মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

টেনিস এলবোর লক্ষণ ও উপসর্গ

news-image

ডা. জি এম জাহাঙ্গীর হোসেন
টেনিস এলবো মেডিক্যালের ভাষায় পার্শ্বীয় বা ল্যাটেরাল এপিকন্ডাইলাইটিস নামে পরিচিত। এটি হলো কনুইয়ের অস্থিসন্ধিতে একটি বেদনাদায়ক প্রদাহ, যা পুনরাবৃত্তিমূলক চাপের (জয়েন্টের অতি ব্যবহার) কারণে ঘটে। সাধারণত ব্যথা অনুভবের স্থানটি কনুইয়ের বাইরের দিকে (পার্শ্বিক দিকে) অবস্থিত। তবে এটি হাতের পেছনের দিকেও বিকিরণ করতে পারে। টেনিস এলবো থাকলে যখন বাহু সোজা করেন বা সম্পূর্ণভাবে প্রসারিত করেন, তখন সম্ভবত ব্যথা অনুভব করবেন।

ব্যথার কারণ : টেন্ডন হলো একটি পেশির অংশ, যা হাড়ের সঙ্গে সংযুক্ত থাকে। কনুইয়ের বাইরের হাড়ের সঙ্গে অগ্রভাগের টেন্ডনগুলো হাতের পেশিগুলো সংযুক্ত করে। টেনিস এলবো তখনই হয়, যখন বাহুতে একটি নির্দিষ্ট পেশি এক্সটেনসর কার্পি রেডিয়ালিস ব্রেভিস ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ পেশি কব্জি প্রসারিত (রিস্ট এক্সটেনশন) করতে সাহায্য করে। পুনরাবৃত্তিমূলক চাপ এক্সটেনসর কার্পি রেডিয়ালিস ব্রেভিস পেশি দুর্বল করে দেয়। যেখানে এটি কনুইয়ের বাইরের সঙ্গে সংযুক্ত থাকে, সেখানে পেশির টেন্ডনে অত্যন্ত ক্ষুদ্র ছিদ্র সৃষ্টি করে। এ ছিদ্র বা টিয়ার প্রদাহ ঘটায় এবং ফলে ব্যথা অনুভূত হয়। টেনিস এলবো যে কোনো কার্যকলাপের মাধ্যমে ট্রিগার হতে পারে। এর মধ্যে কব্জির পুনরাবৃত্তিমূলক মোচড় জড়িত থাকে। কার্যক্রমগুলোর অন্তর্ভুক্ত : টেনিস ও অন্যান্য জালিকাকার ব্যাট দিয়ে খেলা, সাঁতার, গলফ, একটি চাবি ঘোরানো, ঘনঘন স্ক্রু-ড্রাইভার, হাতুড়ি ও কম্পিউটার ব্যবহার করা ইত্যাদি।

লক্ষণ ও উপসর্গ : যদি টেনিস কনুই থাকে, তবে যে লক্ষণ ও উপসর্গে মধ্যে আপনি কিছু অনুভব করতে পারেন তা হলোÑ কনুইতে ব্যথা, যার তীব্রতা প্রথমে মৃদু হলেও ক্রমে খারাপ হতে থাকে। ব্যথা কনুইয়ের বাইরে থেকে বাহু এবং কব্জি পর্যন্ত থাকে। দুর্বল গ্রিপ। হ্যান্ডশেক বা কোনো বস্তু চেপে ধরলে ব্যথা বেড়ে যাওয়া। কোনো কিছু উত্তোলন, সরঞ্জাম ব্যবহার বা জার খোলার সময় ব্যথা অনুভূত হওয়া ইত্যাদি।

চিকিৎসা : ল্যাটেরাল এলবো টেনডিনোপ্যাথির (এলইটি) প্রথম সারির ব্যবস্থাপনা হলো, নন-অপারেটিভ চিকিৎসা। এটি প্রাথমিকভাবে দুটি নীতির ওপর ভিত্তি করে করা হয়। যেমনÑ ব্যথা উপশম ও প্রদাহ নিয়ন্ত্রণ। এর মধ্যে ব্যথা উপশমে সাধারণত বিশ্রাম ও কার্যকলাপ পরিবর্তন বা মডিফিকেশন অন্তর্ভুক্ত থাকে। প্রদাহ নিয়ন্ত্রণ এবং স্বল্পমেয়াদে ব্যথা উপশমের জন্য প্রথম দিকে এনএসএইডস ব্যবহার করা যেতে পারে।

রাসায়নিক ক্রিয়াকলাপের মাত্রা হ্রাস এবং রক্তনালি সংকোচনের মাধ্যমে প্রদাহজনক প্রতিক্রিয়া এবং ফোলাভাব কমানোর উদ্দেশ্যে পনেরো মিনিটের জন্য প্রতিদিন তিনবার বরফ ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। কব্জি বা আঙুলের এডিমা উপস্থিত থাকলে এক্সট্রিমির এলিভেশন বা প্রান্তের উচ্চতাও নির্দেশিত হয়। সংকোচনের সময় এলইটি ব্যথা কমাতে কনুই কাউন্টারফোর্স ব্রেস বেশ কার্যকর হতে পারে। ‘ফোর আর্ম অর্থোসিস’ হিসেবে, এটি একটি গৌণ পেশি সংযুক্তি স্থানের ভূমিকা পালন করে এবং ল্যাটেরাল এপিকন্ডাইলে সন্নিবেশের ওপর উত্তেজনা উপশম করতে পারে। ব্রেসটি বাহুতে (ব্যাসার্ধের মাথার নিচে) চারপাশে প্রয়োগ করা হয় এবং যথেষ্ট শক্ত করা হয়, যাতে রোগী যখন কব্জির এক্সটেনসরগুলো সংকুচিত করে, তখন সম্পূর্ণ পেশি সংকুচিত করে না।

যখন চিকিৎসকের কাছে যাবেন : যে কোনো রোগের শুরুতেই চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া ভালো। তাতে রোগের ভোগের মাত্রা বা বড় রকমের জটিল সমস্যা পোহাতে হয় না। তাই কব্জি বা আঙুলের এডিমার উপস্থিতি টের পেলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। নইলে রোগটি বেড়ে জটিলতা তৈরি হতে পারে।

লেখক : সহযোগী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগ

বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতাল, শ্যামলী, মিরপুর রোড, ঢাকা। ০১৭৪৬৬০০৫৮২