বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাহুলের ইট, মমতার পাটকেল

533193d7a608e-Rahul-1ভারতের পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়িতে গিয়ে রাস্তার বেহাল দশা দেখে তৃণমূল কংগ্রেসকে একহাত নিয়েছেন কংগ্রেসের সহসভাপতি রাহুল গান্ধী। তবে কৌশলে পাল্টা জবাব দিতে ছাড়েননি তৃণমূলের কংগ্রেসের নেত্রী মমতা ব্যানার্জিও।

রাহুল গান্ধী বলেছেন, ‘ভেবেছিলাম কমিউনিস্টরা চলে যাওয়ার পর পশ্চিমবঙ্গের হাল ফিরবে। কিন্তু কোথায় কী! আমরা কেন্দ্র থেকে কোটি কোটি টাকা পাঠাচ্ছি রাস্তাঘাট তৈরি ও মেরামতির জন্য, টাকা কলকাতায় পৌঁছেও যাচ্ছে, অথচ আপনারা থাকছেন সেই তিমিরেই। কন্ট্রাকটর আর রাজনীতির কারবারিরা সেই টাকা হাপিস করে দিচ্ছে!’ রাহুলের বক্তব্যের নির্যাস হলো, লঙ্কায় গিয়ে তৃণমূলও রাবণ হয়ে গেছে। প্রায় তিন বছরের শাসনে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি হুট বলতে উত্তরবঙ্গে ছুটেছেন। কিন্তু তা সত্ত্বেও উত্তরের রাস্তার হাল ফেরেনি। ভাঙাচোরা সেই রাস্তাকেই আজ মঙ্গলবার রাহুল গান্ধী হাতিয়ার করলেন। জলপাইগুড়ির নাগরাকাটায় জুড়ুঙ্গি চা-বাগানের কাছে কর্মিসভায় তাঁর আক্ষেপ, ‘ভেবেছিলাম কমিউনিস্টরা চলে যাওয়ার পর পশ্চিমবঙ্গের হাল ফিরবে।’



ঘটনাচক্রে মমতা ব্যানার্জিও রয়েছেন উত্তরবঙ্গে। রাহুলের ঢিলের জবাবে নকশালবাড়ির কর্মিসভায় তিনিও পাটকেল ছুড়ে বুঝিয়ে দিয়েছেন, দূরত্ব দুই পক্ষ থেকেই বেড়ে গেছে। প্রদেশ কংগ্রেসের নেতাদের মন খারাপ হয়ে গেলেও তাঁরা অখুশি নন। সোমেন মিত্র, প্রদীপ ভট্টাচার্য, আবদুল মান্নান প্রত্যেকের এক সুর, এতদিন তাঁদের অসম্মানের বিরিয়ানি গিলতে হয়েছে, এবার সম্মানের ডালভাত খেয়ে তাঁরা দেখিয়ে দেবেন পশ্চিমবঙ্গে কংগ্রেস সাইনবোর্ড হয়ে যায়নি। সম্মানের ডালভাত মানে জোটহীনতা। এতদিন ধরে যাঁরা জোট না করার জন্য দিল্লিতে দরবার করে হাঁপিয়ে উঠেছিলেন, রাহুল জমানায় তাঁরা বেজায় খুশি। জোট ভেঙে বেরিয়ে এসে কংগ্রেসকে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর সুযোগটা তিনি করে দিয়েছেন। প্রবল মমতাবিদ্বেষী অধীর চৌধুরীকে প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি পদে বসিয়ে রাহুলও যুদ্ধংদেহী হাবভাব ফুটিয়ে তুলেছিলেন। রাজ্যে যে কটি জেতা আসন কংগ্রেসের রয়েছে, তা থেকে একটি বেশি পাওয়াই এখন কংগ্রেসের লক্ষ্য। সাবেক প্রদেশ সভাপতি, পাঁচ বছর তৃণমূল কংগ্রেসের ঘর করে বেরিয়ে এসে কলকাতা (উত্তর) থেকে দাঁড়ানো সোমেন মিত্র প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য প্লাস ওয়ান। ২০০৯ সালের ছয় আসনের সঙ্গে একটা আসন এক্সট্রা। তা হলেই পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিটা বদলে যাবে।’



রাজ্যে দলের প্রার্থী তালিকা প্রকাশে দেরি হওয়ায় সামান্য যে ধন্দটা কংগ্রেসিদের মনে উঁকি মারছিল, ঝটিকা সফরে পশ্চিমবঙ্গে এসে তা মুছে দিয়ে গেলেন কংগ্রেসের সহসভাপতি রাহুল গান্ধী। বুঝিয়ে দিলেন, তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে কোনো রকম মিলমিশের ভাবনা এই মুহূর্তে তাঁদের মনে নেই।



তৃণমূল কংগ্রেসকে রাহুল যে আক্রমণ করলেন, তার সুর হয়তো শোনা যেত কলকাতায়ও। কিন্তু কালবৈশাখীর খেয়ালে তছনছ হয়ে যাওয়া কলকাতা ময়দানে নেমেও সামান্য সময় পর রাহুলকে ফিরে যেতে হয়। ঝড়ের তাণ্ডবে মঞ্চের ছাদ উড়ে যায়, বিদ্যুত্ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়, লন্ডভন্ড হয়ে যায় সভাস্থল এবং নিরাপত্তার ঘেরাটোপ। ফলে হাজার হাজার মানুষ অপেক্ষায় থাকলেও সভাটাই বাতিল করে দিতে হয়। হাত নেড়ে ও হাত মিলিয়ে রাহুল ফিরে যান দিল্লি। কিন্তু তা সত্ত্বেও রাজ্যের কংগ্রেসিরা যে বার্তাটা চাইছিলেন, রাহুল তা দিয়ে গেছেন।



রাজনৈতিক সমীকরণের নতুন একটা ইঙ্গিত ইতিমধ্যেই ভাসিয়ে দিয়েছেন রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। গত রোববার সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে বুদ্ধদেব ভোটের পরে ভারতীয় জনতা পার্টিকে (বিজেপি) রুখতে কংগ্রেসের হাত ফের ধরার একটা ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন। এ নিয়ে রাজ্য ও দেশের রাজনীতি বেশ সরগরম। শুধু তা-ই নয়, রাহুলের ব্যাপারে কোনো কটু মন্তব্য করতেও আপত্তি জানিয়েছেন তিনি। বলেছেন, ‘উনি নেতৃত্ব গ্রহণের চেষ্টা করছেন, করুন। ওঁকে নিয়ে কোনো মন্তব্য করব না।’ ফলে এমন একটা প্রশ্ন উঁকি মারছে যে, ৩৪ বছরের বাম জমানার অবসানে রাজ্যে যেমন ‘রামধনু জোট’ তৈরি হয়েছিল, তৃণমূল কংগ্রেসের একদলীয় শাসনের অবসানে তেমনই কোনো জোট হতে চলেছে কি না। সিপিএমের নেতা সীতারাম ইয়েচুরির মন্তব্য, ‘এখন আমরা ভোটের ময়দানে রয়েছি। কংগ্রেস ও বিজেপি দুই দলকেই হারাতে চাই। ভোটের পর পরিস্থিতি বুঝে ব্যবস্থা।’

এ জাতীয় আরও খবর