শনিবার, ২৭শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শাসক দলের এই দুরবস্থা কেন?

Trainআন্দোলনের নামে দেশব্যাপী সহিংসতা ও নাশকতা বেড়ে যাওয়ায় বিশেষ অভিযানে নামছে যৌথ বাহিনী। আর এই অভিযানে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাথে মাঠে নামছেন আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর নেতা-কর্মীরা। দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশেই তারা ৫ জানুয়ারীর নির্বাচন পর্যšত্ম মাঠে থাকবেন। আর বন ও পরিবেশমন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ বলেছেন, নাশকতা বন্ধ না হলে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দেখামাত্র গুলি করতে বাধ্য হবে।

নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজধানীতে বসে সরকার ও সরকারী দলের প্রস্তুতির খবর এটি। অন্যদিকে বা¯ত্মব চিত্রের খবর হচ্ছে, পাঁচ বছর ক্ষমতায় থেকে চাওয়া-পাওয়ার হিসাব নিকাশ আর অভ্যšত্মরীণ দ্বন্দ্বে মাঠ পর্যায়ের নেতারা এখন নিজ এলাকায় থাকতে পারছেন না। অনেকের আশ্রয় এখন রাজধানী, বিভাগীয় ও জেলা শহরে। কেউ কেউ বিদেশে পাড়ি জমিয়েছেন বলেও খবর রয়েছে। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাওয়া ১৫৪ জন এমপি-ও নিজ এলাকায় নেই। যারা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন না, অর্থাৎ যাদের নির্বাচনী লড়াইয়ে থাকতে হচ্ছে তাদের এখন ভোটের জন্য এলাকা চষে বেড়ানোর কথা। কিন্তু তারাও এলাকায় নেই। পাঁচ বছর মন্ত্রিপরিষদে থাকা অনেকেও এখন এলাকা থেকে বিচ্ছিন্ন। তাঁদের অনুপস্থিতিতে স্বাভাবিকভাবেই সাংগঠনিক দুর্বলতা তৈরি হয়েছে এবং এ কারণেই তৃণমূল পর্যায়ের দলীয় কর্মী-সমর্থকেরা মাঠে নামার সাহস পাচ্ছেন না। জামায়াত-শিবিরের সহিংসতার শিকার হচ্ছেন।

নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতা গ্রহণের সময় থেকে মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী থেকে শুরু করে সংসদ সদস্য পর্যšত্ম প্রায় সবারই নিজ এলাকায় সরকারি উন্নয়নমূলক কাজে একচ্ছত্র নিয়ন্ত্রণ ছিল। আর তাদের আশপাশে থেকে কিছু নেতাও অর্থবিত্তের অধিকারী হন। এরাই ধীরে ধীরে এলাকা থেকে বিচ্ছিন্ন হতে থাকেন এবং সরকারের একেবারে শেষ সময়ে এলাকায় আর যেতে পারছেন না। পরিবার নিয়েই অনেকে এখন রাজধানীতে। দেবহাটা, আশাশুনি ও কালীগঞ্জ উপজেলার একাংশ নিয়ে সাতক্ষীরা-৩ আসনের সংসদ সদস্য আ ফ ম রুহুল হক গত পাঁচ বছর মন্ত্রীত্ব করেছেন। এবার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েও নিজ এলাকায় যেতে পারছেন না। সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ মুজিবুর রহমান যোগাযোগ মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ছিলেন। কিন্তু এখন নিজ এলাকায় নেই।  

অন্যদিকে ক্ষমতার সুবিধা নিয়ে সৃষ্ট দ্বন্দে সুবিধা বঞ্চিত অনেকেই অভিমান করে নিষ্ক্রিয় আছেন। অনেকে আবার বিরোধী দলের সঙ্গে অলিখিত সমঝোতাও করে ফেলেছেন নিজ এলাকায় অ¯িত্মত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য।

সরকারি দলের নেতা-কর্মীদের অ¯িত্মত্ব যখন স্ব স্ব এলাকায়ই হুমকির মুখে তখন তারা আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাথে বিশেষ অভিযানে নামবেন কি করে? আর যৌথ বাহিনীর প্রটেকশনে তারা যদি এই অভিযানে নামেন তাহলে সেটাই বা কতটা কার্যকর হবে। যৌথ বাহিনী অবশ্য এরই মধ্যে সাতক্ষ্মীরাসহ কয়েকটি এলাকায় অভিযান চালাতে গিয়ে জামায়াত শিবিরের প্রতিরোধের মুখে পড়েছে। অভিযানে একাধিক লোকের প্রাণও গেছে।

সরকার যৌথ বাহিনীর পাশাপাশি দলীয় নেতা-কর্মীদের মাঠে থাকার প্রয়োজন মনে করলেও দলীয় নেতা-কর্মীরা কেন এলাকায় যেতে পারছেন না? তারা কি শুধুই জামায়াত-শিবিরের সহিংসতার কারণে এলাকায় যেতে পারছেন না, নাকি গত পাঁচ বছরের কর্মকাণ্ড তাদের এলাকায় থাকার নৈতিক ভিত্তিকে দুর্বল করে দিয়েছে সে প্রশ্নও এসে যায়।

সরকার স্বয়ং মনে করছে, ১৭টি জেলায় বিরোধী দলের আন্দোলনের মুখে প্রশাসনিক নিয়ন্ত্রণ অনেকটাই শিথিল হয়ে পড়েছে। অনেক এলাকায় যেতেও পারছে না আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ শক্তি আওয়ামী লীগের নেতাদের এই দুরবস্থা কেন? বিপুল ভোটে নির্বাচিত আওয়ামী লীগ বা মহাজোটের মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যরা পাঁচ বছর আগে হয়তো ভাবেননি, পাঁচ বছর পর তাদের আবার জবাবদিহি করতে হবে। ভাবেননি ভোটের জন্য জনগণের মখোমুখি হতে হবে। অনেক লাশের বিনিময়ে অর্জিত তত্বাবধায়ক ব্যবস্থা বাতিল করে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন করে জয়ী হলেই ক্ষমতায় থাকা যাবে অনেক দিন– এমন ভাবনাই হয়তো ভেবেছেন নীতি নির্ধারকরা।

যে ভিশন টোয়েন্টি-টোয়েন্টিওয়ান নতুন প্রজন্মের ভোটারদের আকৃষ্ট করেছিল ২০০৮ সালের নির্বাচনে তা শুধু কথায় নয়, কাজেও প্রমাণ চেয়েছিল রাজধানী ঢাকা থেকে শুরু করে একেবারে অজো পাড়াগাঁয়ের তরুণরাও। পাঁচ বছরের দীর্ঘ সময়ে কিছু প্রতিষ্ঠানে তথ্যপ্রযুক্তি সুবিধা সংযোগের উদ্বোধনই যে ডিজিটাল বাংলাদেশ নয় তা এদেশের মন্ত্রী-এমপিরা না বুঝলেও বুঝে তরুণ সমাজ।

নির্বাচনের আর এক অঙ্গীকার যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে ব্যাপক জনসমর্থন থাকলেও এই বিচার নিয়ে শুরু থেকেই অনেক টালবাহানা জনগণকে বিক্ষুব্ধ করেছে। নতুন প্রজন্মেরই বিরাট অংশ গণজাগরণ মঞ্চ করে সরকারকে বাধ্য করেছে সঠিক বিচার ও বিচারের রায় কার্যকর করতে। তবুও এই বিচারের দীর্ঘসূত্রতা নিয়ে তরুণ প্রজন্মের মধ্যে নানা প্রশ্ন রয়েছে।

শেয়ার বাজার কেলেঙ্কারী সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্র¯ত্ম করেছে তরুণ প্রজন্মকে। পদ্মা সেতু, হলমার্ক দুর্নীতি, সোনালী ব্যাংক কলেঙ্কারী, ডেসটিনির দুর্নীতি, দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি, জনগণের নিরাপত্তাহীনতা সবই সরকারের পাঁচ বছরের সাফল্যকে ঢেকে দিয়েছে। রাজধানীতে বিরোধী দলের কর্মসূচীতে জনগণের সম্পৃক্ততা না দেখে আর কিছু সরকারী অনুষ্ঠানে বিপুল জনসমাবেশ দেখে সরকার সন্তুষ্ট থাকলেও দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর গ্রামবাংলা থেকে যে শাসক দল ক্রমেই বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে তা হয়তো আমরা রাজধানীতে বসে উপলব্ধি করতে পারছি না। কিন্তু যে নেতা, মন্ত্রী কিংবা এমপি নিজ এলাকায় থাকতে না পেরে রাজধানীতে সপরিবারে আশ্রয় নিয়েছেন তিনি কিন্তু হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন বিপুল জনগোষ্ঠী থেকে দলের বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ার বিষয়টি।

আজ দলীয় কর্মীদের সাথে নিয়ে যৌথ বাহিনীর অভিযানে গোটা দেশ জয় করার যে স্বপ্ন দেখা হচ্ছে তা কতটা সফল হবে সে ব্যাপারে আগে থেকেই ভেবে দেখা উচিৎ। কারণ গত পাঁচ বছরে আন্দোলন দমাতে গিয়ে দেশ জয় করতে পারেনি এই সরকার। বরং গ্রাম বাংলা থেকে রাজধানীকে বিচ্ছিন্ন করেছে। সংবিধান সমুন্নত রাখার জন্য নির্বাচন করতে গিয়ে ১৫৪টি আসনে কোন প্রতিদ্বন্দ্বীর কাছ থেকেই সাড়া পায়নি সরকার। বিপুল জনপ্রিয়তার কারণে এই ১৫৪ জনের বিরুদ্ধে কেউ প্রার্থী হননি এমনটি ভাবার সুযোগ নেই। এটা জনবিচ্ছিন্নতারই পরিচায়ক। এই পরিস্থিতিতে সরকার তার মেয়াদের শেষ মুহূর্তে এসে যদি এমন যৌথ অভিযান চালায় তাহলে দেশে সহিংসতা বাড়ার আশংকা থাকে। আশংকা থাকে প্রাণহানি আর জনজীবনে নিরাপত্তাহীনতার। কেউ যদি মনে করে থাকেন ১৫৪ অর্থাৎ সরকার গঠনের মত সংখ্যাগরিষ্ঠতা তো নির্বাচনের আগেই পাওয়া গেছে, তাই পাঁচ বছর অনায়াসে দেশ শাসন করা যাবে তাহলে সেটা হবে আত্মঘাতি।

এ জাতীয় আরও খবর

আহসান কবীরকে চাপা দেওয়া সিটি করপোরেশনের গাড়িচালক গ্রেপ্তার

নাসিরনগরে স্থায়ী মন্দিরের নিরাপত্তা বিষয়ক মতবিনিময় সভা

নাসিরনগরে ধান ক্ষেত থেকে অজ্ঞাত ব‍্যাক্তির লাশ উদ্ধার

নাসিরনগরে তৈরি হচ্ছে দেশীয় মাছের নানা জাতের শুটকি

বিয়ের আগেই মা হচ্ছেন স্বরা!

রাস্তা হওয়া উচিত ক্যাটরিনার গালের মতো মসৃণ: রাজস্থানের মন্ত্রী

ঢাকায় বিএনপির মশাল মিছিল

খালেদাকে স্লো পয়জনিং করলে বিএনপির লোকেরাই করতে পারে: কাদের

গণতন্ত্রের কথা বলে যুক্তরাষ্ট্র বিভিন্ন দেশকে চাপে রাখতে চায়

লাইসেন্স ছাড়াই ডিএসসিসির গাড়ি চলাচ্ছিলেন হারুন-রাসেল: র‌্যাব

সেই লিটন, এই লিটন

ভোলায় মাঝনদীতে চেয়ারম্যান-মেম্বারদের লক্ষ্য করে গুলি, নিহত ১