বৃহস্পতিবার, ২রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মন্ত্রিসভা নিয়ে নানা হিসাব-নিকাশ

Parlamentনতুন মন্ত্রিসভা গঠনে নানা হিসাব-নিকাশ করছেন আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকেরা। বিশেষ করে জাতীয় পার্টিকে (জাপা) মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করা নিয়ে জটিলতা কাটাতে পারছেন না তাঁরা। একই সঙ্গে মন্ত্রিসভায় স্থান পাওয়ার ব্যাপারে দলীয় নেতাদেরও চাপ সইতে হচ্ছে।
আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে কথা বলে জানা যায়, নতুন মন্ত্রিসভায় কারা থাকছেন, সে তালিকা গতকাল পর্যন্ত চূড়ান্ত হয়নি। জাতীয় পার্টির বিষয়টি ছাড়াও নিজ দলের কোন কোন সদস্যকে নেওয়া হবে, এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিচার-বিশ্লেষণ করছেন। আজ শনিবার রাত অথবা রোববার সকালের আগে নতুন মন্ত্রিসভার তালিকা চূড়ান্ত করা সম্ভব না-ও হতে পারে বলে দলীয় নেতারা জানিয়েছেন। ফলে মন্ত্রিত্বপ্রত্যাশীদের অনেকে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় আছেন। কেউ কেউ নানাভাবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তদবিরও করাচ্ছেন।
তবে সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে জানা গেছে, অর্থ, আইন, কৃষি ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পুরোনোরাই বহাল থাকতে পারেন। প্রধানমন্ত্রী এবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব কোনো দক্ষ রাজনীতিককে দিতে চান। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিষয়েও তিনি নানা চিন্তাভাবনা করছেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জ্যেষ্ঠ কোনো নেতাকে দেওয়া হতে পারে।
এ ছাড়া আবুল মাল আবদুল মুহিত, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, মতিয়া চৌধুরী, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, ওবায়দুল কাদের, নুরুল ইসলাম নাহিদ, শফিক আহমেদ, খন্দকার মোশাররফ হোসেন, জাতীয় পার্টির (জেপি) আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন, জাসদের হাসানুল হক ইনু নতুন মন্ত্রিসভায় থাকছেন বলে আভাস পাওয়া গেছে।
আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে যাচ্ছেন। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ শপথের সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে।
দলীয়ভাবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পুরোনো মন্ত্রিসভার প্রায় সবাই নতুন মন্ত্রিসভায় স্থান পাওয়ার প্রত্যাশা করছেন। তাঁরা বিভিন্নভাবে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করছেন। নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভা গঠনের সময় মন্ত্রিত্ব গেছে, এমন অনেকে এখন পর্যন্ত সরকারি বাড়ি ছাড়েননি।
আওয়ামী লীগের কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা জানান, দুর্নীতিসহ নানা কারণে বিতর্কিত মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের নতুন মন্ত্রিসভায় না নেওয়ার জন্য দলে এবং দলের বাইরে থেকে প্রচণ্ড চাপ আছে। বিশেষ করে যেসব মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও সাংসদ গত পাঁচ বছরে অস্বাভাবিক উপায়ে অঢেল ধন-সম্পদের মালিক হয়েছেন, তাঁদের নতুন মন্ত্রিসভার বাইরে রাখার জন্য সরকারের শুভাকাঙ্ক্ষীরাও পরামর্শ দিয়েছেন। একইভাবে নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে ১৭ জন বিশিষ্ট নাগরিক গতকাল এক বিবৃতিতে বিতর্কিতদের মন্ত্রিসভায় না নেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর একজন সদস্য প্রথম আলোকে বলেন, সৎ ও দক্ষ লোকদের নিয়ে মন্ত্রিসভা গঠন করে সুশাসন দেওয়া সম্ভব হলে জনগণ অতীত ভুল-ত্রুটি ভুলে যেতে পারে। কিন্তু ক্ষমতার আগের পাঁচ বছরে যাঁরা ধন-সম্পদে ফুলে-ফেঁপে উঠেছেন, তাঁদের মন্ত্রিসভায় নেওয়া হলে আওয়ামী লীগকে বড় ধরনের বিতর্কের মধ্যে পড়তে হবে।
এদিকে আসনসংখ্যার দিক থেকে দশম সংসদের দ্বিতীয় বৃহত্তম দল জাতীয় পার্টির (জাপা) পক্ষ থেকে মন্ত্রিসভায় থাকার জন্য সরকারের উচ্চপর্যায়ে চাপ অব্যাহত আছে। গতকালও জাপার নেতারা প্রধানমন্ত্রীর কাছে মন্ত্রিসভায় থাকার ব্যাপারে বার্তা পাঠিয়েছেন। জাপাকে সরকারে না নেওয়ার ব্যাপারে আওয়ামী লীগের মধ্যেও একটা অংশ সক্রিয় আছে। তাদের অভিমত, জাপা সরকারে গেলে কার্যত বিরোধী দল থাকবে না। সংসদে বিরোধী দল ছাড়া গণতন্ত্র হয় না।
তবে আওয়ামী লীগের অনেকেই মনে করেন, এইচ এম এরশাদ শেষ মুহূর্তে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেওয়ার পর রওশন এরশাদের নেতৃত্বে একটি অংশ জাপাকে নির্বাচনে নেওয়ার ব্যাপারে বড় ভূমিকা পালন করেছে। তাদের সহায়তায় জাপাকে নির্বাচনে না নেওয়া গেলে নির্বাচন করা অসম্ভব হতো। সুতরাং তাদের মন্ত্রিসভায় নেওয়া দরকার।
সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে কথা বলে জানা যায়, জাপাকে সরকারে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টি এখনো আলোচনার পর্যায়ে রয়েছে।