শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সংবর্ধনায় সিক্ত সাফজয়ী ৫ পাহাড়ি কন্যা

news-image

রাঙামাটি প্রতিনিধি : আঁতুড়ঘরে সংবর্ধনায় সিক্ত হলেন সাফজয়ী পাঁচ পাহাড়ি কন্যা। বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) রাতে রাঙামাটির ঘাগড়ার মগাছড়ি গ্রামে ঋতুপর্ণার গ্রামের বাড়িতে এসে পৌঁছান পাঁচ ফুটবলার ঋতুপর্ণা চাকমা, রূপনা চাকমা, আনাই মগিনী, আনুচিং মগিনী ও মনিকা চাকমা। চট্টগ্রাম থেকে রওয়ানা দিয়ে রাত প্রায় নয়টার দিকে গ্রামে এসে পৌঁছলে গ্রামবাসী তাদের মশাল জ্বালিয়ে বরণ করে নেয়। এই যেন অন্ধকারের মধ্যে আলোর দিশা।

বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকালে ঋতুপর্ণা-রূপনাদের আঁতুড়ঘর ঘাগড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে পৌঁছানোর পর সেখানে ফুলের মালা নিয়ে অপেক্ষমান শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের দেখা মেলে। পাহাড়ি ৫ কন্যাকে নিয়ে শোভাযাত্রা পাহাড়ি উচুঁ-নিচু পথ পাড়ি দিয়ে বিদ্যালয়ে এসে পৌঁছায়। যে মাঠে খেলে তারা দক্ষিণ এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছেন সেই মাঠে সংবর্ধিত হতে পেরে উচ্ছ্বাসের কথা জানালেন তারা। সেখানে কেক কেটে ও মিষ্টিমুখের মাধ্যমে নিজেদের সাফল্য উদযাপন করে বিদ্যালয়ের এই শিক্ষার্থীরা।

মনিকা চাকমা বলেন, ‘এভাবে সড়কে দাঁড়িয়ে অভ্যর্থনা দেওয়া হবে সেটা চিন্তা করতে পারিনি। এই স্কুলে কয়েকবছর আগে পড়ালেখা শেষ করেছি। তখন শিক্ষকরা কত শাসন করেছিল আর আজ তারাই বরণ করছে বিষয়টি চিন্তা করতেই অন্যরকম লাগে।’

ঋতুপর্ণা চাকমা বলেন, ‘শিক্ষকরা অনেক কষ্ট করে লেখাপড়া-খেলাধুলা শিখিয়েছেন। তাদের কাছে ঋণী। প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি, এই স্কুলটা যেন সরকারি করে দেওয়া হয়। তাহলে স্কুলের প্রতি কিছুটা দায়িত্ব পালন করা হবে।’

রূপনা চাকমা বলেন, ‘ঘর করে দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞ। স্কুলটি সরকারি হলে ৫ জনই খুব খুশি হব। স্কুলের কারণেই আজ আমরা রূপনা, মনিকা, ঋতুপর্ণা, আনাই ও আনুচিং হতে পেরেছি।’

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক চন্দ্রা দেওয়ান জানান, ‘ওরা আমাদের গর্ব। সাফ বিজয়ের পর তাদের বরণ করে নিতে পেরে আমরাও গর্বিত।’

মনিকাদের মতো আরও ৩০ জন প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। পৃষ্ঠপোষকতা পাওয়া গেলে আরও অনেক নারী ফুটবলার তৈরি করা সম্ভব বলেও জানান তিনি।

এরপর ঘাগড়া জোনের উদ্যোগে পাঁচ ফুটবলারকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। জোনের উপ অধিনায়ক আশিকুর রহমান জানান, ঘাগড়া মাঠটি বর্ষার কারণে খেলায় কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। তাই জোনের পক্ষ থেকে দুই সপ্তাহের মধ্যে মাঠটি সংস্কার করে দেওয়া হবে।

এসময় তিনি আরো বলেন, এই বিজয় বাংলাদেশকে নতুন করে বিশ্বের কাছে পরিচিত করেছে। দেশের সুনাম যারা বয়ে এনেছে তাদের শুভেচ্ছা জানাতে পেরে আনন্দিত।

বিকেলে ঘাগড়া থেকে ট্রাকযোগে রওয়ানা দেন ফুটবলাররা। এসময় রাঙামাটির মানুষ মোটরশোভাযাত্রায় তাদেরকে বরণ করে। রাস্তার দুই পাশে মানুষ দাঁড়িয়ে তাদেরকে বরণ করে নেয়। পরে রাঙামাটি মারী স্টেডিয়ামে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার। এসময় উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমানসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।