সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আসমাতুন্নেসা এবিসিতে এস.এস.সির শিক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান

al-mamun-sarker-pic20.3.14প্রতিবেদক : বীর মুক্তিযোদ্ধ, দৃস্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষা ও কল্যাণ সমিতি ও অন্ধ কল্যাণ সমিতি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সভাপতি, জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক, সাবেক পৌর চেয়ারম্যান আল মামুন সরকার বলেছেন , ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের মেধাদীপ্ত গৌরবগাঁথা রয়েছে।  প্রতিবন্ধীতার কাছে পরাজিত না হয়ে তারা সাহসী ভাবে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফলতা অর্জন করেছে,যা আজ দেশ বিদেশে স্বীকৃত। তিনি এ গৌরবগাঁথার ঐতিহ্যকে এগিয়ে নিতে নতুন শিক্ষার্থীদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। তিনি তাঁর বক্তৃতায় এই ছাত্রবাসের ইতিহাস তুলে ধরেন, এটি স্থাপনে যাদের অবদান এবং এখানকার ছাত্রছাত্রীদের বর্তমান বিভিন্ন পর্যায়ে সফলতার কথাও উল্লেখ করে বলেন , এই ছাত্রবাসের শিক্ষার্থীরা সচিবালয়ে উপসচিব, সঙ্গীতে পিএইচডি , বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে উচ্চ স্থানে কর্মক্ষেত্রে রয়েছে। সেই ধারাকে অব্যাহত রাখতে হবে।



গতকাল বুধবার বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আসমাতুন্নেসা এবিসি ছাত্রাবাসের এস.এস.সির শিক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। ছাত্রাবাসের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে ছাত্রাবাস প্রাঙ্গনে এ আয়োজনে বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব আবুল কাসেম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের সহ সভাপতি নতুন মাত্রার সম্পাদক আল আমীন শাহীন, সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সামসুল আলম সরকার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া উচ্চ বিদালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মোস্তফা কামাল, ক্রান্তির পরিচালক ইমতিয়াজ খান শ্যামল। ছাত্রাবাসের তত্বাবধায়ক মোঃ রাশেদুজ্জামানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন শিক্ষক পংকজ রায়, আবু বক্কর, তাজুল ইসলাম। দৃস্টি প্রতিবন্ধী আবদুল্লাহ আল নোমান এর পরিচালনায় দৃস্টি প্রতিবন্ধীদের মাঝে বক্তব্য স্বাগত বক্তব্য রাখেন মোঃ মিজানুর রহমান, তারেক আহমেদ, অভিষেক অর্চ্চন, আনোয়ার হোসাইন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে বিদায় শিক্ষার্থী অর্চ্চন ও বরকতকে উপহার প্রদান করা হয়।  প্রতিষ্ঠানের  শিক্ষার্থীদের জন্য  আইনুদ্দিন আলরাহুল এর হাতে উপহার প্রদান করা হয়। পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এই প্রথম ছাত্রবাসের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠান হয়েছে।