেন, ‘গানটি একেবারেই নতুন। এখন থেকে সব কনসার্টে আমরা এই গানটি করব।’

জানালেন, ‘বাংলাদেশ’ ভাবনার ওপর এলআরবি আরও কয়েকটি গান করে। এই যেমন ‘তুমি প্রিয় কবিতার ছোট উপমা’, ‘বাংলাদেশ আমার বাংলাদেশ, তুমিই প্রথম তুমিই শেষ’, ‘চাই দেশপ্রেম চাই স্বপ্ন’। কনসার্টগুলোতে এই গানগুলোও গাওয়া হয়।

আইয়ুব বাচ্চু বলেন, ‘এবার স্বাধীনতা দিবসে সবাই একসঙ্গে জাতীয় সংগীত গেয়েছি। আমি সবাইকে বলব, আসুন, আমরা দেশটাকে ভালোবাসি। স্বপ্ন দেখুন। স্বপ্ন দেখে বেড়ে উঠি। স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করে প্রমাণ করি, দেশটা আমাদেরই।’

 

৪.

চিরকুটের সুমী বললেন, ‘আমরা এবার ছোটদের জন্য গান করব। ছোটদেরকে সঙ্গে নিয়ে গান করব। দেশের গান। আজকের ছোটরাই আগামীর ভবিষ্যৎ। তাদেরকে বাংলা গান শোনাতে চাই। আমরা চাই, বাংলা গান শুনতে শুনতেই তারা বড় হবে। বাংলা গান করবে। তাহলে অন্য কোনো দেশের ভাষা কিংবা সংস্কৃতি আমাদের আগামী প্রজন্মের ওপর কোনো প্রভাব ফেলতে পারবে না। কারণ, আমাদের বাংলা গানের শিকড় অনেক গভীরে। সেদিন খুব দূরে নয়, যেদিন আমাদের সবার মনে বাজবে এই দেশের সুর।’