বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নির্বাচনে হারবে বাংলাদেশ, জিতবে আওয়ামী লীগ: ইকোনমিস্ট

The-Economistবাংলাদেশের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পুনরায় জয়ী হলেও হেরে যাবে বাংলাদেশ বলে প্রকাশিতব্য এক প্রতিবেদনে বলেছে বিশ্বখ্যাত ব্রিটিশ সংবাদপত্র ইকোনমিস্ট। পত্রিকাটির শনিবারের প্রিন্ট সংস্করণে প্রকাশিতব্য এবং ইতোমধ্যেই অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত  ‘বাংলাদেশ: দা ক্যাম্পেইন ট্রেইল, দা রুলিং পার্টি উইল উইন বাংলাদেশ ইলেকশন, দা কান্ট্রি উইল লস’ শিরোরামে প্রকাশিত প্রতিবেদনটি তুলে ধরা হলো। ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় নির্বাচন বর্জন করছে প্রধান বিরোধী দল। ফলে শেখ হাসিনার দল আওয়ামী লীগের জয় নিশ্চিত। বৈধতার ব্যাপারটি ভিন্ন।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়,জনসমর্থন হারানো শেখ হাসিনার সরকার দেশের বেশিরভাগ এলাকার ওপর থেকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেছে। শেখ হাসিনার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন বিএনপির রাজনীতি এখন রাজপথে। একের পর এক হরতাল ডেকে যাচ্ছে দলটি। এতে দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা ও অর্থনীতি পর্যুদস্ত হয়ে পড়েছে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেভাবে তার শাসনকালের মেয়াদ বাড়িয়েছেন তাকে ‘ধাপে ধাপে ক্যু’ বলে মন্তব্য করেছেন একজন ইউরোপীয় কূটনীতিক।

শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগই জিততে যাচ্ছে। ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে যা কিছুই হোক না কেন শেখ হাসিনার শপথ নেয়ার জন্য ইতোমধ্যেই পর্যাপ্ত সংখ্যক এমপি রয়েছে। দেশে-বিদেশে নির্বাচনের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিবে। এসব সত্ত্বেও একমাত্র বিদেশি শক্তি যে এই নির্বাচনকে সমর্থন করছে সেটি হচ্ছে বাংলাদেশের বৃহত্তম প্রতিবেশী ভারত।

 

ভোটের আগে রাজনৈতিক সহিংসতায় ১০০-এর বেশি লোক নিহত হয়েছে। সর্বশেষ মৃত্যুর ঘটনাগুলো ঘটেছে ইসলামপন্থি দল জামায়াতের ইসলামীর নেতা আবদুল কাদের মোল্লাকে গত ১২ ডিসেম্বর ফাঁসি দেয়ার পর। তাকে সাজা দিয়েছিল জনপ্রিয় কিন্তু গভীরভাবে ত্রুটিপূর্ণ একটি ট্রাইব্যুনাল।

১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ বিজয় দিবস পালন করেছে। সহিংসতার মধ্যে জন্ম নেয়া বাংলাদেশ আরো রক্তপাত ছাড়াই এগিয়ে যাবে বলে যে আশা করা হয়েছিল তা ফিকে হয়ে আসছে।

দলটির শরিক জামায়াতে ইসলামী অস্তিত্ব রক্ষার জন্য লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের ক্যাডাররা রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের রগ কেটে দেয়ার জন্য পরিচিত। নিরাপত্তা বাহিনী তাজা গুলি ব্যবহার করে এর জবাব দিচ্ছে। ভারত সীমান্তবর্তী জামায়াতের দূর্গ খ্যাত সাতক্ষীরায় ১৬ ডিসেম্বর ৫ জামায়াত সমর্থককে হত্যা করা হয়। শিবিরকর্মীরা হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘরবাড়ি ও দোকানপাটে আগুন দিয়েছে। আওয়ামী লীগের ক্যাডাররা বিভিন্ন এলাকা ছেড়ে পালিয়ে রাজধানী ঢাকায় চলে গিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠজনরা বলছেন, জামায়াতের পুরো নেতৃত্বকে ফাঁসি দেয়ার ব্যাপারে তিনি বদ্ধপরিকর। যদিও বিচার বিভাগের স্বাধীনতার ব্যাপারে কম লোকেরই আস্থা আছে।

বিদেশি বরেণ্য ব্যক্তিরা যেমন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন এবং যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি (কাদের মোল্লাকে) ফাঁসি না দেয়ার জন্য শেখ হাসিনার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। কিন্তু আপোস করা তার (শেখ হাসিনার) স্টাইল নয়।

পাঁচ বছর আগে ভূমিধস (ল্যান্ডসøাইড) জয় পেয়েছিলেন শেখ হাসিনা। এরপর ২০১১ সালে তিনি তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা বাতিল করে দেন। হয়তো সর্বময় ক্ষমতাধর শাসক হওয়ার ইচ্ছায় শেখ হাসিনা সেটি করেননি। কিন্তু সংবিধান সংশোধনীর পরিণতি তাই দাঁড়াচ্ছে। তারপর থেকেই সরকার একটি একতরফা নির্বাচনে ফন্দি এঁটেছে।

তবে এই নির্বাচনে সবচেয়ে বড় অসুবিধা হলো এটা একটি অবশ্যম্ভাবী ধোঁকাবাজিতে রূপ নিচ্ছে। ৩০০ আসনের মধ্যে ১৫৪টি আসনে কোনো ভোটের প্রয়োজন হবে না।

বিএনপি এবং তার শরিক ১৭টি দল নির্বাচন বর্জন করেছে। দেশের তৃতীয় বৃহত্তম দল জাতীয় পার্টিও নির্বাচন বর্জন করেছে। দলটির চেয়ারম্যান সাবেক স্বৈরশাসক এইচএম এরশাদকে নির্বাসনে পাঠানো হতে পারে। জাতীয় পার্টির পরে সবচেয়ে বড় দল জামায়াতে ইসলামীকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করা হয়েছে। দলটির বিরুদ্ধে অভিযোগ- তাদের গঠনতন্ত্র দেশের সেক্যুলার সংবিধানের পরিপন্থি।

তবে পূর্বনির্ধারিত ফলাফলের এই নির্বাচনে সমর্থন দিয়ে ভারত অদূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছে। বাংলাদেশে ভারতবিরোধী জনমত ইতোমধ্যে প্রবল হয়ে উঠেছে। সংঘাত যত তীব্রতর হচ্ছে ভারতের সহযোগী আওয়ামী লীগকে ততই ইসলামবিদ্বেষী হিসেবে দেখা হচ্ছে। শেখ হাসিনাকে ক্ষমতা দখল করায় সমর্থন দিয়ে ভারত যা আশা করেছিল তার উল্টা ফল পেতে পারে। সেটা হলো- উগ্রপন্থার বিকাশ ঘটবে আর সেক্যুলারিজম হ্রাস পাবে।

সেনাবাহিনীও এখন ক্ষমতা দখলে আগ্রহী নয়। ২০০৭ সালে কারচুপির নির্বাচন করার চেষ্টার পর যেভাবে বিদেশিরা সেনা সমর্থিত সরকারকে সমর্থন দিয়েছিল এবার সেভাবে স্পষ্টভাবে সমর্থন দেবে না। ফলে কয়েক মাস লড়াই চলতে পারে। কিছু কিছু আওয়ামী লীগের নেতাও স্বীকার করেন যে, তারপর একটি সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

একটি জনমত জরিপে দেখা যাচ্ছে, বাংলাদেশের মাত্র ৩০ শতাংশ মানুষ সেনাশাসন চায়। লক্ষ্যণীয় ব্যাপার হচ্ছে, শুধু এক তৃতীয়াংশ লোক চায় নির্বাচনে ‘বাটলিং বেগমস’ নামে খ্যাত দুনেত্রীকে বাদ দেয়া হোক। দুনেত্রীর শাসন যত খারাপই হোক না কেন তাদের ছাড়া দেশ চলবে না।