বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হাসপাতাল নয়, ডাস্টবিনে বাবাকে রেখে গেল ছেলেরা

 


ঢামেকে-চিকিৎসাধীন-গিয়াসউদ্দিন-400x200ঘরের পাশের ডাস্টবিনে ময়লা আবর্জনা দেখেই অভ্যস্থ সবাই। তবে এবার ডাস্টবিনে দেখা গেল মানুষ। মঙ্গলবার রাজধানীর জুরাইনের কাপড় ব্যাবসায়ী মেহেদী হাসান (৩৫) ময়লার একটি ডাস্টবিনে গিয়াসউদ্দিন নামের ৭০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধকে দেখতে পান।
গিয়াসউদ্দিন জানান, চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়ার কথা বলে নিজের ছেলেরাই তাকে ডাস্টবিনে ফেলে দিয়ে গেছে।
হত্যভাগ্য এই বাবাকে পুলিশ মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১ টায় যখন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে, তখন কথা বলার কোনো ক্ষমতাই ছিলো না তার।
উদ্ধারকারী মেহেদী হাসান জানান, চেক লুঙ্গি আর তেল চিটচিটে সাদা পাঞ্জাবী পড়া শ্যামবর্নের হাড়সর্বস্ব শরীরটি পড়ে ছিল জ্ঞান হারিয়ে।
তিনি বলেন, মঙ্গলবার ভোরে ২১১/পশ্চিম জুড়াইনের মুন্সিবাড়ি এলাকায় খাদ্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পাশের একটি ডাস্টবিনের সামনে বসে ‘আমি বোঝা হয়ে গেছি’ বলে বিলাপ করে কাঁদছিলেন ওই বৃদ্ধ।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের বিবাড়িয়া বাড়ি এ বৃদ্ধর। দীর্ঘদিন ধরে বাধ্যর্কজনিত নানা রোগে ভুগছেন। দুই ছেলে প্রথমে কিছুদিন চিকিৎসা করিয়ে পরে তা বন্ধ করে দেয়। কিন্তু কিছুদিন ধরে অসুস্থতা বেড়ে গেলে ছেলেরা বিরক্ত হয়ে যায়।
এরপর গত সোমবার সন্ধ্যায় হাসপাতালে ভর্তি করার কথা বলে বৃদ্ধকে ঢাকা নিয়ে আসে ছেলেরা। রাত ৩ টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে ঘোরানোর পর ডাস্টবিনের পাশে বসিয়ে রেখে খাবার আনার কথা বলে পালিয়ে যায় তারা।
মেহেদী হাসান জানান, এ কথা শুনে আমি তাকে কিছু খাবার ও ১ টি চাদর দিয়ে যাই। সারাদিন সেখানেই বসে থাকায় লোকটি আরো বেশি অসুস্থ হয়ে যায়। রাত সাড়ে ৮ টার দিকে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন ওই বৃদ্ধ।
শ্যামপুর থানাকে ঘটনাটি জানালে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) নিয়ে আসে।
ঢামেক-এর জরুরী বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক ফিরোজ আহমেদ প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে বলেন, ‘লোকটি দির্ঘদিন ধরে অপুষ্টিতে ভুগছেন।এছাড়াও অন্যান্য সমস্যা থাকার সম্ভাবনা বয়েছে। আরো পরীক্ষার পর তার সমস্যাগুলো সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে’।
শ্যামপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুর রউফ বলেন, জ্ঞান ফিরলে বৃদ্ধের বিস্তারিত পরিচয় জেনে তাকে বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।
এটিএন নিউজ