শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ-আফগানিস্তান অগ্নিপরীক্ষা কাল

BD AFটি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচটিতেই স্বাগতিক বাংলাদেশ আর আফগানিস্তান মাঠে নামবে।  ১৬ মার্চ টি-২০ বিশ্বকাপ ২০১৪-র প্রথম চলা শুরু। রোববার দিনটা বাংলাদেশের জন্য বিশেষ গুরুত্ব রাখে। ম্যাচটি মুশফিকদের জন্য অগ্নিপরীক্ষা।

 

তবে জাতীয় ক্রিকেট দলের সদস্য আর দেশের ক্রিকেট ভক্তদের জন্য শংকার দিন শনিবার। পুরো দিনটাই কাটবে শংকায়। কাল কি পারবে মিরপুরের উইকেটে বাংলাদেশ আফগানদের হারাতে!


রোববার সাড়ে তিনটায় যে ম্যাচটি মাঠে গড়াবে সেটা দুই দলের জন্য টি-২০ ফর্মেটে প্রথম সাক্ষাত। হোক টি-২০ তাতে কি! এশিয়া কাপে এই আফগানদের বিপক্ষেই তো ৩২ রানে হেরেছে মুশফিকরা। সে কারণেই এতো শংকা বাংলাদেশ জুড়ে।


আতঙ্কিত হবার আরো কারণ আছে। রোববার যে দল জিতবে তারা মূল পর্বে টপ টেনে খেলার সুযোগটা প্রায় হাতের মুঠোয় নিয়ে নেবে। হেরে গেলেই টি-২০ বিশ্বকাপের বাছাই পর্ব থেকে বিদায়!


বাছাই পর্বে ‘এ’ গ্রুপে বাংলাদেশ, আফগানিস্তান, হংকং আর নেপাল আছে। সে কারণেই হিসাবটা পরিষ্কার। নেপাল আর হংকং নিয়ে বাংলাদেশ-আফগানদের কোনো ভাবনা নেই। দুই দলই হংকং আর নেপালের বিপক্ষে জিতবে এটা স্বাভাবিক অংকের হিসাব। তাহলে বাকি থাকে বাংলাদেশ-আফগানদের ম্যাচের ফলাফল।

সে কারণেই দেশের সকল টিভি মিডিয়াতে রোববারের ম্যাচটি নিয়ে আলোচনা আর পর্যালোচনার অন্ত নেই।  চলছে আফগানদের নিয়ে গবেষণা। অথচ পরিসংখ্যান কিন্তু আফগানদের এতো গুরুত্ব দিচ্ছে না। কারণ ওয়ানডে সার্টিফিকেট পাবার পর ৩১ওয়ানডে আর ২২টি টি-২০ ম্যাচ খেলেছে আফগানিস্তান। অপর দিকে বাংলাদেশ ৮৩টি  টেস্ট, ২৮৩টি ওয়ানডে আর ৩৩টি টি-২০ ম্যাচে খেলার অভিজ্ঞতা ঝুঁলিতে জমা রেখেও আফগানদের নিয়ে চিন্তিত।


তাই তো সাকিব দলীয় পারফর্মেন্স কথা আবারও বললেন শনিবার। আর নাসির বলে দিলেন,“আমরা জানি কেমন প্রত্যাশা আমাদের কাছে।” দুই তারকার কথা থেকে পরিষ্কার হয়ে যায় বাংলাদেশী ক্রিকেটাররা কতটা সিরিয়াস রোববারের ম্যাচ নিয়ে। এর কারন আফগানদের সাম্প্রতিক পারফর্মেন্স। মাঠে আফগানদের দুই বিশাল দেহী পেস বোলার আর শক্তিশালী মিডল অর্ডারই আফগানদের মূল চালিকা শক্তি।


অবশ্য বাংলাদেশ দলের সুখবর আছে। তামিম, সোহাগ, মাশরাফি ইনজুরি থেকে ফিরেছেন। অধিনায়ক মুশফিক ইনজুরি থেকে ফিরলেও কিপিং করতে পারছিলেন না। দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচে আইরিশদের বিপক্ষে পুরো ইনিংস কিপিং করলেন। দলে কোনো ইনজুরি নেই। পুরো শক্তি নিয়ে রোববার মাঠে নামবে বাংলাদেশ। ১৯৮৬ সাল থেকে ওয়ানডে যাত্রা শুরু করা মুশফিকদের কাছে জয় প্রত্যাশা করাটা খুব বেশি চাওয়া হবে না।

এ জাতীয় আরও খবর