সোমবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পেট কাটার পর চিকিৎসক বললেন অপারেশন করা যাবে না

news-image

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : প্রচন্ড পেটের ব্যথা নিয়ে কালীগঞ্জ শহরের হাসনা ক্লিনিকে ভর্তি হোন গৃহবধু রহিমা বেগম (৩৮)। এরপর প্রাথমিক পরিক্ষা নিরিক্ষায় ডাক্তাররা বলেন, রোগীর পেটের মধ্যে নাড়ি পেঁচানো রয়েছে। তাকে দ্রুত অপারেশন করা প্রয়োজন। এরপর আর্থিক চুক্তি সম্পন্ন করেই গতকাল রাতে ক্লিনিকের ডা. আসলাম হোসেন ও ডা. প্রবীর কুমার বিশ্বাস রোগীকে অপারেশন টেবিলে নিয়ে শুরু করেন অস্ত্রোপচার। কিন্তু অস্ত্রোপচার সম্পন্ন না করেই ডাক্তারগণ তার কাটা পেট সেলাই করে পুনরায় বেডে স্থানান্তর করেন। সেই থেকেই ক্লিনিকের বেডে শুয়ে ব্যাথায় কাতরাচ্ছেন রহিমা বেগম। সে কালীগঞ্জ উপজেলার আনন্দবাগ গ্রামের জহুরুল ইসলামের স্ত্রী।

জহুরুল ইসলাম জানান, তার অসুস্থ্য স্ত্রীকে গত ৬ আগস্ট হাসনা ক্লিনিকে ভর্তি করেন। নানান পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ২০ হাজার টাকার চুক্তিতে গতকাল রাতে ক্লিনিকের দুই ডাক্তার রোগীকে অপারেশন টেবিলে নিয়ে যান। এরপর রোগীর পেট কাটার পর অপারেশন সম্পন্ন না করেই সেলাই দিয়ে বেডে স্থানান্তর করেন। চিকিৎসকরা বলেছে, রোগীর নাড়িতে টিউমার রয়েছে। ওই অপারেশন করতে একসঙ্গে ৬/৭ জন ডাক্তার লাগে। তাকে যে কোনো মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে অপারেশন করতে হবে। রোগী এখনো ওই ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

রোগীর স্বামী অভিযোগ করে আরও বলেন, যদি অপারেশন করে রোগীকে ভালো না করা যায়, তবে কেনো তারা অপারেশন করল। এখন তার স্ত্রীর জীবন সংকটাপন্ন। তিনি এই অপচিকিৎসার জন্য ডাক্তার ও ক্লিনিক মালিকের বিচার চান।

সংশ্লিষ্ট ডা. প্রবীর কুমার বিশ্বাস জানান, রোগীর পেট কাটার পর নাড়ীতে টিউমার দেখতে পান। কন্ডিশন বেশ জটিল থাকায় তারা অপারেশন শেষ না করেই রোগীকে সেলাই দিয়ে বেডে পাঠান। এমন রোগীকে যে কোন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অপারেশন করাতে হবে।

এ ধরনের অপচিকিৎসার বিষয়ে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মাজহারুল ইসলাম জানান, কেউ অপচিকিৎসার স্বীকার হলে লিখিত অভিযোগ দিতে পারেন। আর অভিযোগ পেলে অবশ্যই সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।