রবিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সেনাকুঞ্জে দেখা হবে তো?

hasina & khaladaসশস্ত্র বাহিনী দিবস-২০১৩ উপলক্ষে আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সেনাকুঞ্জে সশস্ত্র বাহিনীর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এবং প্রধান বিরোধী দল বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া যাচ্ছেন। দুই দলের শীর্ষমহল থেকে দুই নেত্রীর যোগ দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

 

এদিকে দুই নেত্রীর মুখোমুখি দেখা কিংবা কথা হবে কিনা তা নিয়ে সচেতন মহলে নানা আলোচনা রয়েছে। তারা মনে করছেন, চলমান সঙ্কট নিরসনে এবার দুই নেত্রী নিজেদের মধ্যে কথা বলতেও পারেন। তবে বিষয়টি নির্ভর করছে তাদের আন্তরিকতার উপরে।

 

প্রতিবছরের মতো এবারও সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে দেশের দুই প্রধান দলের দুই শীর্ষ নেতাকে সেনাকুঞ্জে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। উভয়ই আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন এবং ওই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার বিষয়ে সম্মতি জানিয়েছেন বলে জানা গেছে।

 

রেওয়াজ অনুযায়ী প্রতিবছরই সশস্ত্র বাহিনীর এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ও প্রধান বিরোধী দলীয় নেতা উপস্থিত হয়ে থাকেন।

 

গত বছরও একই দিনে দেশের দুই শীর্ষ নেতা ওই অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন। কিন্তু তারা একে অপরের মুখোমুখি হননি এবং দুজনের মধ্যে কোন কথাও হয়নি। তবে জাতীয় নির্বাচনের ঢামাঢোলের মধ্যে যেহেতু এবার ওই অনুষ্ঠানে দুজনই যাচ্ছেন সেহেতু তাদের মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল বলেই পর্যবেক্ষক মহল ধারণা করছেন।

 

উল্লেখ্য সর্বশেষ ২০০৯ সালে সশস্ত্র বাহিনী দিবসের অনুষ্ঠানে দুই নেত্রীকে কাছাকাছি দেখা গিয়েছিল। শেখ হাসিনা সেদিন খালেদা জিয়ার সঙ্গে কুশল বিনিময়সহ তাঁকে সংসদে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন। এরপর ২০১০ ও ২০১১ সালের সশস্ত্র বাহিনী দিবসের অনুষ্ঠানে খালেদা জিয়া আর যোগ দেননি। রাজনৈতিক দুর্যোগজনিত কারণে ২০০৯ সালের পর আর সশস্ত্র বাহিনীর অনুষ্ঠানে যোগ না দিলেও আজ যোগ দিচ্ছেন বেগম খালেদা জিয়া। তাঁর সেনানিবাসের প্রাণপ্রিয় বাড়িটি ছাড়ার পর এই প্রথম তিনি সেনানিবাসে যাচ্ছেন। অপরদিকে, এই বিশেষ দিবসের কারণে প্রধানমন্ত্রী তার পাকিস্তান সফর বাতিল করেছেন।

 

এছাড়া দেশের চলমান রাজনৈতিক সঙ্কট নিরসনের লক্ষ্যে কয়েকদিন আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিরোধী দলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়াকে টেলিফোন করার পর একই অনুষ্ঠানে দুজন যোগ দিতে যাচ্ছেন। পক্ষান্তরে আসন্ন ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরিচালনা জন্য গঠিত সর্বদলীয় সরকারে যোগ দিতে বিএনপির প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান এবং দুই দলের মধ্যে সংলাপ আয়োজনের জন্য রাষ্ট্রপতিকে বিএনপির অনুরোধের প্রেক্ষাপটে একটি সমঝোতার জন্য এ সুযোগে দুই নেত্রীর মুখোমুখি হওয়া উচিত বলেই সবাই মনে করেন। ঢাকাটাইমস