শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কসবায় পুলিশ পরিচয়ে স্বর্ণ ব্যবসায়ীর বাড়িতে ডাকাতি ॥ ডাকাত-পুলিশ সংঘর্ষে আহত-৫

news-brahmanbaria-21ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায়  পুলিশ পরিচয়ে এক স্বর্ণ ব্যবসায়ীর বাড়িতে ডাকাতি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার গভীর রাতে উপজেলার কুটি ইউনিয়নের বেলতলী বনিক পাড়ার ব্যবসায়ী শিমুল চন্দ্র বনিকের বাড়ীতে। ডাকাতরা ওই বাড়ি থেকে ৫১ ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ ৫০ হাজার টাকাসহ প্রায় ২১ লাখ টাকার মালামাল লুটে নেয়। খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালালে ডাকাত দলের সাথে পুলিশের সংঘর্ষে ২ পুলিশ সহ ৫ জন আহত হয়। পুলিশ ৮ রাউন্ড গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে এবং ঘটনাস্থল থেকে ৫ ডাকাতকে গ্রেপ্তার করে। তবে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় এক ডাকাতকে ছিনিয়ে নিয়ে যায় ডাকাতরা। গ্রেপ্তারকৃত ডাকাতরা হচ্ছে বাদল-(২৫), হানিফ-(৩০), মিজান ফকির-(৩২) জালাল (২৮)- এবং কামাল মিয়া (২৫)। আহতরা হচ্ছেন  পুলিশের উপপরিদর্শক মোকাদ্দেছ, সহকারি উপপরিদর্শক উওম কুমার এবং ব্যবসায়ী শিমুল চন্দ্র বনিক ও তার বাবা ভজন চন্দ্র বনিক। এ ঘটনার পর ডিবি, জেলা পুলিশ ও সিআইডি পুলিশের সমন্বয়ে একাধিক টিম ডাকাতদের গ্রেপ্তারে মাঠে নেমেছে। এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, গত শুক্রবার গভীর রাতে উপজেলার কুটি ইউনিয়নের বেলতলী বনিক পাড়ার ব্যবসায়ী শিমুল চন্দ্র বনিকের বাড়ীতে পুলিশ পরিচয়ে ২৫/৩০ জনের একটি ডাকাত দল প্রবেশ করে। ডাকাতরা বাসার লৌহার গেইট ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে ৫১ ভরি স্বর্ণ ও নগদ ৫০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায়। ডাকাতের অস্ত্রের আঘাতে শিমুল চন্দ্র বনিক ও তার বাবা ভজন চন্দ্র বনিক আহত হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছলে ডাকাতরা পালিয়ে যায়। পরে অভিযান চালিয়ে ওই ডাকাতির সাথে জড়িত ৫ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার ভোর ৫টার দিকে পুলিশ কুটি ইউনিয়নের জাজিয়ারা গ্রামের কুখ্যাত ডাকাত ওবায়দুলকে গ্রেপ্তার করে। এসময় অন্য ডাকাতরা এক পুলিশ কর্মকর্তাকে লোহার রড দিয়ে আঘাত করে ওবায়দুলকে ছিনিয়ে নেয়। পুলিশের ছোঁড়া পাল্টা গুলিতে ওবায়দল্লাহ আহত হলে তাকে নিয়ে যায় ডাকাতরা। এসময় ডাকাত দলের সদস্যরা পুলিশকে লক্ষ্য করে এলোপাতারি ইট পাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে। পুলিশ ৮ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। ডাকাতদের হামলায় আহত পুলিশের উপপরিদর্শক মোকাদ্দেছ ও সহকারি উপপরিদর্শক উওম কুমার আহত হয়। খবর পেয়ে সকালে পুলিশ সুপার মোঃ মনিরুজ্জামান পিপিএম ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেন। এ ব্যাপারে কসবা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মিজানুর রহমান জানান, আহত পুলিশ কর্মকর্তা মোঃ মোকাদ্দেছকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার মাথায় সিটিক্সেন করা হয়েছে। তার আঘাত গুরুতর। পুলিশ সুপার মোঃ মনিরুজ্জামান পিপিএম বলেন, পুলিশি অভিযানে ডাকাতি হওয়া মোটরসাইকেল, তালা কাটার যন্ত্র ও নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত অন্য ডাকাতদেরও চিহিৃত করা গেছে। তাদের গ্রেপ্তারে ডিবি,জেলা পুলিশ ও সিআইডি পুলিশের সমন্বয়ে একাধিক টিম মাঠে নেমেছে। পালিয়ে যাওয়া ডাকাত ওবায়দুল কয়েকদিন আগেই জামিনে মুক্ত হয়ে আসে বলে জানান তিনি। 

এ জাতীয় আরও খবর