বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ম্যাক্সওয়েল হুমকি সামলে জিতল পাকিস্তান

532ee037d01b4-Pak-Ausশহীদ আফ্রিদি যখন বল করতে আসেন তখন মিরপুরের দর্শক প্রাণভরে উপভোগ করছে গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের উদ্দাম ব্যাটিং। সেই সঙ্গে অ্যারন ফিঞ্চও ম্যাক্সওয়েলের সঙ্গী হয়ে অস্ট্রেলিয়াকে রেখেছিলেন সঠিক পথেই। কিন্তু আফ্রিদির চার ওভারের স্পেলই পাকিস্তানকে ম্যাচে ফিরিয়ে আনল। তিনি আউট করলেন ৩৩ বলে ৭৪ রান করা ম্যাক্সওয়েলকে। বিপজ্জনক ম্যাক্সওয়েলকে ফিরিয়ে আত্মবিশ্বাসে জেগে উঠলো পাকিস্তানি বোলিং। আফ্রিদির দেখানো পথে হাঁটলেন উমর গুলও। সাঈদ আজমলও হয়ে উঠলেন নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের প্রতিমূর্তি। সবমিলিয়ে পাকিস্তান তুলে নিল দারুণ এক জয়।

প্রথমে ব্যাট করে নিজেরা ৫ উইকেটে ১৯১ রান করে অস্ট্রেলিয়াকে ১৭ রানে হারিয়েছে পাকিস্তান। প্রথম ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে পরাজয়ের পর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এই জয় পাকিস্তানকে আত্মবিশ্বাসী করে তুলবে—সন্দেহ নেই।

ইটের জবাব পাথর দিয়ে দেওয়ার মতো অস্ট্রেলিয়ার হয়ে পাকিস্তানি বোলিংকে জবাব দিচ্ছিলেন ম্যাক্সওয়েল। ব্যাটিং যে কতটা আসুরিক হতে পারে আজ দর্শকদের তা-ই দেখিয়ে গেছেন এই ডানহাতি। মাত্র ৩৩ বলে ৭৪ রানের তাঁর ভয়ংকর সুন্দর ইনিংসটিতে ছিল চার-ছয়ের ফুলঝুড়ি। সাতটি চার আর ছয়টি ছয়ে সাজানো তাঁর ইনিংসটি অস্ট্রেলিয়াকে দেখিয়েছিল জয়ের পথ। যতক্ষণ তিনি উইকেটে ছিলেন পাকিস্তানি বোলাররা ছিলেন দিশেহারা।

বিশেষ করে একটি ওভারে তিনি বিলওয়াল ভাট্টিকে যেভাবে পিটিয়েছেন, তা দেখে যে কারো মনেই সহানুভূতির জন্ম হতে পারে। ওই ওভারেই অস্ট্রেলিয়া তুলেছে ৩০ রান। তাঁর হাতে মার খেয়েছেন এই ফরম্যাটে ‘কৃপণ’ বোলার হিসেবে পরিচিত অফ স্পিনার সাঈদ আজমলও। উমর গুল আর মোহাম্মদ হাফিজও।

১৯২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৮ রানে ২ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে গিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। মাঝখানে ম্যাক্সওয়েল আর ফিঞ্চের ১১৮ রানের জুটি বাদে অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসে নেই বলার কিছু। ফিঞ্চের ৬৫ রানের ইনিংসটি ছিল ৫৪ বলে ৭টি চার আর ২ ছয়ে সাজানো। অস্ট্রেলিয়ার জয়টা ছিল একদম হাতের নাগালে। এক সময় তাদের প্রয়োজন ছিল ৬০ বলে ৭৫ রান। হাতে ৮ উইকেট। সেখান থেকেই ম্যাচটা হেরেছে অস্ট্রেলিয়া। মাত্র ২০ রানে শেষ ৬ উইকেট হারিয়ে অলআউট হয়েছে ১৭৫ রানে।

পাকিস্তানি বোলারদের মধ্যে দারুণ বল করেছেন জুলফিকার বাবর। ২৬ রান দিয়ে তাঁর দখলে গেছে ওয়ার্নার আর ওয়াটসনের উইকেট। উমর গুল ফিরিয়েছেন কাউল্টার আর ব্র্যাড হজকে। আফ্রিদি তো ছিলেন অনন্য। ৪ ওভারে ৩০ রান দিয়ে তাঁর সংগ্রহ ২ উইকেট। সবচেয়ে বড় কথা ম্যাক্সওয়েলকে আউট করে তিনি পাকিস্তানকে খেলায় ফেরান। সাঈদ আজমল একটি উইকেট নিলেও শেষের দিকে তাঁর নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়েই পথ হারায় অস্ট্রেলিয়া। বিলওয়াল ভাট্টি অবশ্য নিজেকে ভাগ্যবান ভাবতেই পারেন। ওভারপ্রতি ১৮ করে দিলেও তাঁর ঝুলিতে আছে ২টি উইকেট।

৯৪ রানের দারুণ ইনিংসের জন্য ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কারটা অবশ্য গেছে উমর আকমলের হাতেই।