মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কয়েকশো মুসলমানকে রক্ষা করছেন এক যাজক

 

 

0,,17429204_303,00ডেস্ক রিপোর্ট: ধর্মীয় সংহিসতা সেন্ট্রাল আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে৷ মানুষকে ছুরি-চাপাতি দিয়ে আহত করা হচ্ছে৷ গুলি করে মেরে ফেলা হচ্ছে৷ এই পরিস্থিতিতে এক যাজক সাহস দেখিয়ে এগিয়ে এসেছেন৷ রক্ষা করছেন নির্যাতিত মুসলিমদের৷
 
যাজক সাভিয়ে-আর্নো ফাগবা: সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকের শহর বোয়ালির এক শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন ৭০০ ব্যক্তি৷ তাঁরা সবাই মুসলমান৷ অত্যাচার নির্যাতনের হাত থেকে উদ্ধার পাওয়ার জন্যই এই সব মানুষ ক্যাথলিক গির্জা-চত্বরে নির্মিত সাময়িক এক আশ্রয়স্থলে মাথা গুঁজেছেন৷
গির্জার ভবনে তাঁরা বাস করেন ও ঘুমান৷ শুধু রান্নাবান্না করা হয় বাইরে৷ গির্জার যাজক সাভিয়ে-আর্নো ফাগবা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন এইসব অসহায় মানুষের দিকে৷
ধর্মীয় সহিংসতা বৃদ্ধি পাচ্ছে: মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলছে এটি ‘এথনিক ক্লিনসিং বা ‘জাতিগত শোধন'৷
 
0,,17429198_404,00আশ্রয় পাওয়া মুসলিম পরিবার: জাতিসংঘ কয়েক মাস ধরেই দেশটিতে গণহত্যার ব্যাপারে সতর্ক করে আসছে৷ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকে বছর খানেক আগে মুসলিম সেলেকা বিদ্রোহীরা স্বৈরতন্ত্রের অভিযোগ এনে প্রেসিডেন্ট ফ্রঁসোয়া বোসিসেকে ক্ষমতাচ্যুত করে৷ এই পরিপ্রেক্ষিতে প্রাক্তন প্রেসিডেন্টের অনুগত খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ও ‘অ্যান্টি-বালাকা' নামে বিদ্রোহী গ্র“প তৈরি করে৷ দেশটির উত্তরাঞ্চলে মুসলিম সশস্ত্র যোদ্ধাদের সঙ্গে তুমুল সংঘর্ষে লিপ্ত হয় তারা৷ সাধারন মুসলমানরাও সহিসংতার শিকার হয়৷ ঘরবাড়ি ত্যাগ করে পালাতে থাকে তারা৷ এদের এক অংশ খ্রিষ্টানদের এক গির্জায় আশ্রয় পেয়েছে৷ এই প্রসঙ্গে যাজক সাভিয়ে-আর্নো ফাগবা বলেন, ‘প্রয়োজনের তুলনায় আমি সামান্যই করতে পারি৷ আমার জায়গায় অন্য কেউ থাকলেও এই কাজটি করতেন’
কিন্তু খুব কম মানুষই এক্ষেত্রে এগিয়ে আসছে৷ যদিও নিরীহ মুসলিমদের রক্ষা করতে এই ধরনের আরো সাহসী পদক্ষেপের প্রয়োজন৷
শেষ মুহূর্তে আত্মরক্ষা: যাজক ফাগবা ও তাঁর এক সহকর্মী শহরে গিয়ে দেখতে পান রাস্তার ধারে ভীতসন্ত্রস্ত মুসলিমদের৷ শেষ মুহূর্তে পালাবার আশা করেন অনেকে৷ তিনি এইসব মানুষকে আশ্বাস দিয়ে তাঁকে অনুসরণ করতে বলেন৷
 
এরপর তাঁরা দ্বারে দ্বারে আতঙ্কিত মুসলমান জনগোষ্ঠীকে খুঁজতে চেষ্টা করেন৷ অনেকে ভয়ে জঙ্গলে পালিয়ে গিয়েছেন৷ ‘সেখানে গিয়েও কয়েক জনকে আমরা ফিরিয়ে আনি৷ খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের কয়েকজন তৎপর তরুণ সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেন৷ ইতোমধ্যে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়েরও কেউ কেউ আমাদের গির্জায় আশ্রয় নিয়েছেন, যাঁরা বিতাড়িত মুসলিমদের পানি ও খাদ্য দিয়ে সাহায্যের চেষ্টা করেছেন’ জানান ফাগবা৷
0,,17429115_404,00আশ্রয়দাতার জীবনও ঝুঁকির মুখে: তাঁকেও এখন ভয় দেখানো হচ্ছে৷ একবার তো জীবন নিয়ে কোনো রকমে ফিরেছেন তিনি৷ এক রোববার গির্জা কমিউনিটির এক অসুস্থ সদস্যকে দেখতে যাওয়ার সময় ঘটে ঘটনাটি৷ গির্জা চত্বর পার হয়ে রাস্তায় আসা মাত্রই খ্রিষ্টান মিলিশিয়ারা ঘিরে ধরে তাঁর গাড়িটিকে৷
কোনোরকমে গাড়ি থেকে নেমে ফাগবা জিজ্ঞেস করেন৷ ‘ঠিক আছে আমাকে নিয়ে যা ইচ্ছা করতে পার৷ আমার মৃত্যুর ভয় নেই’।  সেই মুহূর্তে তাদের এক নেতা হাজির হয় ও গ্র“পটিকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়৷
জীবন রক্ষা পাওয়ায় সাহায্য চালিয়ে যান সাভিয়ে-আর্নো ফাগবা৷ খ্রিষ্টান মিলিশিয়ারা গির্জা-চত্বরে দুই জন মুসলমানকে আহত করার পর আশ্রিতরা আর কারো ওপর আস্থা রাখতে পারছেন না৷ শুধুমাত্র মানবদরদী সাভিয়ে-আর্নো ফাগবার ওপর কিছুটা ভরসা করতে পারেন এই অসহায় মানুষগুলি৷ তাও পালাবার চিন্তাটা মাথায় থাকে তাঁদের৷ যত শিগগির সম্ভব দেশ ছাড়তে চান তাঁরা৷সূত্র: ডয়েচেভেলে

এ জাতীয় আরও খবর