রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

‘ক্রিকেট দুর্নীতির মূলোত্পাটন সম্ভব নয়’

52f9b74b0472b-Indian-cricket_Imageআইপিএলে স্পট ফিক্সিংয়ের ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালনের সুবাদে ভারতীয় ক্রিকেট অঙ্গনের হাল-হকিকত সম্পর্কে বেশ ভালোই ধারণা পেয়েছেন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি মুকুল মুডগাল। গত অক্টোবর থেকে টানা চারটি মাস ভারতের ক্রিকেট সংশ্লিষ্টদের সঙ্গেই ওঠাবসা করেছেন পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টের এই সাবেক বিচারপতি। আর এই অভিজ্ঞতা থেকে তিনি বুঝতে পারছেন যে, জুয়া-স্পট ফিক্সিং-ম্যাচ ফিক্সিং একেবারে বন্ধ করা কোনোভাবেই সম্ভব না। সাবেক তারকা খেলোয়াড়দের সহযোগিতায় এটার মাত্রা কেবল একটু কমানোই যেতে পারে।

আইপিএলের সর্বশেষ আসরে স্পট ফিক্সিং কেলেঙ্কারির ঘটনায় তোলপাড় উঠেছিল ক্রিকেট বিশ্বে। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান শ্রীনিবাসনের জামাতা গুরুনাথ মায়াপ্পনও এই দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত আছেন বলে প্রমাণিত হয়েছে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন এমন বেশ কয়েকজন ভারতীয় ক্রিকেটারও জড়িয়ে পড়েছেন দুর্নীতির সঙ্গে। আর এই বিষবৃক্ষের শিকড় এত গভীরে চলে গেছে যে সেটা পুরোপুরি উচ্ছেদ করা যাবে না বলে মনে করছেন মুডগাল। তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপের সময় তিনি বলেছেন, ‘এসব পুরোপুরি বন্ধ করা সম্ভব না। সেটা জুয়াই হোক, স্পট ফিক্সিং বা ম্যাচ ফিক্সিংই হোক। আমরা আশা করছি, আমাদের এই প্রতিবেদন এগুলো কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে একটা ভূমিকা রাখতে পারবে। আমি নিজেও একজন ক্রিকেট ভক্ত। খেলাটা আমি খুব আগ্রহ নিয়েই দেখি। “জেন্টলম্যানস গেম” বলে পরিচিত এই খেলাটির মধ্যে এত দুর্নীতির ঘটনা আমাকে খুবই আহত করে।’

ক্রিকেটের সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্য এখন সাবেক খেলোয়াড়দের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন মুডগাল। শচীন টেন্ডুলকার, রাহুল দ্রাবিড়, অনিল কুম্বলেদের মতো সাবেকরাই উদীয়মান ক্রিকেটারদের মনোভঙ্গিতে পরিবর্তন আনতে পারেন বলে মত দিয়েছেন তিনি, ‘আমি এই চার মাসে ক্রিকেটার, ক্রীড়া প্রশাসক, ক্রীড়া সাংবাদিক, সাবেক ক্রিকেটার, ক্লাব মালিক, পুলিশ, দুর্নীতিবিরোধী কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। ক্রিকেটকে দুর্নীতিমুক্ত করার জন্য কী করা যেতে পারে, সে ব্যাপারে তাঁরা তাঁদের মতামত দিয়েছেন। টেন্ডুলকার, দ্রাবিড়, কুম্বলের মতো ক্রিকেটারদের উচিত তরুণ ক্রিকেটারদের দিকনির্দেশনা দেওয়া। ধৈর্য, কঠোর পরিশ্রমের মূল্য সম্পর্কে তরুণদের শিক্ষা দেওয়া উচিত যেন তারা বিপথগামী না হয়।’— টাইমস অব ইন