শনিবার, ২০শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার বিশ্ব ইজতেমা, প্রস্তুতি প্রায় চূড়াšত্ম

aztamaটঙ্গীর তুরাগতীরে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্যায়ের প্রস্তুতি প্রায় চূড়াšত্ম বলে জানা গেছে। আগামী ২৪ জানুয়ারি  ইজতেমা শুরু হচ্ছে। আয়োজক কমিটির সদস্য মো. গিয়াস উদ্দিন জানিয়েছেন, ইজতেমা শুরু হওয়ার দুই দিন আগে প্রস্তুতি কাজ শেষ হওয়ার টার্গেট নিয়ে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। ইতোমধ্যেই ৮০-৮৫ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। যা বাকি আছে তা নির্ধারিত সময়ে শেষ হবে বলে আশা করিছি। বিভিন্ন জেলার জন্য আলাদা আলাদা ব্যবস্থা করা হয়েছে।

শুরুর দিন থেকেই মুসল্লিরা যাতে ইজতেমা ময়দানে নির্ধারিত খিত্তায় অবস্থান নিতে পারেন, সে ব্যবস্থাও দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে।

ইজতেমা উপলক্ষে ময়দানে হাজার হাজার স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসার ছাত্র, শিক্ষক ও ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করে যাচ্ছেন। ১৬০ একর আয়তনের বিশাল ময়দানে চটের শামিয়ানা টানাতে তারা দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন।

আয়োজক কমিটির সদস্য মাহফুজুল ইসলাম জানান, ৩২টি জেলার মুসল্লিরা প্রথম পর্বের ইজতেমায় আসবেন। তারা অবস্থান করবেন ৪০টি খিত্তায়। খিত্তা নম্বরসহ জেলাগুলো হলোথ গাজীপুর (১-২), ঢাকা (৩-১২), সিরাজগঞ্জ (১৩), ফরিদপুর (১৪), নরসিংদী (১৫), কিশোরগঞ্জ (১৬), রাজবাড়ী (১৭),

শরীয়তপুর (১৮), নাটোর (১৯), শেরপুর (২০), দিনাজপুর (২১), হবিগঞ্জ (২২), রংপুর (২৩), লালমনিরহাট (২৪), গাইবান্ধা (২৫), জয়পুরহাট (২৬), রাজশাহী (২৭), সিলেট (২৮), চাঁদপুর (২৯), ফেনী (৩০), চট্টগ্রাম (৩১),

বান্দরবান, খাগড়াছড়ি ও রাঙামাটি (৩২), বাগেরহাট (৩৩), কুষ্টিয়া (৩৪), নড়াইল (৩৫), চুয়াডাঙ্গা (৩৬), যশোর (৩৭), ভোলা (৩৮), বরগুনা (৩৯) ও ঝালকাঠি (৪০)।

বিদেশি মেহমানদের জন্য আলাদা ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ইজতেমা ময়দানের উত্তর-পশ্চিম কোণে বিদেশি অতিথিদের জন্য লোহার পাইপ ও টিন দিয়ে বিশেষ তাঁবু তৈরি করা হচ্ছে। তাঁবুগুলো উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে আরও আরামপ্রদ করে তোলা হবে বলে খাদেমরা জানিয়েছেন।

আগের দোতলা পাকা টয়লেটগুলো তিন তলা করা হচ্ছে। নতুন করে আরও তিনটি তিন তলা টয়লেট তৈরির কাজ চলছে। মুসল্লিদের অবাধ চলাচলের জন্য তুরাগ নদে সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের সদস্যদের ৮টি পন্টুন সেতু তৈরির কাজ শেষ পর্যায়ে

মুসল্লিদের যাতায়াতের জন্য থাকবে বিশেষ ট্রেন ও বি আরটিসির বিশেষ বাস সার্ভিস। গাজীপুর জেলা পুলিশ সুপার আবদুুল বাতেন বলেন, সেনাবাহিনী, র‌্যাব, পুলিশ, আনসার ও সাদা পোশাকে কয়েক হাজার আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকবেন। ঢাকাটাইমস