সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ওয়ানডে সিরিজেও হারল বাংলাদেশ

530612232a14b-BD-batনাহ, আজকের ম্যাচেও পারল না বাংলাদেশ। গত ম্যাচের ভুলগুলো ‘শুধরানো’ হলো না। সিরিজেও ফেরা হলো না মুশফিকুর রহিমের দলের। ৪৩ ওভারে ২২৮ রানে অলআউট হয়ে মেনে নিতে হলো ৬১ রানের পরাজয়। 



‘বড় বেদনার মতো বেজেছো তুমি হে আমার প্রাণে…’ বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সে রবি ঠাকুরের গানটাই যেন বারবার বাজে মনে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের পর ওয়ানডে সিরিজেও হার। অথচ গত দুই বছর ঘরের মাঠে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স বলে ভিন্ন কথা। ২০১২-এ ওয়ানডে সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারানো, গেল বছর নিউজিল্যান্ডকে ‘বাংলাওয়াশ’! মধুর স্মৃতিগুলো এত তাড়াতাড়ি উবে যাওয়ার নয়! তবুও কেন শ্রীলঙ্কার সামনে এমন অসহায় আত্মসমর্পণ?



শ্রীলঙ্কার ছুড়ে দেওয়া ২৯০ রানের লক্ষ্য নিয়ে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা। সে ধাক্কা আর সামলে উঠতে পারল না বাংলাদেশ। প্রথম ওভারে দলের মাত্র ২ রানে লাসিথ মালিঙ্গার বলে কোনো রান না করেই ফিরলেন আগের ম্যাচে বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ রান করা শামসুর রহমান।

এরপর অবশ্য দলকে কক্ষপথে ফেরাতে লড়েছেন এনামুল হক ও মুমিনুল হক। তবে সে লড়াইও শেষ পর্যন্ত পেল না পূর্ণতা। প্রথম পাওয়ার প্লে-তে বাংলাদেশ তুলল ১ উইকেটে ৪৩। সেনানায়েকের বলে মুমিনুল ফিরলেন ১৫ করে। ৪২ করা এনামুল এলবিডব্লু হলেন থিসারা পেরেরার বলে।

এরপর সাকিব-মুশফিক আরেকটা চেষ্টা চালালেন। দুজনের চতুর্থ উইকেট জুটিতে এল ৫৩ রান। ২৪ করে অহেতুক শট খেলে সাকিব প্রিয়ঞ্জনের বলে ফেরার পরও গত ম্যাচের মতো এদিনও আশার বাতি হয়ে জ্বলে রইলেন মুশফিক। ধ্বংসস্তূপের মধ্যেই স্পর্শ করলেন ১৩তম ওয়ানডে অর্ধশতক। ৭৯ করে মুশফিক যখন মালিঙ্গার শিকার হলেন, কার্যত তখনই খুন হলো বাংলাদেশের স্বপ্ন। শেষ দিকে মাশরাফি কিছুটা ঝলক দেখালেও তা ওই নিভে যাওয়ার আগে দপ করে জ্বলে ওঠার মতোই। শ্রীলঙ্কার পক্ষে মালিঙ্গা, সেনানায়েকে, পেরেরা, মেন্ডিস প্রত্যেকেই পেয়েছেন দুটি করে উইকেট। ম্যাচসেরা দারুণ এক সেঞ্চুরি উপহার দেওয়া কুমার সাঙ্গাকারা।   

সিরিজের শেষ ম্যাচ আগামী শনিবার। কার্যত অগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। আবার গুরুত্বপূর্ণও। এই ম্যাচ দিয়েই এশিয়া কাপের জন্য আত্মবিশ্বাসের প্রয়োজনীয় রসদটুকু সংগ্রহ করে নিতে পারে বাংলাদেশ।