বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কোয়ার্টার ফাইনালে এক পা বার্সার

5303d9f19a39d-Barcaএর আগে কখনোই ইংল্যান্ডে কোনো ইংলিশ ক্লাবের মাঠে গোল পাননি। সেই ব্যর্থতার বৃত্ত ভাঙলেন লিওনেল মেসি। ইংল্যান্ডে কোনো ইংলিশ ক্লাবের মাঠে তাঁর প্রথম গোলটা যেভাবে এল, আসতে পারত তার চেয়েও ভালোভাবে। দুর্দান্ত এত থ্রু বল পেয়ে ছুটছিলেন গোলমুখে। মেসির সেই চেনা ক্ষিপ্র গতি। তা থেকেই আসতে পারত গোলটি। কিন্তু মেসিকে থামাতে মারাত্মক ট্যাকল করলেন তাঁরই স্বদেশি ডিফেন্ডার মার্টিন দেমিচেলিস।

লাল কার্ড দেখলেন ম্যানচেস্টার সিটির ডিফেন্ডার। বার্সেলোনা পেয়ে গেল পেনাল্টি। নিখুঁত লক্ষ্যভেদ করে গোল করলেন মেসি। ইনজুরি থেকে ফেরার পর সর্বশেষ চার ম্যাচে তাঁর ষষ্ঠ গোল। ৫৪ মিনিটে মেসির এই গোলের পর ৯০ মিনিটে দানি আলভেস ২-০ করে ফেলার পর দারুণ এক জয়ের তৃপ্তি নিয়ে স্পেনের বিমানে উঠল বার্সা। সম্ভবত উঠল কোয়ার্টার ফাইনালেও। শেষ ষোলোর লড়াইটা জিততে হলে ১২ মার্চের ফিরতি লেগে বার্সার মাঠে গিয়ে ৩-০ গোলে জেতার অসাধ্য সাধন করতে হবে সিটিকে।

বার্সার এই জয়ের মাহাত্ম্য বোঝা যাবে এই পরিসংখ্যানে: এই মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলে নিজেদের মাঠে আগের ২০ ম্যাচে মাত্র দুবার হেরেছিল সিটি। এই জয়েও বার্সার জন্য এখনই পরের রাউন্ড নিশ্চিত বলা যাবে না। যেটা বলা যায় পিএসজির বেলায়। বায়ার লেভারকুসেনের মাঠ থেকে ৪-০ গোলের বিরাট জয় তুলে নিল প্যারিসের ক্লাবটি। ফিরতি লেগটাকে এক রকম অর্থহীন করে দিল জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচের জোড়া গোল। ৩৯ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করার তিন মিনিট পরই আরেকটি গোল করেন ফর্মের তুঙ্গে থাকা এই সুইডিশ স্ট্রাইকার। ৩ মিনিটে গোলের সূচনা করেছিলেন মাতুইদি, ৮৮ মিনিটে তারই সমাপ্তি টেনে দেন ইয়োহান কাবায়ে।

তবে ফুটবল বিশ্বের নজর ছিল সিটি-বার্সা ম্যাচের দিকেই। বলা হচ্ছিল, স্প্যানিশ মোড়কে ইংলিশ ফুটবলের সঙ্গে লড়াই হবে বার্সার টিকিটাকার। মালাগা থেকে সিটিতে যাওয়ার সময় কোচ ম্যানুয়েল পেলেগ্রিনি আসলে বার্সার দর্শনটাকেও সঙ্গে করে নিয়ে গেছেন। ইংল্যান্ডের প্রথাগত গতিশীল শরীরী-ফুটবলের বদলে পাসিং ও সৃষ্টিশীল ফুটবল খেলছে সিটি।

এর ফলও মিলছে। মাত্রই কদিন আগে চেলসিকে এফএ কাপে ২-০ গোলে হারিয়েই বার্সা-রথ থামানোর প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিল তারা। ম্যাচের আগে বার্সা কোচ জেরার্ডো মার্টিনো বলেছিলেন, খেলার ধরন দু দলেরই কাছাকাছি হওয়ার কারণে বলের দখলই গড়ে দেবে ভাগ্য। হলোও তা-ই। ৬৮ শতাংশ বলের দখল রাখল বার্সাই। বার্সার প্রাণভোমরা মাঝমাঠকে নিষ্ক্রিয় করে রাখতে পাঁচ মিডফিল্ডার খেলিয়েও লাভ হলো না পেলেগ্রিনির।

দশজনের দল হয়ে পড়ার পর খুব বেশি কিছু করারও ছিল না। অবশ্য সামির নাসরি আর লেসকটকে নামানোর পর দু দুটো দারুণ সুযোগ সিটি তৈরি করেছিল। দুবারই দারুণ সেভ করেছেন বার্সার হয়ে বিদায়ী মৌসুমে নিজের সেরা খেলাটা বের করে আনা গোলরক্ষক ভিক্টর ভালদেস।

লাল কার্ডটা নিয়ে কোনো বিতর্ক না হলেও ফাউলটা পেনাল্টি বক্সের ভেতরে নাকি একেবারে প্রান্তসীমায় হয়েছে, এ নিয়ে একটা বিতর্ক কিন্তু থাকছে। ১-০ গোলে হারলে হয়তো এ নিয়ে হা-হুতাশ করতেন, কিন্তু নেইমারের দারুণ একটা পাস থেকে গোলরক্ষক জো হার্টকে নাটমেগড (দু পায়ের ফাঁক দিয়ে বল ঠেলা) করে আলভেস দ্বিতীয় গোলটা এনে দেওয়াতে সেই সুযোগও আর পাচ্ছেন না পেলেগ্রিনি।