শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কুবির সাবেক কমিটির দুই নেতাকে মারধরের অভিযোগ

news-image

পূজার ছুটিতে বাড়ি ফেরার পথে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) শাখা ছাত্রলীগের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির এক নেতাকে মারধর ও অপর এক নেতাকে হেনস্তার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল রোববার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে কুমিল্লার কোটবাড়ী এলাকার একটি বেসরকারি কলেজের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

হামলাকারীদের সম্পর্কে বিপরীতমুখী বক্তব্য দিয়েছে ছাত্রলীগের দুটি গ্রুপ। সাবেক সভাপতি ইলিয়াসপন্থী নেতাকর্মীদের অভিযোগ, ছাত্রলীগের নতুন কমিটিতে পদপ্রত্যাশী রেজা-স্বজনপন্থী নেতাকর্মীরা এই হামলা করেছে। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করে রেজা-ই-এলাহীর দাবি, এ ঘটনার সঙ্গে ইলিয়াসপন্থী লোকজন নিজেরাই জড়িত।

মারধরের শিকার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন ইমরান হোসেন ও আহমেদ আবির রায়হান। ইমরান বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী নজরুল ইসলাম হল শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি। রায়হান অর্থনীতি বিভাগের ১২ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হল শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক। তাকে বাড়ি যাওয়ার পথে গাড়ি থেকে নামিয়ে অস্ত্রের মুখে হেনস্তা করা হয়। পরে তার ফোন কেড়ে নিয়ে শাখা ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজকে ‘খালেদ সাইফুল্লাহর খুনি’ উল্লেখ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট দেওয়ার অভিযোগ উঠে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রায় ১০-১৫ জন যুবক মিলে কুমিল্লা সিটি কলেজের সামনে ইমরানকে মারধর করে।

এ বিষয়ে মারধরের শিকার ইমরান বলেন, ‘আমি এখন কুমিল্লা মেডিকেলে আছি। আমি বাড়ি যাচ্ছিলাম। তখন আমাকে গাড়ি থেকে নামিয়ে মেরেছে। যারা মেরেছে তাদের মধ্যে অনেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ছিল। তবে বেশিরভাগই বাইরের লোক।’

অন্যদিকে আহমেদ আবির রায়হান বলেন, ‘আমি গাড়িতে করে বাড়ি যাচ্ছিলাম। তখন আমাকে গাড়ি থেকে নামিয়ে ভয় দেখানো হয়। মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে ইলিয়াস ভাইয়ের বিরুদ্ধে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিতে বলা হয়।’

এ বিষয়ে কুবি শাখা ছাত্রলীগের দ্বিতীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও পরবর্তী কমিটির পদপ্রত্যাশী রেজা-ই-ইলাহী বলেন, ‘এরকম কোনো কিছুই আমার অনুসারীরা করেনি। এগুলো ওরাই করে আমাদের নাম দিচ্ছে।’

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর কাজী ওমর সিদ্দিকী বলেন, ‘ছাত্রদের মারধরের খবর পাওয়া মাত্র আমরা প্রক্টরিয়াল বডি নিয়ে কোটবাড়ি চাঙ্গিনী এসেছি। আবিরকে জিম্মি করে স্ট্যাটাস দেওয়া ও ইমরানকে মারধরের খবর পেয়েছি।’