বুধবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মুমিনুলের সেঞ্চুরি, বাংলাদেশের ড্র

52f6011f256e9-Mominulড্র নাকি আরেকটি পরাজয়—এমন সমীকরণ সামনে নিয়েই চট্টগ্রাম টেস্টের পঞ্চম দিন ব্যাট করতে নেমেছিল বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চতুর্থ ইনিংসে ৪৬৭ বা শেষ দিনে ৪৫৫ রান করা মাস্ক-অক্সিজেন ছাড়া হিমালয়ের চূড়ায় ওঠার মতোই অসম্ভব। ফলে প্রত্যাশার পারদ ড্রতেই সীমাবদ্ধ ছিল বাংলাদেশের। মুশফিকুর রহিমের দল তা করতে পেরেছেও। ৮৪.৪ ওভারে বাংলাদেশ ৩ উইকেটে ২৭১ তুলতেই অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস মেনে নেন, এ ম্যাচের ভাগ্যে ড্র-ই লেখা আছে।



এই চট্টগ্রামে গত অক্টোবরে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নিজের জাত চিনিয়েছিলেন মুমিনুল হক। প্রথম ইনিংসে খেলেছিলেন ১৮১ রানের কাব্যিক এক ইনিংস। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মিরপুর টেস্টেও পেয়েছিলেন অর্ধশতক। ধারাবাহিক পারফরম্যান্সের প্রতিচ্ছবি মুমিনুল চট্টগ্রামে ছুঁলেন তৃতীয় টেস্ট শতক। সাত টেস্টে এটি মুমিনুলের তৃতীয় সেঞ্চুরি।



শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪৬৭ রান তাড়া করে জয়ের কথা ভাবননি কেউই। প্রথম টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে হারের পর দ্বিতীয় টেস্টে ড্র জয়েরই সমান। শুরুটাও ভালোই হয়েছিল বাংলাদেশের। উদ্বোধনী জুটিতে ৭১ রান যোগ করেছিলেন তামিম ইকবাল ও শামসুর রহমান। কিন্তু ভালো শুরুর রেশটা খুব বেশি দূর টেনে নিতে পারেননি দুই ওপেনার। মধ্যাহ্ন বিরতির আগে দুজনই ফিরেছেন সাজঘরে। তৃতীয় উইকেটে ৭০ রানের জুটি গড়ে আবারও লড়াই শুরু করেছিলেন ইমরুল কায়েস ও মুমিনুল। কিন্তু চা-বিরতির পরের ওভারেই এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে সাজঘরে ফেরেন ইমরুল।



সকালে যেন তামিম প্রতিজ্ঞা করেই নেমেছিলেন ব্যর্থতার অন্ধ কুঠুরি থেকে নিজেচতে বের করে আনবেন। সে মোতাবেক ভালোই ব্যাট চালাচ্ছিলেন তিনি। ধৈর্যের প্রতিমূর্তি হয়ে আঁকড়ে ছিলেন উইকেট। বাজে বলগুলিকেও দিয়ে যাচ্ছিলের উপযুক্ত জবাব। কিথুরুয়ান ভিথানাগের শিকারে পরিণত হওয়ার আগে তামিম ৩১ রানের ইনিংসটা খেলেছিলেন ১০২ বল খেলে। কয়েক ওভার পরে পেরেরার বলে প্রায় একই রকমভাবে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরেছেন শামসুর। তাঁর ব্যাট থেকে এসেছে ৪৫ রান।



তামিম-শামসুর খুব অল্প সময়ের ব্যবধানে ফিরে গেলে শঙ্কা ঘনীভূত হয় বাংলাদেশ শিবিরে। তবে মুমিনুল ও প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান ইমরুল কায়েস সেই শঙ্কা মোটামুটি দূর করেন ৭০ রানের এক জুটি গড়ে। সবচেয়ে বড় কথা এই জুটি মধ্যাহ্ন বিরতির পরের সেশনটি পার করে দেন লঙ্কান বোলারদের নিজেদের ওপর চেপে বসার সুযোগটা না দিয়েই। ইমরুল ব্যক্তিগত ২৫ রানে এলবির শিকার হন দিলরুয়ান পেরেরার বলে।



এরপরই উইকেটে দাঁড়িয়ে যান মুমিনুল ও সাকিব আল হাসান। এ দুজনের চতুর্থ উইকেট জুটিতে আসে অপরাজিত ১২০ রান। ৮৪.৪ ওভারে মমিনুল শতক ছোঁয়া মাত্র ড্র মেনে নেন ম্যাথুস । ফলে দিনের ১৪ ওভার খেলা বাকি থাকতেই শেষ চট্টগ্রাম টেস্ট। মুমিনুল অপরাজিত থাকেন ১০০ রানে ও আর সাকিব ৪৩-এ।  চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র হলেও বাংলাদেশ সিরিজ হেরেছে ১-০ ব্যবধানে। মহাকাব্যিক দুটি ইনিংস খেলায় ম্যাচ সেরা কুমার সাঙ্গাকারা। সিরিজ সেরাও তিনি।

এ জাতীয় আরও খবর

বিএনপি নেতা টুকুর বক্তব্য শিষ্টাচারবহির্ভূত ও কুরুচিপূর্ণ: জামায়াত

মাথা দিয়ে বাংলাদেশকে উড়িয়ে দিলেন অঞ্জন

ক্যাম্পাসে ফিরেছেন রিভা-রাজিয়া

পরীক্ষার সিরিজে প্রত্যাশিত জয় টাইগারদের

প্রেমিকাকে পেতে স্ত্রীকে বিষ খাইয়ে হত্যা

রাজনৈতিক সহিংসতা ও নির্বাচনী অস্থিতিশীলতা বিনিয়োগকারীদের ভীত করে: পিটার হাস

গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যায় ৯ জনের যাবজ্জীবন

নিহত রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহর ১৪ স্বজন কানাডায়

টুকু জনগণের ভাষায় কথা বলতে পারেন না: জামায়াত

‘সাবধানে যাবি, তাড়াতাড়ি আসবি’: মেয়ের সঙ্গে বাবার শেষ কথা

প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা বার্তা লিখবে দেড় কোটি শিক্ষার্থী

মানুষের জন্য চিকিৎসা নেই, বেকারদের জন্য কাজের নিশ্চয়তা নেই : জিএম কাদের