শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ব্যাটে আগুন ঝরবে যাঁদের

53244df96c390-battingক্রিস গেইল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)

টি-২০ বিশ্বকাপের কথা মনে হলে ২০০৭ সালের উদ্বোধনী আসরে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে গেইলের ৫৭ বলে ১১৭ রানের ইনিংসটি অবশ্যই মনে পড়বে। দীর্ঘদেহী এই জ্যামাইকান ব্যাটিং-দানব বোলারদের নির্ঘুম রাতের কারণ। গেইলের গড়বড়ে টাইমিংয়ের শটও আছড়ে পড়ে বাউন্ডারির ওপাশে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সবচেয়ে বেশি ছক্কার (৪৩টি) মালিক। সাম্প্র্রতিক সময়ে প্রথম দিকে মন্থরগতিতে খেলার কৌশল অবলম্বন করছেন। এটা করছেন পুরো ইনিংস খেলার জন্য। আর গেইলের পুরো ইনিংস খেলা মানে অবধারিতভাবেই ম্যাচ ফসকে যাওয়া। গেলবারের চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বড় ভরসার নাম এই ব্যাটিং সাইক্লোন। আইপিএল খেলার সুবাদে উপমহাদেশের কন্ডিশনের সঙ্গেও গেইল নিবিড়ভাবে পরিচিত।

সর্বোচ্চ ১১৭

৩৫ ম্যাচে ৩৩.৬১ গড়ে ১০৪২ রান

১৪২.৩১ এর স্ট্রাইক রেট

শতক ১টি, অর্ধশত ১০টি



তামিম ইকবাল (বাংলাদেশ)

টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের রেকর্ড খুব একটা আশাব্যঞ্জক নয়। তাতে কী? এবার নিজেদের চেনা মাঠ আর চেনা কন্ডিশনে আশায় বুক বাঁধতেই পারে বাংলাদেশ দল। ভালো কিছু অর্জনে বাংলাদেশ দল চাতক পাখির মতো চেয়ে থাকবে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিমের ব্যাটের দিকে। তামিমের ব্যাটে ভালো শুরু কিংবা তাঁর ১৫ ওভার ব্যাটিংয়েই মধ্যেই লুকিয়ে আছে বাংলাদেশের সাফল্যসূত্র। ইনফর্ম তামিম বিশ্বের যেকোনো বোলিং আক্রমণ দুমড়েমুচড়ে দেওয়ার সক্ষমতা রাখেন। বেশ কিছুদিন ধরে কিছুটা চাপেই আছেন তামিম। ইতিহাস জানান দেয়, তামিম তাঁর সেরাটা খেলেন যখন তিনি ভীষণ চাপে থাকেন। আর তামিম যদি তাঁর সেরা খেলাটা খেলতে পারেন, তাহলে এবারের বিশ্বকাপটা বাংলাদেশের জন্য স্মরণীয় হয়ে থাকতেই পারে!

সর্বোচ্চ ৮৮*

২৮ ম্যাচে ২৩.৩৮ গড়ে ৬০৮ রান

১০৯.৫৪ এর স্ট্রাইক রেট

অর্ধশতক ৩টি



তিলকারত্নে দিলশান (শ্রীলঙ্কা)

দিলশান সেই বিরল প্রজাতির ব্যাটসম্যান যাঁর কিনা ক্রিকেটের তিন সংস্করণেই শতক করার গৌরব রয়েছে। মারকুটে এই স্টাইলিশ ব্যাটসম্যান যখন ছন্দে থাকেন, বলের ঠিকানা তখন স্রেফ বাউন্ডারির ওপাশে। ২০০৯ আসরের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন দিলশান। অফ স্টাম্পের বাইরে এসে উইকেটকিপারের মাথার ওপর দিয়ে বলকে বাউন্ডারির ওপাশে পাঠিয়ে দেওয়া সে আসরের বড় বিজ্ঞাপন ছিল দিলশানের ‘স্কুপ প্যাডেল’। এই শটটা এত কার্যকরভাবেই খেলেছেন যে পরবর্তী সময় এর নামই হয়ে গেছে ‘দিলস্কুপ।’ আক্রমণাত্মক মানসিকতা, পেশির ব্যবহার, দুর্দান্ত টাইমিং—সব মিলিয়ে টি-টোয়ন্টির সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন দিলশান। এশিয়া কাপে চোট ঠিকমতো খেলতে দেয়নি। সে ক্ষতিও পুষিয়ে দিতে চাইবেন নির্ঘাত। দুবারের রানার্স আপ শ্রীলঙ্কা এবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য মুখিয়ে আছে। শ্রীলঙ্কার বড় তুরুপের তাস উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান দিলশান।

সর্বোচ্চ ১০৪*

৫৫ ম্যাচে ২৯.৩৩ গড়ে ১৩২০ রান

১২০.৮৭ এর স্ট্রাইক রেট

শতক ১টি, অর্ধশত ৮টি



এবি ডি ভিলিয়ার্স (দক্ষিণ আফ্রিকা)

মিডল অর্ডারে দক্ষিণ আফ্রিকার বড় ভরসা ডি ভিলিয়ার্স। ম্যাচের চাহিদা অনুযায়ী খেলতে পারা এবং দ্রুত রান করার দক্ষতা ভিলিয়ার্সকে টি-টোয়েন্টি ব্যাটসম্যান হিসেবে করেছে সব্যসাচী। যেকোনো অবস্থায় রানের চাকা সচল রাখতে পারদর্শী। আর টি-টোয়েন্টিতে যেন একটু বেশিই চতুর। উদ্ভাবনী শক্তির কারণে তাঁর বিপক্ষে ফিল্ডিং সাজানো সব অধিনায়কের জন্য কঠিনতম কাজ। সুযোগ পাওয়ামাত্র আচমকা ঝোড়ো ইনিংস খেলে যেকোনো ম্যাচের ভাগ্য পাল্টে দিতে পারেন একাই। ‘চোকার’ হিসেবে পরিচিত দক্ষিণ আফ্রিকা এবার পারবে কি অপবাদ ঘোচাতে? তুলির শেষ আঁচড়টার জন্য দক্ষিণ আফ্রিকা চেয়ে থাকবে ভিলিয়ার্সের বিশ্বস্ত ব্যাটের দিকে।

সর্বোচ্চ ৭৯*

৫১ ম্যাচে ২১.৬৭ গড়ে ৮৬৭ রান

১২১.২৫ এর স্ট্রাইক রেট

অর্ধশতক ৪টি



ব্রেন্ডন ম্যাককালাম (নিউজিল্যান্ড)

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের সেরা অর্জন ২০০৭ আসরে সেমিফাইনাল খেলা। এবারের আসরে ভালো কিছুর প্রত্যাশায় নিউজিল্যান্ডের আশা ভরসা পুঞ্জীভূত অধিনায়ক ম্যাককালামের ব্যাটিং ঘিরে। হবে না কেন? আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ রান তো ‘ব্ল্যাক ক্যাপস’ অধিনায়কেরই। ব্যাট হাতে ম্যাককালাম খুনে, নির্মম। টি-টোয়েন্টিতে আছে দুটি অসাধারণ সেঞ্চুরিও। আইপিএল খেলার অভিজ্ঞতা কাজে আসতে পারে বাংলাদেশে অনুষ্ঠেয় বিশ্বকাপে। নিউজিল্যান্ডের জন্য মিশনটা সহজ হবে না। তবে মারকুটে ম্যাককালাম ব্যাট হাতে ঝড় তুলতে পারলে অসম্ভবকে একাই সম্ভব করে ফেলতে পারেন নিঃসন্দেহে।

সর্বোচ্চ ১২৩

৬৩ ম্যাচে ৩৫.২৭ গড়ে ১৯৫৯ রান

১৩৫.৫৭ এর স্ট্রাইক রেটটা

শতক ২টি, অর্ধশতক ১২টি



বিরাট কোহলি (ভারত)

সময়ের সবচেয়ে মনোমুগ্ধকর ব্যাটসম্যান। ২৫ বছর বয়সী কোহলি এবারের আসরে ভারতের সবচেয়ে বড় ভরসার নামও। কোনো সুযোগ না দিয়ে বিরামহীন আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করতে পারা কোহলির সহজাত ক্ষমতা। চার-ছয় হাঁকানোর পাশাপাশি ‘রানিং বিটুইন দ্য উইকেট’ এবারে বিশ্বকাপে তাঁকে একজন ‘ভয়ংকর সুন্দর ঘাতকে’ পরিণত করতে পারে। কোহলি সব সময়ই ফর্মে থাকেন। তবে কিছুদিন আগে শেষ হওয়া এশিয়া কাপ সেরা ছন্দে ছিলেন না। নিজের সেরাটায় ফিরতে বিশ্বকাপকেই বেছে নিতে চাইবেন।

সর্বোচ্চ ৭৮*

২১ ম্যাচে ৩৪.৫২ গড়ে ৫৮৭ রান

১৩০.৪৪ এর স্ট্রাইক রেট

অর্ধশতক ৪টি

এ জাতীয় আরও খবর