বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রাম বন্দরে ৩০ হাজার কন্টেইনারের জট

chittagoag portদেশের রাজনৈতিক অস্থিরতায় আমদানি রফতানির প্রধান কেন্দ্র চট্টগ্রাম বন্দরে চরম স্থবিরতা নেমে এসেছে। হরতাল-অবরোধে গত এক মাসের মধ্যে ২৩ দিনের বেশি সময় চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য পরিবহন ব্যাহত হয়েছে।

বর্তমানে চট্টগ্রাম বন্দরে প্রায় ৩০ হাজার টিইইউএস কন্টেইনার আটকা পড়েছে বলে বন্দর সূত্রে জানা গেছে। বন্দর থেকে কন্টেইনার খালাস স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় ব্যাহত হওয়ায় আটকাপড়া কন্টেইনারের সংখ্যা দ্রুত বাড়ছে।

দেশের আমদানি-রফতানি বাণিজ্যের ৭০ ভাগই চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরের ওপর নির্ভরশীল। বিরোধী দলের হরতাল-অবরোধে যানবাহন সংকটে এখান থেকে দেশের অভ্যন্তরে পণ্য পরিবহন ব্যাহত হওয়ার পাশাপাশি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে পণ্য রফতানিও।

বন্দর ছাড়াও ১৬টি বেসরকারি আইসিডিতে (ইনল্যান্ড কন্টেইনার ডিপো)  আমদানি এবং রফতানি পণ্য বোঝাই কয়েক হাজার টিইইউএস কন্টেইনার আটকা পড়ে আছে। বন্দর এবং আইসিডিতে আটকাপড়া কন্টেইনারে দশ হাজার কোটিরও বেশি টাকার পণ্য সামগ্রী রয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। ঘাটে ঘাটে কন্টেইনার আটকা পড়ায় তৈরি পোশাকসহ বিভিন্ন রফতানিমুখী শিল্পের অর্ডার বাতিল হওয়ার আশংকা করা হচ্ছে। সময়মতো কাঁচামাল না পাওয়ায় বেকায়দায় পড়েছে অনেক শিল্প প্রতিষ্ঠান।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চট্টগ্রাম বন্দরের ইয়ার্ডে সর্বমোট ৩০ হাজার ৮৮৬ টিইইউএস কন্টেইনার রাখার জায়গা রয়েছে। বন্দরে স্বাভাবিক সময়ে ১২ থেকে ১৩ হাজার কন্টেইনার থাকে। বিশেষ করে বেসরকারি আইসিডি কার্যক্রম সম্প্রসারিত হওয়ার পর চট্টগ্রাম বন্দরে কন্টেইনার খুব বেশি আটকা থাকছে না। কিন্তু  হরতালে  জাহাজ থেকে কন্টেইনার খালাস করা হলেও সেই কন্টেইনার হরতালের কারণে গন্তব্যে নিয়ে যাওয়া কঠিন হয়ে উঠছে।

বন্দর সূত্র জানায়, হরতালের সময় বন্দরের ভিতরে সব ধরনের কাজকর্ম চলে। জাহাজও আসা যাওয়া করে। জাহাজে পণ্য বোঝাই কিংবা জাহাজ থেকে পণ্য খালাস সবই চলে। কেবলমাত্র বন্দরের ইয়ার্ড থেকে পণ্য ডেলিভারি ব্যাহত হয়। আবার দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে রফতানি পণ্য বন্দরে প্রবেশ করতে পারে না। বেসরকারি আইসিডিগুলো থেকেও কন্টেইনার আসতে পারে না বন্দরে। আর এতে করে বন্দরের ভিতরকার কর্মকান্ড চালু থাকলেও আমদানি রফতানিকারকদের সংকটে পড়তে হয়।  

চট্টগ্রাম বন্দরের সচিব সৈয়দ ফরহাদ উদ্দিন আহমেদ জানিয়েছেন, স্বাভাবিক সময়ে যেখানে প্রতিদিন ১ হাজার ৮শ’ থেকে দুই হাজার কন্টেইনার পণ্য ডেলিভারি হতো, সেখানে হরতাল অবরোধে ডেলিভারি হচ্ছে মাত্র ৭-৮শ’ কন্টেইনার।

তবে তিনি জানান, বন্দরের ভেতরের কাজকর্ম স্বাভাবিক রয়েছে। জাহাজ থেকে পণ্য খালাস হচ্ছে আগের মতোই। কোন জাহাজ জট নেই। রাস্তায় বাধাবিঘ্ন ডিঙিয়ে যেসব রফতানি পণ্য বন্দরে আসতে পারছে, তা জাহাজীকরণ হচ্ছে না।

তিনি বলেন, হরতাল অবরোধের মাঝখানে যে দু’একদিন সময় পাওয়া যাচ্ছে, সেই সময়ে ব্যবসায়ীরা একসঙ্গে অনেক বেশি পণ্য ডেলিভারি নিচ্ছেন। এ কারণে এখনো বন্দরের ভেতরে কন্টেইনার জটের সৃষ্টি হয়নি।

এদিকে বন্দর থেকে পণ্য ডেলিভারি শুন্যের কোঠায় নেমে এসেছে মন্তব্য করে চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেছেন, পরিবহন সংকট অর্থাৎ ৪-৫ গুণ অতিরিক্ত ভাড়া দিয়েও কনসাইনীরা চট্টগ্রাম বন্দর থেকে আমদানিকৃত পণ্য ডেলিভারি নিতে পারছেন না। মহাসড়কে বিরামহীন প্রতিবন্ধকতা বিশেষ করে পরিবহন যানবাহনে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের প্রেক্ষিতে কোন পরিবহন সংস্থাই পণ্য পরিবহনে আগ্রহী হচ্ছে না। এছাড়া উপর্যুপরি নাশকতার কারণে বাংলাদেশ রেলওয়ের মাধ্যমেও খালাসকৃত পণ্য পরিবহন সম্ভব হচ্ছে না। ফলে বন্দর অভ্যন্তরে জাহাজ থেকে খালাসকৃত পণ্য ডেলিভারি মারাত্মকভাবে স্থবির হয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, বন্দরে খালাসকৃত পণ্য ডেলিভারি নেয়ার ক্ষেত্রে ৪ দিন ফ্রি টাইম পরবর্তীতে ডেমারেজ চার্জ আরোপের বিধান রয়েছে। কিন্তু অচলাবস্থার কারণে পণ্য ডেলিভারি কার্যক্রম প্রায় শুন্যের কোঠায়। এ পরিস্থিতিতে ফ্রি টাইমের পরে ডেমারেজ চার্জ আরোপ করা হলে তা কনসাইনীদের জন্য মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে উঠবে।

চেম্বার সভাপতি আরো বলেন, ব্যাংক ঋণের সুদ বাড়ছে অথচ পণ্য ডেলিভারি স্থবির। নিত্যপণ্য ও শিল্পের কাঁচামাল নিয়ে কনসাইনীরা মারাত্মক আর্থিক দেউলিয়াত্বসহ দেশের সামগ্রিক ব্যবসা-বাণিজ্য, আমদানি-রফতানি, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও লাখ লাখ ভোক্তা সাধারণ অবর্ণনীয় বিড়ম্বনার সম্মুখীন।

তিনি রাজনৈতিক অচলাবস্থা, হরতাল, অবরোধ, অগ্নিসংযোগ ইত্যাদি নাশকতামূলক কার্যক্রম বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত বন্দর থেকে পণ্য ডেলিভারীর ক্ষেত্রে ফ্রি টাইম পরবর্তীতে আরোপিত ডেমারেজ চার্জ সম্পূর্ণভাবে মওকুফ করার জন্য নৌ-পরিবহন মন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহযোগিতা কামনা করেন।

এদিকে হরতাল অবরোধের ফাঁকে পণ্য পরিবহনের সুযোগ মিললেও পরিবহন মালিকরা ভাড়া বাড়িয়ে দিচ্ছেন দুই থেকে তিনগুণ। বন্দর সংশ্লিষ্টদের মতে, এই বাড়তি ব্যয় ব্যবসায়ীরা নিজের পকেট থেকে দেবেন না। নানা কলাকৌশলে প্রকারান্তরে চাপিয়ে দেয়া হবে ভোক্তাদের কাঁধে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ শিপিং এজেন্টস এসোসিয়েশনের সভাপতি কামাল হায়াত বলেন, চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য ডেলিভারী ব্যাহত হওয়ার কারণে ব্যবসায়ী ও সাধারণ ভোক্তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। শিগগির পণ্য পরিবহন নিশ্চিত করা না হলে দেশের অর্থনীতি নাজুক হয়ে পড়বে। –