বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খাদ্য ও পুষ্টির ঘাটতি মেটাচ্ছে পোল্ট্রি শিল্প

POULT_SECTORদেশের মানুষের খাদ্য ও পুষ্টির ঘাটতি মেটাতে পোল্ট্রি শিল্প অগ্রণী ভূমিকা রাখছে বলে মন্তব্য করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক।



শুক্রবার রাত ৮টায় রাজধানীর বাংলামোটরে একটি হোটেলে বাংলাদেশের পোল্ট্রি সেক্টরের বর্তমান অবস্থা শীর্ষক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।



ব্রিডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের উদ্যোগে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।



দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে মৎস ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় অগ্রণী ভূমিকা রাখছে বলে উল্লেখ মন্ত্রী বলেন, প্রাণিসম্পদের সঙ্গে সবাই অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জড়িত। দেশের পুষ্টি সাধনে এ অধিদফতর সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখছে।



এসময় দেশের বাইরে থেকে একদিনের বাচ্চা আমদানি করতে কত খরচ কত হয় তা তাকে জানানোর নির্দেশনা দেন মন্ত্রী। 



মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি মসিউর রহমান। সভাপতির বক্তব্যে তিনি ১৪ দফা দাবি তুলে ধরেন। এসময় তিনি জানান, রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতায় এ খাতে চার হাজার কোটি টাকা ধ্বংস হয়েছে। এসময় আগুনে পুড়েছে  মুরগির বাচ্চাসহ ৯৫টি গাড়ি। 



জাতীয় সপ্তাহ পালন কার্যকর করার জন্য উৎসাহ দিয়ে তিনি বলেন, জনগণকে সচেতন করার জন্য এ পদক্ষেপ অনেক ভালো। এসময় তিনি ডাটাবেজ, সুদের হার নির্ধারণ ও গবেষণা কার্যাক্রম এবং জমি বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন।

POULT_SECTOR

সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র বলেন, এ শিল্প আমাদের দেশে আমিষের চাহিদা সবচেয়ে বেশি পুরণ করছে। পোল্ট্রি শিল্প লোকসানের মুখে চলতে থাকলে অনেকে এ পেশা থেকে সরে যাবে। পরে তাদের ফেরানো যাবে না। তাই সবাই মিলে গুরুত্ব দিয়ে এ শিল্পকে বাঁচাতে হবে। 



সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবুল লুৎফে ফজলে রহিম খান বলেন, স্বল্প খরচে প্রোটিন সরবরাহ দেওয়া হচ্ছে পোল্ট্রি শিল্পের মাধ্যমে। জিডিপিতে, গ্রামে কর্মসংস্থানে এবং নতুন উদ্যোক্তা গড়ে তোলায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে এ শিল্প। 



সভায় তিনি পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে পোল্ট্রি শিল্পের ইতিহাস তুলে ধরেন। এসময় তিনি বলেন, এ শিল্পে ৩০ হাজার কোটি টাকা টার্ন ওভার। ৬০ লাখ কর্মজীবি মানুষকে এ শিল্পের মধ্যে নিয়ে আসা হয়েছে। 



এছাড়া মতবিনিময় সভায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের মহাসচিব ছাইদুর রহমান বাবু।



সংগঠনের ১৪ দফা দাবিগুলো হলো: পর্যাপ্ত পরিমাণ ভ্যাকসিন আমদানি করা এবং সারাদেশে ভ্যাকসিন চালু করার লক্ষ্যে রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া তরান্বিত করা। ওয়েব মার্কেট গঠন করা। কর রেয়াত ২০২৫ সাল পর্যন্ত বৃদ্ধি করা। পোল্ট্রি উন্নয়ন বোর্ড গঠন। সকল জিপি, পিএস ফার্ম ও হ্যাচারিগুলোকে ব্রিডার্স অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য হওয়া বাধ্যতামূলক করা। 



সারাদেশে পোল্ট্রি সেক্টরের উন্নয়নের জন্য ডাটা বেইজ তৈরি। জাতীয়ভাবে পোল্ট্রি সপ্তাহ উদযাপন। পোল্ট্রি শিল্পের জন্য সকল সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংক ঋণের সুদরে হার সর্ব্বোচ্চ শতকরা ৯ ভাগ নির্ধারণ করা। বন্ধ হয়ে যাওয়া খামারগুলো পুনরায় চালু করার জন্য বিশেষ প্রণোদনার ব্যবস্থা। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্ততের ল্যাবগুলো আধুনিকীকরণ করে খামারীদের ল্যাবের সুবিধা দেওয়া, বৈজ্ঞানিকদের সাথে পোল্ট্রি সেক্টরের আগাম রোগবালাই নিয়ে আলোচনার ব্যবস্থা। কাসাবা চাষ করা চালু। এছাড়া সাবেক মন্ত্রীর দেওয়া একটি প্রতিশ্রুতিও বাস্তবায়নের জন্য আহ্বান জানানো হয়।