বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কেজরিওয়ালের পদত্যাগে লাভবান হবে এএপি?

52fe220c939db-Untitled-3নিজের দেওয়া প্রতিশ্রুতির প্রতি সম্মান দেখিয়েছেন ভারতের আম আদমি পার্টির (এএপি) প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল। তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, জনলোকপাল বিল পাস করাবেন। কিন্তু বাস্তবে তিনি তা দিল্লির বিধানসভায় তুলতে পারেননি। এরপর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী তিনি গতকাল শুক্রবার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর পদে ইস্তফা দেন।

ক্ষমতায় যাওয়ার মাত্র ৪৯ দিনের মধ্যে পদত্যাগ করায় কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টির রাজনৈতিক ভবিষ্যত্ কী হতে পারে, তা নিয়ে বিশ্লেষকেরা নানা কথা বলছেন।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে মন্তব্য করা হয়, এই পদত্যাগের কারণে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে লাভবান হতে পারে এপিপি। পদত্যাগের মাধ্যমে তারা সাধারণ ভোটারদের কাছে এই বার্তা পৌঁছে দিয়েছে যে, তারা যা বলে, তা করে থাকে। এতে ভোটারদের মনে এএপি সম্পর্কে একটি ইতিবাচক স্বচ্ছ ধারণার সৃষ্টি হবে। লোকসভার ভোটে এর সুফল যাবে এএপির ঘরে।

ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, এই পদত্যাগের মাধ্যমে এএপি জানিয়ে দিয়েছে, যেসব ইতিবাচক পরিবর্তনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তারা ক্ষমতায় গিয়েছিল, সেগুলোর বাস্তবায়নে তারা আন্তরিক ছিল। এ ছাড়া দুর্নীতি দমনের ক্ষেত্রে দলটি কোনো আপস করেনি। ভোটাররা তাদের এই দলগত রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের প্রতি আস্থা রাখবে বলে মনে করা হচ্ছে।

তবে লোকসভা নির্বাচনের প্রচারণার সময় কংগ্রেস-বিজেপিকে সামলানোর ক্ষেত্রে খানিকটা ঝামেলায় পড়তে হতে পারে এএপিকে। সুশাসনের ব্যাপারে এএপির প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়নের ব্যাপারে প্রশ্ন তুলতে পারে এই দুই দল। আর ভারতের রাজনীতির মাঠে দীর্ঘ মেয়াদে খেলতে হলে এই বিষয়ে ঝানু খেলোয়াড় হিসেবে লড়তে হবে এএপিকে।

জনলোকপাল বিল উত্থাপন নিয়ে গতকাল দিনভর উত্তাল ছিল দিল্লি বিধানসভা। পরে সন্ধ্যায় এএপির শীর্ষস্থানীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর ইস্তফার ঘোষণা দেন কেজরিওয়াল। এতে দিল্লির বিধানসভায় বিকল্প সরকার গঠনের সম্ভাবনা এখন প্রায় রইলই না। লোকসভার নির্বাচনের সঙ্গেই এখন দিল্লির বিধানসভার ভোট হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। তত দিন দিল্লিতে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি থাকবে।

কেজরিওয়ালের পদত্যাগের সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর কংগ্রেস থেকে বলা হচ্ছে, এএপি সরকারের ওপর থেকে তারা সমর্থন প্রত্যাহার করেনি, বরং কেজরিওয়াল সরকার চালাতে ব্যর্থ হয়ে জনলোকপাল বিলকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে সরে দাঁড়ালেন।

একই অভিমত বিজেপির। দুই দলই বলছে, তারা জনলোকপালের বিরুদ্ধে নয়। কিন্তু আইন ও প্রথার বাইরে গিয়ে তাঁরা বিল পাস করানোয় শরিক হতে পারবে না।

এই বিলকে অসাংবিধানিক আখ্যা দিয়ে গতকাল সকালেই স্পিকার এম এস ধীরকে চিঠি লেখেন দিল্লির উপরাজ্যপাল নাজিব জং। চিঠিতে তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় অনুমতি যেহেতু নেওয়া হয়নি, সেহেতু বিলটি অসাংবিধানিক। সভার শুরুতেই সেই চিঠি পাঠের জন্য বিজেপি ও কংগ্রেস একযোগে দাবি জানাতে থাকে। সভা মুলতবি করে দিয়ে স্পিকার সর্বদলীয় বৈঠক ডাকেন। আধঘণ্টা পর সভা শুরু হলে স্পিকার চিঠিটি পাঠ করেন। এএপি সেই চিঠি নিয়ে আলোচনার দাবি জানাতে থাকে। সেই গোলমালের মধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী বিলটি পেশ করেছেন বলে দাবি জানান। সভা দ্বিতীয়বারের জন্য মুলতবি করে দেওয়া হয়। আধঘণ্টা পর আবার সভা শুরু হলে বিল পেশ ও বিলসংক্রান্ত আইনি জটিলতা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়। বিল উত্থাপিত হয়েছে কি না, সে বিষয়ে স্পিকার সদস্যদের মত জানতে চান। ২৭ জন বিলের পক্ষে থাকলেও ৪২ জন আপত্তি জানানোয় বিলটি উত্থাপনই হয়নি বলে স্পিকার রুলিং দেন।

এর পরই অনিশ্চয়তায় ভরা টান টান উত্তেজনা শুরু। তীব্র গোলমালের মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী তাঁর ভাষণে স্পষ্ট করে বুঝিয়ে দেন, ইস্তফাই একমাত্র পথ। কংগ্রেস ও বিজেপিকে তিনি শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির কৃপাধন্য বলে অভিযুক্ত করেন। বলেন, আম্বানিদের কাছ থেকে এই দুই দলই টাকা পায়। সেই আম্বানির বিরুদ্ধে তাঁর সরকার মামলা করেছে বলে দুই দল জোট বেঁধে বিলের বিরোধিতা করছে। এটাই যে সরকারের শেষ দিন, তা-ও বুঝিয়ে দেন। তারপর দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর তিনি দলীয় অফিসের বারান্দা থেকে পদত্যাগের কথা ঘোষণা করেন।