মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

নাসিরনগর মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে উন্নয়নের ছোঁয়া

ministerne-300x200নাসিরনগরের প্রথম মন্ত্রীর স্মৃতি স্বরুপ। উপজেলা বাসীর ভাগ্যংউন্নয়নে কি কি পদক্ষেপ নেওয়া যায় ।এ বিষয়ে পরিদর্শনে নেমেছে মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের পরিচালক উপ পরিচালকরা । ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদরপ থেকে প্রায় ৩০ কি:মি: দক্ষিণে অবস্থিত নাসিরনগর উপজেলা। যার আয়তন ৩০৩ বর্গ কি:মি। ১৪টি ইউনিয়নের ১৩০টি গ্রামের লোকসংখ্যা প্রায় ৩,০৯,০১১জন। এক সময়ের অবহেলিত উপজেলা হিসেবে পরিচিতি থাকলেও এখন ধাপে ধাপে উন্নয়নের ছোয়া লেগেছে এ উপজেলায়। নাসিরনগরে পাঁচ বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য এড: ছায়দেুল হক প্রথম মন্ত্রী হওয়ায় উন্নয়নরে এ ছোয়া লেগেছে মৎস্য ও প্রাণসিম্পদ। ইতমিধ্যে প্রাণসিম্পদ অধদিপ্তররে নাসরিনগররে শূন্য পদগুলোতে নিয়োগ সম্পন্ন হয়েছে। ভাঙ্গাচুড়া যন্ত্রপাতি, ফ্রিজ নতুন করে আনা হয়েছে। অনেক অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে চলেছে জোর তৎপরতা। মন্ত্রীর স্মৃতিসরূপ নাসিরনগর মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য কি করা যায় তা নিয়ে ভাবছে দুইটি মন্ত্রণালয়। শুক্রবার ও রবিবার থেকে ওই নিয়ে কাজ করছে দুই মন্ত্রণালয়ের পরিচালক, উপ-পরিচালকরা। তারা সরজমিন নাসিরনগর পরিদর্শনে আসেন। ১৪টি ইউনিয়ন ঘুরে বিভিন্ন সমস্যা স্ব-চোখে দেখেন। শনিবার রাতে স্থানীয় ডাকবাংলোতে কথা হয় পশু সম্পদ অধিদপ্তরের পরিচালক ডাঃ এম এইচ ছিদ্দিক,ইঞ্জিনিয়ায় রফিকুল ইসলাম, ভেটেরিনারী সার্জন ডাঃ আব্দুল্লাহ আল মারুফের সাথে। উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন ঘুরে নাসিরনগর বাসীর ভাগ্য উন্নয়নের জন্য কি পরিকল্পনা করছে জানতে চাইলে তারা জানান একটি ডাক-হ্যাচারী (কৃত্রিম প্রজনন) খামার, যেখান থেকে প্রতিমাসে ৬০ হাজার হাঁসের বাচ্চা ফুটানো হবে। লাইভ ষ্টক ডিপ্লোমা কলেজ (ট্রেনিং ইনষ্টিটিউট) স্থাপন। গরু মোটাতাজা, হাঁস-মুরগী, ছাগল পালনের উপর অতিদরিদ্রদের মাঝে সুদ মুক্ত ক্ষুদ্র ঋণ বিতরণের চিন্তা করছেন তারা। তবে তারা জানান মন্ত্রী মহোদয়ের কাছে এই ৩টি প্রস্তাব দেওয়া হবে, সিদ্ধান্ত নিবেন তিনি। উপজেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর সূত্র জানায় নাসিরনগরে ১,২৪,৮৮৯ টি গরু, ১৭৯৪টি মহিষ, ২৮৭৮০টি ছাগল, ৪২৪৮ ভেড়া, ৭৫৮২৩৫টি মোরগ-মুরগী, ১,৭৫৩৯২টি হাঁস, ৩২০৮০টি কবুতর রয়েছে। অপর দিকে রবিবার মৎস্যসম্পদ পরিদর্শনে আসেন পরিচালক ফরিদা বেগম, সহকারী পরিচালক রফিকুল ইসলামসহ বেশ কয়েকজন। তারা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিদর্শন করেন। নাসিরনগর বাসীর ভাগ্য উন্নয়নে কি পদক্ষেপ নিবেন জানতে চাইলে পরিচালক ফরিদা বেগম,সহকারী পরিচালক রফিকুল ইসলাম, ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা ছায়েদুর রহমান জানান পরিত্যাক্ত মিনি হ্যাচারী ও পুকুর গুলো পূন সংস্কার করা হবে। তাছাড়াও বিল হোরল ও বিল বাগ লঙ্গনে মাছের অভয় আশ্রম তৈরির জন্য মন্ত্রী মহোদয়ের কাছে প্রস্তাব পেশ করবেন। উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায় অত্র উপজেলায় ৩০৭০টি, পুকুর রয়েছে, সরকারি পুকুরের সংখ্যা ২৬৯টি যার আয়তন ৯৭ হেক্টর, বেসরকারি পুকুরের সংখ্যা ২৮০১টি, যার আয়তন ১১৭৭ হেক্টর, ১৯টি জলমহালের আয়তন ১৬৯১ হেক্টর, ৫টি নদীর আয়তন ৮১০ হেক্টর, ১৮টি খালের আয়তন ১০১ হেক্টর, ২টি প্লাবন ভূমির আয়তন ১৫৬৭০ হেক্টর, মৎস্যজীবির সংখ্যা প্রায় ৮০০০জন এবং মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির সংখ্যা ৭৭টি। ১টি মিনি হ্যাচারী রয়েছে, বেসরকারি নেই। ১২টি নার্সারীর আয়তন ৩২১৭ হেক্টর,মাছ উৎপাদন ৪৬০০ মে.টন। উপজেলা ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ ছায়েদুর রহমান জানান, অধিদপ্তর কর্তৃক পরিচালিত চলমান প্রকল্প গুলোর মধ্যে রয়েছে, জেলেদের নিবন্ধন ও পরিচয় পত্র প্রদান। ইউনিয়ন পর্যায়ে মৎস্যচাষ প্রযুক্তি সেবা সম্প্রসারণ প্রকল্প। হাওড় অঞ্চলে মৎস্যচাষ ব্যবস্থাপনা প্রকল্প,চিহ্নিত ও  অরক্ষিত জলাশয়ে দেশীয় প্রজাতির ছোট মাছ সংরক্ষণ প্রকল্প। বন্যা নিয়ন্ত্রন ও সেচ প্রকল্প। মানসম্মত মৎস্য বীজ ও পোনা উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে মৎস্য স্থাপনা পূর্নবাসন ও উন্নয়ন প্রকল্প। মৎস্য সংরক্ষণে ফরমালিনের ব্যবহার নিয়ন্ত্রন ও গণসচেতনা সৃষ্টি প্রকল্প। পরিচালক বৃন্দের প্রস্তাবিত প্রকল্প গুলো বাস্তবায়ন হলে অবহেলিত নাসিরনগর বাসীর ভাগ্য উন্নয়নে ব্যাপক সফলতা আসতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট  মন্ত্রনালয়ের পরিচালকবৃন্দ।

এ জাতীয় আরও খবর