শনিবার, ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আখাউড়ায় বড় দু-দলের কোন বিদ্রোহী নেই।

Upzila-electionসুখ একটা আছে বৈকি আখাউড়ায়। বড় দু-দলের কোন বিদ্রোহী নেই। তবে আড়ালের চিত্রটা ভিন্নতর। মনোনয়নে পিছিয়ে পড়েছে আওয়ামী লীগ। নীরব-সরবে অনেক নেতাই দলীয় প্রার্থীর সমালোচনায় মুখর। বিএনপিও যে সুখী তা কিন্তু নয়। ফ্যাক্টর জামায়াত। মাঠে আছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ডাকসুর সাবেক এজিএস মুক্তিযোদ্ধা মাহবুবুল আলম ভুঁইয়া। বড় দুই দলের প্রার্থী বিবেচনা আর প্লাস-মাইনাস হিসাবে মাহবুব যুৎসই অবস্থানে আছেন। ৫ ইউনিয়ন আর এক পৌরসভা নিয়ে ছোট এই উপজেলার নির্বাচনের হাল অবস্থার চট জলদি এই উত্তর। এলাকা ছোট হওয়ায় লড়াইয়ের হিসাবটা বলা চলে মুখে মুখে। এখানে ভোট ২৩শে মার্চ। ভোটার ৮৮ হাজার ২৯৬ জন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৮ জন। ৬ই মার্চ প্রত্যাহারের পর এই সংখ্যা আরও কমতে পারে। তবে মূল লড়াইয়ের হিসাব ৩ জনকে নিয়ে। আওয়ামী লীগের আবুল কাশেম ভূইয়া, বিএনপি’র ইঞ্জিনিয়ার মো. মুসলিম উদ্দিন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহবুবুল আলম ভূঁইয়াকে নিয়েই সব হিসাব-নিকেশ।

গত ২২শে ফেব্রুয়ারি তৃণমূলের ভোটে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী নির্বাচিত হন ঢাকা রমনা কৃষক লীগের নেতা আবুল কাশেম ভুঁইয়া। এরপরই প্রার্থী ভাল হয়নি বলে শুরু হয় সমালোচনা। আওয়ামী লীগের নেতারাই বলছেন তাকে কেউ চিনে না। টাকার জোর আছে এই যা। দলের সূত্রগুলো আরও জানায়, তৃনমূলের ভোটের তালিকায় উপজেলা আওয়ামী লীগের কোন নেতা ছিলেন না। তাই প্রার্থী নির্বাচন ঠিকঠাকভাবে হয়নি। তারা এই প্রার্থীকে পৌর মেয়র তাকজিল খলিফা কাজলের প্রার্থী হিসেবেই গণ্য করছেন। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে হয় উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন। তখন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিতদের নাম ঘোষিত হয়। এরপর ৬৭ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি অনুমোদনের জন্য জেলা কমিটিতে জমা করা হয়। এ কমিটি অনুমোদিত না হওয়ায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়া আর কাউকে তৃণমূলের ভোটাধিকারে রাখা হয়নি। এ কারণে নিজের অবস্থান সুবিধার হবে না ধরে নিয়ে আগেই সরে দাঁড়ান উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ বোরহান উদ্দিন। উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি না থাকায় নেতারাও নির্বাচন নিয়ে গাছাড়া ভাবে। উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মাইনুল ইসলাম বলেন, আওয়ামী লীগের এখানে কোন কমিটি নেই। প্রার্থী দিয়েছে তৃণমূল। আর যিনি প্রার্থী মনোনীত হয়েছেন তিনিও আমাদের কাছে আসেননি। হয়তো আমাদের প্রয়োজন মনে করছেন না। মানুষই বলবে কার অবস্থা কি। আরেকজন নেতা সাবেক পৌর মেয়র নূরুল হক ভূইয়া বলেন, আখাউড়ায় আওয়ামী লীগের রাজনীতি এখন বিরান ভূমিতে পরিণত হয়েছে। বৃটিশ আমলের মহিলা আওয়ামী লীগের কমিটি ছাড়া আর কোন কমিটি নেই। আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের কোন কমিটি নেই। ৮০ ভাগ কর্মী নীরব। কোন স্বতঃস্ফূর্ততা নেই। আর যাদের পরিচয়ে কাশেম পরিচিত হচ্ছেন তাদেরকে আখাউড়ার মানুষ চেনেন আবার অন্যভাবে। প্রার্থী ভালো করে বক্তৃতা দিতে পারেন না বলেও সমালোচনা আছে। তার হয়ে কথা বলেন কাজল। নূরুল হক ভূইয়া আরও অভিযোগ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে এখানে প্রার্থী নির্বাচন হয়নি। নির্দেশনা মানলে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের ভোট থাকার কথা ছিল। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করে মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল বলেন, দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ মতোই প্রার্থী সিলেকশন হয়েছে। প্রক্রিয়ায় কোন ত্রুটি-বিচ্যুতি হয়নি। প্রার্থী নির্বাচনে কোন টাকা লেনদেন হয়নি বলেও তিনি জানান। বলেন, আমরা আশাবাদী জয় পাবো। আওয়ামী লীগ প্রার্থী কাশেম আখাউড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের কুড়পাইকা গ্রামের বাসিন্দা। তার এলাকায় ঐক্যবদ্ধ করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। ওদিকে বিএনপি একক প্রার্থী দিয়ে নিশ্চিন্ত হলেও দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে জামায়াত প্রার্থী। আখাউড়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মো. মুসলিম উদ্দিন দলের প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন। জামায়াতের প্রার্থী হয়েছেন নজরুল ইসলাম খাদেম। যদিও জামায়াত এখানে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী নয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে লাগাতার আন্দোলনে জামায়াতের কোন তৎপরতা ছিলো না এখানে। তবে আওয়ামী লীগ-বিএনপি’র ভিত কাঁপিয়ে দিতে পারেন নির্দলীয় প্রার্থী প্রথম উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মাহবুবুল আলম ভূঁইয়া। তিনি আখাউড়ার ধরখার ইউনিয়নের বাসিন্দা। ওই ইউনিয়নের মোট ভোটার ১৯ হাজার। মাহবুব ছাড়া এখানে আর কোন প্রার্থী নেই। এই ভোটের সবই তার এমনটাই হিসাব করা হয়। চেয়ারম্যান পদে অন্য প্রতিদ্বন্দ্বীরা হচ্ছেন কে.এম. শফিকুর রহমান (ন্যাপ মোজাফফর), মো. জাহাঙ্গীর আলম (জাসদ), আতাউর রহমান নাজিম ও নাহিদুল ইসলাম নাহিদ। পুরুষ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৮ জন। তারা হচ্ছেন মো. নজরুল ইসলাম , মো. জামির হোসেন, মুরাদ হোসেন ভূইয়া , মো. জসিম মিয়া , মো. ইকবাল হোসেন ভূইয়া, মো. বাবুল মিয়া। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন জান্নাত পারভীন স্মৃতি ও পিয়ারা বেগম। চেয়ারম্যান ও দুই ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী সংখ্যা ৬ মার্চ প্রত্যাহারের পর আরও কমতে পারে বলে আভাস মিলেছে।সুখ একটা আছে বৈকি আখাউড়ায়। বড় দু-দলের কোন বিদ্রোহী নেই। তবে আড়ালের চিত্রটা ভিন্নতর। মনোনয়নে পিছিয়ে পড়েছে আওয়ামী লীগ। নীরব-সরবে অনেক নেতাই দলীয় প্রার্থীর সমালোচনায় মুখর। বিএনপিও যে সুখী তা কিন্তু নয়। ফ্যাক্টর জামায়াত। মাঠে আছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ডাকসুর সাবেক এজিএস মুক্তিযোদ্ধা মাহবুবুল আলম ভুঁইয়া। বড় দুই দলের প্রার্থী বিবেচনা আর প্লাস-মাইনাস হিসাবে মাহবুব যুৎসই অবস্থানে আছেন। ৫ ইউনিয়ন আর এক পৌরসভা নিয়ে ছোট এই উপজেলার নির্বাচনের হাল অবস্থার চট জলদি এই উত্তর। এলাকা ছোট হওয়ায় লড়াইয়ের হিসাবটা বলা চলে মুখে মুখে। এখানে ভোট ২৩শে মার্চ। ভোটার ৮৮ হাজার ২৯৬ জন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৮ জন। ৬ই মার্চ প্রত্যাহারের পর এই সংখ্যা আরও কমতে পারে। তবে মূল লড়াইয়ের হিসাব ৩ জনকে নিয়ে। আওয়ামী লীগের আবুল কাশেম ভূইয়া, বিএনপি’র ইঞ্জিনিয়ার মো. মুসলিম উদ্দিন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহবুবুল আলম ভূঁইয়াকে নিয়েই সব হিসাব-নিকেশ।

গত ২২শে ফেব্রুয়ারি তৃণমূলের ভোটে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী নির্বাচিত হন ঢাকা রমনা কৃষক লীগের নেতা আবুল কাশেম ভুঁইয়া। এরপরই প্রার্থী ভাল হয়নি বলে শুরু হয় সমালোচনা। আওয়ামী লীগের নেতারাই বলছেন তাকে কেউ চিনে না। টাকার জোর আছে এই যা। দলের সূত্রগুলো আরও জানায়, তৃনমূলের ভোটের তালিকায় উপজেলা আওয়ামী লীগের কোন নেতা ছিলেন না। তাই প্রার্থী নির্বাচন ঠিকঠাকভাবে হয়নি। তারা এই প্রার্থীকে পৌর মেয়র তাকজিল খলিফা কাজলের প্রার্থী হিসেবেই গণ্য করছেন। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে হয় উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন। তখন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিতদের নাম ঘোষিত হয়। এরপর ৬৭ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি অনুমোদনের জন্য জেলা কমিটিতে জমা করা হয়। এ কমিটি অনুমোদিত না হওয়ায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়া আর কাউকে তৃণমূলের ভোটাধিকারে রাখা হয়নি। এ কারণে নিজের অবস্থান সুবিধার হবে না ধরে নিয়ে আগেই সরে দাঁড়ান উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ বোরহান উদ্দিন। উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি না থাকায় নেতারাও নির্বাচন নিয়ে গাছাড়া ভাবে। উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মাইনুল ইসলাম বলেন, আওয়ামী লীগের এখানে কোন কমিটি নেই। প্রার্থী দিয়েছে তৃণমূল। আর যিনি প্রার্থী মনোনীত হয়েছেন তিনিও আমাদের কাছে আসেননি। হয়তো আমাদের প্রয়োজন মনে করছেন না। মানুষই বলবে কার অবস্থা কি। আরেকজন নেতা সাবেক পৌর মেয়র নূরুল হক ভূইয়া বলেন, আখাউড়ায় আওয়ামী লীগের রাজনীতি এখন বিরান ভূমিতে পরিণত হয়েছে। বৃটিশ আমলের মহিলা আওয়ামী লীগের কমিটি ছাড়া আর কোন কমিটি নেই। আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের কোন কমিটি নেই। ৮০ ভাগ কর্মী নীরব। কোন স্বতঃস্ফূর্ততা নেই। আর যাদের পরিচয়ে কাশেম পরিচিত হচ্ছেন তাদেরকে আখাউড়ার মানুষ চেনেন আবার অন্যভাবে। প্রার্থী ভালো করে বক্তৃতা দিতে পারেন না বলেও সমালোচনা আছে। তার হয়ে কথা বলেন কাজল। নূরুল হক ভূইয়া আরও অভিযোগ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে এখানে প্রার্থী নির্বাচন হয়নি। নির্দেশনা মানলে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের ভোট থাকার কথা ছিল। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করে মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল বলেন, দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ মতোই প্রার্থী সিলেকশন হয়েছে। প্রক্রিয়ায় কোন ত্রুটি-বিচ্যুতি হয়নি। প্রার্থী নির্বাচনে কোন টাকা লেনদেন হয়নি বলেও তিনি জানান। বলেন, আমরা আশাবাদী জয় পাবো। আওয়ামী লীগ প্রার্থী কাশেম আখাউড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের কুড়পাইকা গ্রামের বাসিন্দা। তার এলাকায় ঐক্যবদ্ধ করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। ওদিকে বিএনপি একক প্রার্থী দিয়ে নিশ্চিন্ত হলেও দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে জামায়াত প্রার্থী। আখাউড়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মো. মুসলিম উদ্দিন দলের প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন। জামায়াতের প্রার্থী হয়েছেন নজরুল ইসলাম খাদেম। যদিও জামায়াত এখানে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী নয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে লাগাতার আন্দোলনে জামায়াতের কোন তৎপরতা ছিলো না এখানে। তবে আওয়ামী লীগ-বিএনপি’র ভিত কাঁপিয়ে দিতে পারেন নির্দলীয় প্রার্থী প্রথম উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মাহবুবুল আলম ভূঁইয়া। তিনি আখাউড়ার ধরখার ইউনিয়নের বাসিন্দা। ওই ইউনিয়নের মোট ভোটার ১৯ হাজার। মাহবুব ছাড়া এখানে আর কোন প্রার্থী নেই। এই ভোটের সবই তার এমনটাই হিসাব করা হয়। চেয়ারম্যান পদে অন্য প্রতিদ্বন্দ্বীরা হচ্ছেন কে.এম. শফিকুর রহমান (ন্যাপ মোজাফফর), মো. জাহাঙ্গীর আলম (জাসদ), আতাউর রহমান নাজিম ও নাহিদুল ইসলাম নাহিদ। পুরুষ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৮ জন। তারা হচ্ছেন মো. নজরুল ইসলাম , মো. জামির হোসেন, মুরাদ হোসেন ভূইয়া , মো. জসিম মিয়া , মো. ইকবাল হোসেন ভূইয়া, মো. বাবুল মিয়া। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন জান্নাত পারভীন স্মৃতি ও পিয়ারা বেগম। চেয়ারম্যান ও দুই ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী সংখ্যা ৬ মার্চ প্রত্যাহারের পর আরও কমতে পারে বলে আভাস মিলেছে।