বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার শুরু প্রথম দফার ইজতেমা, প্রস্তুতি সম্পন্ন

ajtama শিল্প শহর টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে ৪৯তম বিশ্ব ইজতেমার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।  ২৪ জানুয়ারি শুক্রবার ফজরের নামাজের পর থেকে আমবয়ানের মাধ্যমে শুরু হবে ইজতেমার প্রথম ধাপ। ২৬ জানুয়ারি রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে প্রথম ধাপের সমাপ্তি হবে। আবার, ৩১ জানুয়ারি দ্বিতীয় ধাপ শুরু হবে এবং ২ ফেব্রুয়ারি আখেরি দোয়া অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সমাপ্তি ঘটবে।

পবিত্র মক্কা শরিফে হজব্রত পালনের পর বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর দ্বিতীয় বৃহত্তম মিলন মেলা এই বিশ্ব ইজতেমা। ১৯৬৭ সালে টঙ্গীর পাগাড় গ্রামের জাকারিয়া টেক্সটাইল ও জুট ইন্ডাস্ট্রিজে অনুষ্ঠিত হয় প্রথম বিশ্ব ইজতেমা। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টঙ্গীর বিভিন্ন মৌজায় বিশ্ব ইজতেমার জন্য একশ’ ৬০ একর ভূমি বরাদ্দ দান করেন এবং এর উন্নয়নের জন্য কয়েক কোটি টাকা ব্যয় বরাদ্দ দেন।

বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথম বার ক্ষমতা এসেই ইজতেমা স্থলের ব্যাপক উন্নয়ন সাধন করেন। ডিজিটাল বাংলাদেশের আধুনিক রূপকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তৃতীয় বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হয়ে তার বিশেষ নির্দেশে ইজতেমা স্থলের ব্যাপক উন্নয়নে সাধন করা হয়। রাস্তা-ঘাট নির্মান, অসমতল ভূমি সমতল করণ, সাড়ে চার হাজার পাকা পায়খানা, পাকা গোসলখানা স্থাপন, ওযুখানা, বিদেশী মুসল্লিদের জন্য প্রয়ঃপ্রণালী, রান্না-বান্না, থাকার জন্য স্থায়ী পাকা টিনসেড ঘর নির্মাণ ইত্যাদির আধুনিক ব্যবস্থা, অতিরিক্ত ১.৩০ কি. মি. ইজতেমা সড়ক নির্মাণ, ড্রেন-কালভার্ট নির্মাণে ও অন্যান্য উন্নয়নের জন্য পর্যাপ্ত টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

ইতিমধ্যেই সরকারের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এমপি, যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, সাবেক প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট রহমত আলী এমপি, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ জাহিদ আহসান রাসেল, (সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালনরত) ইজতেমার সার্বিক উন্নয়নে তদারকি করছেন।
এদিকে সোমবার বিকালে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু ইজতেমাস্থল পরিদর্শন করেন।

এছাড়াও, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক মো. নূরুল ইসলাম, পুলিশ সুপার আব্দুল বাতেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আবুল হোসেন, টঙ্গী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের টঙ্গী অঞ্চলের কর্মকর্তা ও কাউন্সিলররা দায়িত্ব পালন করছেন।

এবছর প্রথম ধাপে ৪০টি খিত্তায় মুসল্লিরা অবস্থান গ্রহণ করবেন। খিত্তাগুলো হচ্ছে গাজীপুর-১, ২, ঢাকা-৩ হালকা নং-২০১-২১৬, ২৩৩, ঢাকা-৪ হালকা নং-২১৭-২৩০ (ধামরাই থানা), ঢাকা-৫ হালকা নং-১০১-১০৮, ঢাকা-৬ হালকা নং-১০৯-১১৮, ঢাকা-৭ (ক) হালকা নং-১১৯-১২৭, ঢাকা-৭ (খ) হালকা নং-১২৮-১৩২, ঢাকা-৮ হালকা নং-১৩৪-১৪৩, ঢাকা-৯ রাস্তা নং-৬ হালকা নং ১৪৪-১৫১, ঢাকা-১০ হালকা নং-৪০১-৪১১, ঢাকা-১১ হালকা নং-৫০১-৫২২, ঢাকা-১২ দোহার ও নবাবগঞ্জ থানা, ১৩-সিরাজগঞ্জ, ১৪-ফরিদপুর, ১৫-নরসিংদী, ১৬ (ক)-কিশোরগঞ্জ, ১৬ (খ)-কিশোরগঞ্জ, ১৭ রাজবাড়ী, ১৮ শরিয়তপুর, ১৯-নাটোর, ২০-শেরপুর, ২১-দিনাজপুর, ২২-হবিগঞ্জ, ২৩-রংপুর, ২৪-লালমনির হাট, ২৫-গাইবান্ধা, ২৬- জয়পুর হাট, ২৭-রাজশাহী, ২৮-সিলেট, ২৯-চাঁদপুর, ৩০-ফেনী, ৩১-চট্টগ্রাম, ৩২-বান্দরবান, খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি-৩৩ বাগেরহাট, ৩৪-কুষ্টিয়া, ৩৫-নড়াইল, ৩৬-চুয়াডাঙ্গা, ৩৭-যশোহর, ৩৮-ভোলা, ৩৯-বরগুনা ও ৪০-ঝালকাঠি।

আগত মসুল্লিদের সার্বিক নিরাপত্তায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ২০ হাজারের অধিক সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। ইতোমধ্যে পুলিশ ও র্যা বের জন্য ১৪টি পর্যবেক্ষণ টাওয়ার তৈরি করা হয়েছে। স্থাপিত হয়েছে জেলা প্রশাসন, পুলিশ ও র্যা বর জন্য পৃথক কন্টোল রুম। র্যা বের হেলিকপ্টার আকাশ পথে টহলে থাকবে।

পুলিশ ও র্যা বের জন্য শতাধিক অস্থায়ী শৌচাগার এবং পানির সুব্যবস্থা, নিরাপত্তা দায়িত্বে নিয়োজিত দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত পুলিশ সদস্যদের অবস্থানস্থলে বিদ্যুতের ব্যবস্থা, ইজতেমা মাঠের উত্তর পাশে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান, বিনামূল্যে ঔষধ সরবরাহের জন্য ৪৪টি প্রতিষ্ঠানের স্টল নির্মিত হয়েছে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের মাধ্যমে তুরাগ নদীর উপর পল্টুন ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। মুসল্লিদের স্বাস্থ্য সেবা দিতে সরকারি-বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রাখার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে মুসল্লিদের সেবায় ২১টি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। চট্টগ্রাম-ঢাকা, রাজশাহী-খুলনা, ময়মনসিংহ রুটের সকল আন্তঃনগর ট্রেন টঙ্গী রেল জংশনে যাত্রা বিরতি করবে। বিআরটিসি ইজতেমায় প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে মুসল্লিদের জন্য গুলিস্তান/ফুলবাড়িয়া, কমলাপুর/মতিঝিল, ফার্মগেইট, গাবতলী, মহাখালী, আজিমপুর থেকে ইজতেমাস্থলে আসার জন্য বিশেষ সেবা চালু করেছে এবং আরিচা পাটুরিয়াঘাট, মিরপুর, নরসিংদী, নারায়ণগঞ্জ, কুমিল্লা, ভৈরব, চৌমুহনী, বি-বাড়ীয়া, কিশোরগঞ্জ, বিরিশিরি, নেত্রকোণা, সোনাপুর, চরজব্বার, লক্ষ্মীপুর, কলমাকান্দা, মদন, মনোহরদী, মীরকাদিম, মোহনগঞ্জ, আখাউড়া, ময়মনসিংহ, সায়দাবাদ, গুলিস্থান, গাবতলী, কমলাপুর, গাজীপুর (জয়দেবপুর) সহ বিভিন্ন স্থান থেকে ৩০০টি বাস ইজতেমা সেবায় নিয়োজিত থেকে ঢাকা পর্যন্ত চলাচল করবে।

এছাড়া, ইজতেমা চলাকালীন সময়ে দ্বিতল বাসগুলো কাকরাইল মসজিদ সংলগ্ন পয়েন্ট থেকে মুসল্লীদের ইজতেমায় পৌঁছানোর কাজ করবে। জোয়ারসাহারা বাস ডিপো থেকে ১টি বাস বিদেশী মুসল্লীদের জন্য সংরক্ষিত স্টিকারে বিমানবন্দর হতে ইজতেমাস্থলে চলাচল করবে। সুষ্ঠুভাবে চলাচল নিশ্চিত করতে তারা একটি কন্ট্রোল রুম চালু করেছে। যার ফোন নং-৮৯১১৭৭৮ মোবাইল: ০১৭১২৫২৮৭৬৬।

ইজতেমা সংক্রান্ত খবরা-খবরের জন্য টঙ্গী প্রেসক্লাবের উদ্যোগে একটি মিডিয়া সেন্টার খোলা হয়েছে। ইজতেমা মাঠের দুই বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ৬০টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে।

মুসল্লিদের চলাচলে ট্রাফিক ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। নাশকতা রোধে পুলিশ, র্যা ব ও গোয়েন্দা বাহিনীর একাধিক টিম মুসল্লিদের সাথে মাঠের ভিতরে সাদা পোশাকে থাকবে। গাজীপুর তথ্য অধিদফতরের পক্ষে জেলা প্রশাসন বেশ কিছু মাইক লাগানোর ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। সূত্র: বাসস

এ জাতীয় আরও খবর

যাত্রী বেশি হলে বিমানবন্দরে ল্যাব বাড়ানো হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬১

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রীর কাছে ক্ষমা চাইল সেই ব্যাংক

মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সে বোমা আতঙ্ক, যেভাবে চলে অভিযান

মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে এবার নওগাঁর আদালতে মামলা

আমিনবাজারে ৬ ছাত্র হত্যা : ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ১৯ জনের যাবজ্জীবন

ওমিক্রন আতঙ্কে ভারত : ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকায় আবারও বাংলাদেশ

সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে, লঘুচাপটি শক্তিশালী হচ্ছে

নিয়ম ভেঙে তুলে নেওয়া হয় ৩৬৮৭ কোটি টাকা

এইচএসসিতে বসেছে প্রায় ১৪ লাখ শিক্ষার্থী

৬ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা : ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

কথা দিয়ে কথা রাখুন : কাদের