মঙ্গলবার, ৯ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তারেক-মামুনের অর্থ লেনদেনের মামলার রায় আজ

Tareq & Mamunবিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার বন্ধু গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের বিরুদ্ধে দুদকের দায়ের করা অর্থ পাচার মামলার রায় দেয়া হবে আজ (রবিবার)। ঢাকার ৩ নম্বর বিশেষ জজ আদালত এই মামলার রায় ঘোষণা করবেন। তারেক রহমান পলাতক থাকায় তার পক্ষে কোন যুক্তি উপস্থাপন করা হয়নি। তবে তার বন্ধু মামুনের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন শেষে গত বৃহস্পতিবার শেষ হয় মামলার সকল কার্যক্রম।

অবৈধভাবে অর্থ লেনদেন ও পাচারের অভিযোগে ২০০৯ সালে রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় বিএনপি চেয়ারপারসনের বড় ছেলে ও দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং তার বন্ধু গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক। পরের বছর ৬ জুলাই তাদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ দাখিল করে পুলিশ। এর এক বছর পর ২০১১ সালের ৮ আগস্ট তারেক ও মামুনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত।

অভিযোগে বলা হয়, টঙ্গীতে ৮০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের কাজ পাইয়ে দিতে নির্মাণ কনস্ট্রাকশন কোম্পানীর মালিক খাদিজা ইসলামের কাছ থেকে ২০ কোটি টাকার বেশি ঘুষ নেন মামুন। ২০০৩-২০০৭ সালের মধ্যে এই টাকা অবৈধভাবে সিঙ্গাপুরে পাচার করেন তারেক।

পরবর্তীতে তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে ইন্টারপোলের মাধ্যমে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন বিশেষ আদালত। তার বিরুদ্ধে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআইয়ের এজেন্টও সাক্ষ্য দিয়েছেন। এই মামলার কার্যক্রম নিয়ে অভিযুক্তের পক্ষ থেকে সুপ্রিম কোর্টে চ্যালেঞ্জ করা হলে আপিল বিভাগ এই মামলা ২০০৯ সালের মানি লন্ডারিং আইনে চালানোর আদেশ দেন। তবে তারেক রহমানের অনুপস্থিতির কারনে শুধু গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন আইনজীবীরা।

বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় দেশে জরুরী অবস্থা চলাকালে দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে গ্রেফতার হন তারেক রহমান। এরপর তারেকের বিরুদ্ধে ১৬টি মামলা হলেও এই প্রথম কোন মামলার রায় দেয়া হচ্ছে আজ। আইন অনুযায়ি এই মামলায় সর্বোচ্চ শাস্তি সাত বছর কারাদণ্ড। ২০০৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর থেকে চিকিৎসার জন্য লন্ডনে অবস্থান করছেন তারেক রহমান।