সোমবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লঞ্চ ভাড়া বৃদ্ধিতে ৮ ধাপের প্রস্তাব

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির পর লঞ্চের ভাড়া পুনর্নির্ধারণে সাত সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়। নৌযানে যাত্রী ভাড়া সমন্বয়ের লক্ষ্যে ৮টি ধাপের প্রস্তাব করা হয়েছে। সেগুলো হচ্ছে- ১৯.৫%, ২২%, ২৫%, ৩০%, ৩৫%, ৪০%, ৪২% ও ৫০%। কমিটি ভাড়া পুনর্নির্ধারণ করে জমা দিলে আগামীকাল বুধবার এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হতে পারে। গতকাল রাত সোয়া ৯টায় এ সংক্রান্ত বৈঠক শেষ হয়েছে। এ ছাড়া ফেরিতে ২০ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়েছে একই বৈঠকে।

গতকাল দুপুরে এ নিয়ে বৈঠক শুরু করে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়। লঞ্চ মালিকদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠক দুপুর দেড়টায় স্থগিত করা হয়। এর পর ভাড়া নির্ধারণী কমিটি গঠন করা হয়। এরপর দুপুরের বিরতি শেষে পুনরায় বৈঠক করে কমিটি। সেখানে ৮টি ধাপের প্রস্তাব তুলে ধরে বৈঠক শেষ হয়। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করবে নৌ মন্ত্রণালয়।

গতকাল সোমবার দুপুরে লঞ্চ মালিকদের নিয়ে এক বৈঠক শেষে এসব তথ্য জানান নৌপরিবহন সচিব মোস্তফা কামাল। তিনি বলেন, কমিটি বিকালের মধ্যেই ভাড়ার হার ঠিক করবে। ১০ আগস্ট এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

সরকার গত শুক্রবার সব ধরনের জ্বালানি তেলের দাম ৪২ থেকে সর্বোচ্চ ৫১ শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়েছে। ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ৩৪ টাকা বাড়িয়ে ১১৪ টাকা করা হয়েছে। পেট্রলের দাম লিটারে ৪৪ টাকা বাড়িয়ে ১৩০ টাকা করা হয়। অকটেনের দাম লিটারে ৪৬ টাকা বেড়ে ১৩৫ টাকায় গিয়ে ঠেকেছে।

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির পর লঞ্চ মালিকরা লঞ্চভাড়া দ্বিগুণ করার প্রস্তাব করেন। লঞ্চভাড়া প্রথম ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত প্রতি কিলোমিটার ২ টাকা ৩০ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৪ টাকা ৬০ পয়সা করার প্রস্তাব দেন। এ ছাড়া ১০০ কিলোমিটারপরবর্তী প্রতি কিলোমিটারের ভাড়া ২ টাকার জায়গায় ৪ টাকার প্রস্তাব করেন।

এ নিয়ে লঞ্চ মালিকদের সঙ্গে গতকাল সচিবালয়ে বৈঠকে বসেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। আধা ঘণ্টার বৈঠক শেষে নৌপরিবহন সচিব সাংবাদিকদের বলেন, তারা (লঞ্চ মালিকরা) লঞ্চের ভাড়া দ্বিগুণ করার প্রস্তাব দিয়েছেন। কিন্তু তারা যে প্রস্তাব দিয়েছেন, তা অনেক বেশি। তিনি আরও বলেন, ভাড়া এত বাড়ানো হবে না; আরও কম হবে। ভাড়া পুনর্নির্ধারণের আগ পর্যন্ত বর্তমান ভাড়া কার্যকর থাকবে বলেও জানান মোস্তফা কামাল।

বৈঠকে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল সংস্থার সহসভাপতি সাইদুর রহমান বলেন, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার কারণে নৌপথে যাত্রী কমে গেছে। এ জন্য গুলিস্তান থেকে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল পর্যন্ত রাস্তাটি যাত্রীদের চলাচলের জন্য সহজ করার দাবি জানান তিনি।

এ বিষয়ে নৌ সচিব বলেন, গুলিস্তান থেকে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল পর্যন্ত সড়ক দিয়ে যাত্রী চলাচল সহজ করতে সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে। এ সময় তিনি বলেন, শুধু সদরঘাটের কথা বিবেচনা করে ভাড়া নির্ধারণ হবে না। সারা দেশের মানুষের কথা বিবেচনা করে ভাড়া ঠিক করা হবে, যাতে যাত্রীদের ওপর চাপ তৈরি না হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ভাড়া পুনর্নির্ধারণে গঠিত সাত সদস্যের কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ফেরদৌস আলমকে। সদস্য সচিব করা হয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) পরিচালক রফিকুল ইসলামকে। কমিটির অন্য সদস্যের মধ্যে সড়ক ও পরিবহন মন্ত্রণালয়, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগ এবং বিআইডব্লিউটিএর প্রতিনিধি রাখা হয়েছে। জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির পর ইতোমধ্যে দূরপাল্লার বাসের ভাড়া ২২ দশমিক ২২ শতাংশ আর ঢাকা, চট্টগ্রামসহ মহানগরগুলোয় বাসের ভাড়া ১৬ দশমিক ২৭ শতাংশ ভাড়া বাড়ানো হয়েছে।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) ফেরি ও যাত্রীবাহী জাহাজের ভাড়া ২০ শতাংশ বেড়েছে গত ১৬ জুন। ১৯ জুন থেকে তা কার্যকর হয়েছে।

ওই সময় বিআইডব্লিউটিসির কর্মকর্তারা জানান, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে ফেরি ও জাহাজ চালাতে গিয়ে গত ছয় মাসে অতিরিক্ত ২০ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। ভাড়া বাড়িয়ে তেলের ক্ষেত্রে যাতে ব্রেক ইভেনে (আয়-ব্যয় সমান) থাকতে পারি, সেই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে ছয়টি রুটে বিআইডব্লিউটিসি ফেরিতে গাড়ি পারাপার করছে। বিআইডব্লিউটিসি পরিচালিত ছয়টি ফেরি রুট হলো, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া, আরিচা-কাজিরহাট, শিমুলিয়া-বাংলাবাজার/মাঝিরকান্দি, চাঁদপুর-শরীয়তপুর, ভোলা-লক্ষ্মীপুর এবং লাহারহাট-ভেদুরিয়া। এ ছাড়া ঢাকা-বরিশাল-মোরেলগঞ্জ, চট্টগ্রাম থেকে সন্দ্বীপ, হাতিয়া, দৌলতখান ও বরিশাল এবং ঢাকা-কালীগঞ্জ রুটে চলে সংস্থাটির বেশকিছু যাত্রীবাহী নৌযান। বর্তমানে সংস্থাটির বহরে ১০২টি ফেরি ও যাত্রীবাহী নৌযান রয়েছে। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে এক থেকে তিন টন পণ্যবাহী ছোট ট্রাক বা কাভার্ডভ্যানের ভাড়া ৭৪০ থেকে বেড়ে ৯০০ টাকা, ৩-৫ টনের ট্রাকের ভাড়া ৮৮০ থেকে বেড়ে ১ হাজার ১০০ টাকা হয়েছে। ৫-৮ টন পণ্যবাহী ট্রাক, লরি ও কাভার্ডভ্যানের ভাড়া এক হাজার ৬০ থেকে বাড়িয়ে এক হাজার ৩০০ টাকা এবং ৮-১১ টনের বড় ট্রাক ও লরির ভাড়া এক হাজার ৪৬০ থেকে বাড়িয়ে ১ হাজার ৮০০ টাকা করা হয়েছে।

এ রুটের মিনিবাস বা কোস্টার ৯০০ থেকে বেড়ে এক হাজার ৫০ টাকা, মাঝারি মাপের বাস দিনে এক হাজার ৫৮০ টাকার স্থলে এক হাজার ৮৩০ টাকা এবং রাতে এক হাজার ৬২০ টাকার স্থলে এক হাজার ৮৭০; বড় বাসে এক হাজার ৮২০ টাকার স্থলে দুই হাজার ১৬০ টাকা ভাড়া ধরা হয়। এ ছাড়া মাইক্রোবাস ও অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া ৮০০ টাকার স্থলে এক হাজার টাকা, পাজেরো ৭৩০ টাকার স্থলে ৯০০ টাকা, কার ও জিপ ৪৫০ টাকার স্থলে ৫৪০ টাকা, মোটরসাইকেল ৭০ টাকার ৯০ টাকা করা হয়।

শিমুলিয়া-বাংলাবাজার বা মাঝিরকান্দি রুটে এক থেকে তিন টন পণ্যবাহী ছোট ট্রাক বা কাভার্ডভ্যানের ভাড়া ৯৮০ থেকে বাড়িয়ে এক হাজার ২০০ টাকা, ৩-৫ টনের ট্রাক এক হাজার ৮০ থেকে বেড়ে এক হাজার ৩০০ টাকা করা হয়েছে। এ ছাড়া ৫-৮ টন পণ্যবাহী ট্রাক, লরি ও কাভার্ডভ্যানের ভাড়া এক হাজার ৪০০ থেকে বেড়ে এক হাজার ৭০০ টাকা এবং ৮-১১ টনের বড় ট্রাক ও লরির ভাড়া এক হাজার ৮৫০ থেকে বেড়ে দুই হাজার ২২০ টাকা হয়েছে।

এ রুটের মিনিবাস বা কোস্টার এক হাজার ২০০ থেকে বেড়ে এক হাজার ৪০০ টাকা, মাঝারি মাপের বাস দিনে এক হাজার ৭৮০ টাকার স্থলে দুই হাজার ৮০ টাকা এবং রাতে এক হাজার ৮২০ টাকার স্থলে দুই হাজার ১২০ টাকা করা হয়েছে। এ ছাড়া বড় বাসে এক হাজার ৯৪০ টাকার স্থলে দুই হাজার ২৬০ টাকা ভাড়া গুনতে হবে।

এ রুটে মাইক্রোবাস ও অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া ৮৬০ টাকার স্থলে এক হাজার ৫০ টাকা, পাজেরো গাড়ি ৮০০ টাকার স্থলে এক হাজার টাকা, কার ও জিপ ৫০০ টাকার স্থলে ৬০০ টাকা এবং মোটরসাইকেল ৭০ টাকার স্থলে ৯০ টাকা করা হয়েছে। একইভাবে অন্যান্য রুটের ভাড়া বেড়েছে। এখন আবার ২০ শতাংশ ফেরির ভাড়া বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয় গতকালের বৈঠকে। তবে প্রজ্ঞাপন জারি হয়নি।