বৃহস্পতিবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সবজি চাষ করে সাফল্যের স্বপ্ন দেখছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কৃষকরা

brahmanbaria-agriculture-picসবজি চাষ করে সাফল্যের স্বপ্ন দেখছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চাষীরা। ধান চাষে গত কয়েক বছর ধরে লোকসান গুনতে হচ্ছে কৃষকদের। প্রতি বিঘা জমিতে লোকসান দিতে হয়েছে হাজার হাজার টাকা। ধানের বিকল্প হিসেবে সবজি চাষ করছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কৃষকরা। সংসারের আর্থিক স্বচ্ছলতার সম্ভাবনা নিয়ে চাষ করছে আলু, টমেটো, কপি, লাউ সহ বিভিন্ন সবজি। বর্তমানে দেশের খাদ্যের যোগান দিতে গিয়ে কৃষকরা যখন লোকসানের শিকার হতে হচ্ছে তখন চাষাবাদের কৌশল পরিবর্তন করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কৃষকরা। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার দেওড়া গ্রামের কৃষক জাফর আলী ভূইয়া, বেশ কয়েক বছর ধান চাষ করে তেমন লাভ না হওয়ায় চাষাবাদে প্রায় আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছিলেন তিনি। পরে একজন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শে জাফর আলী ভূইয়া সহ তিন বন্ধু মিলে গত বছর থেকে সবজি চাষ শুরু করেন। তিনি দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে সবজি চাষে মনোনিবেশ করেন। বিনিয়োগ করেন অর্থসহ অনেক শ্রম, ঘাম ও পরিচর্যা করে গত বছর তাঁরা প্রায় অর্ধলক্ষ টাকা লাভ হয়েছিল। সে এবছর ৩ বিঘা জমিতে আলু রোপণ করেছেন। এবছর আলু বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছেন চাষী জাফর আলী ভূইয়া। এবছর বিঘা প্রতি ১৫ থেকে ২০ মন হারে আলুর ফলন পাবেন বলে আশা করছেন তিনি। কৃষক জাফর আলী ভূইয়া জানান, আলু চাষে তিনি সরাইল উপজেলা কৃষি অফিস ও উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তার কাছ থেকে তিনি এ ব্যাপারে বিস্তারিত পরামর্শ ও সহযোগিতা পেয়েছে। তিনি বলেন, আলু চাষ সমপ্রসারণের ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করছে কোল্ড ষ্টোর। দীর্ঘ মেয়াদী সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা গেলে এখানকার আলু দেশের চাহিদা অনেকটা পূরণ করতে সক্ষম। কৃষি অফিস সূত্রে জানাগেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গত বছর জেলায় আলু চাষ হয়েছিল ১৮৭০ হেক্টর জমিতে। উর্তপাদন হয়েছিল ৩৬ হাজার ৯৭৮ মেট্টিক টন আলু। এবছর জেলায় আলু চাষ হয়েছে ১৯৫৫ হেক্টর জমিতে। চলতি বছরে ৩৪ হাজার ৬৫৯ মেট্টিক টন আলু উর্তপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। এবছর আলু উত্পাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে এমটায় ধারণা করছে কৃষি অফিস। সরাইল উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা অরুন চন্দ্র কর জানান, কৃষি অফিস সব সময় চাষিদের পরামর্শ দিয়ে আসছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংরক্ষনাগার না থাকায় কৃষককে আলু বিক্রি করতে হবে উত্তোলন মৌসুমেই। তবে সংরক্ষনাগার থাকলে কৃষক আরো লাভবান হতে পারত। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এর ভারপ্রাপ্ত উপ পরিচালক মোঃ বছির উদ্দিন জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাটি এবং আবহাওয়া আলু চাষের অনুকুলে। প্রতি বছরই কৃষক পাচ্ছে বাম্পার ফলন। 

এ জাতীয় আরও খবর

পোল্যান্ডকে উড়িয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা

ফের আর্জেন্টিনার গোল, ২-০ গোলে এগিয়ে আর্জেন্টিনা

পেনাল্টি মিস করলেন মেসি, প্রথমার্ধ গোলশূন্য

পরিবহন ধর্মঘট থাকায় রাতেই মাঠে চলে এসেছেন বিএনপি নেতারা

শাহজালাল বিমানবন্দর : টার্মিনাল এলাকায় যানজট, লাগেজ মাথায় নিয়ে হাঁটছেন বিদেশগামীরা

আপনার শর্ত দেওয়ার দিন শেষ, এখন শর্ত দেবে বিএনপি : গয়েশ্বর

‘আগুন সন্ত্রাসে বিএনপি নয়, আ.লীগই অভ্যস্ত’

আবাহনীকে হারিয়ে ফাইনালে শেখ রাসেল

ষোলো বছরের অপেক্ষা অবসান অস্ট্রেলিয়ার

আন্দোলন দমনে মরিয়া সরকার: ফখরুল

পাকিস্তান প্রেমীদের পাকিস্তানে পাঠিয়ে দেওয়া হবে: শেখ সেলিম

বিএনপির মঞ্চে ‘হেলমেট বাহিনী’র হামলা, পুলিশ বলছে ‘কোন্দল’