রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইইউ আরো এক লাখ ২০ হাজার শরণার্থী নেবে

news-image

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সবচেয়ে বড় সমস্যা শরণার্থী সংকট মোকাবিলায় নতুন কোটা পরিকল্পনার ঘোষণা দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। ২৮ দেশের এ জোটের প্রেসিডেন্ট জ্যঁ ক্লুদ জুংখা গতকাল বুধবার সদস্য দেশগুলোকে অতিরিক্ত এক লাখ ২০ হাজার শরণার্থী নিজেদের মধ্যে বণ্টন করে নেওয়ার জোরালো আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি ইতালি, গ্রিস ও হাঙ্গেরি- এই তিন দেশে অবস্থান করা ওই শরণার্থীদের বাধ্যতামূলকভাবে স্থানান্তরের প্রস্তাব করেছেন।

অবশ্য গতকাল জুংখার এ কোটা পরিকল্পনা ঘোষণার আগ মুহূর্তে জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল আনুপাতিক হারে শরণার্থীদের আশ্রয় দিতে ইইউয়ের দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান। এ ক্ষেত্রে তিনি সর্বোচ্চ সীমা বা সংখ্যা নির্ধারণের বিরোধিতা করেন। এরই মধ্যে জার্মানি প্রতিবছর পাঁচ লাখ করে আগামী কয়েক বছর শরণার্থী নিতে পারে বলে ঘোষণা দিয়েছে। এ বছর দেশটিতে আট লাখ শরণার্থী ভিড়বে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

ইইউয়ের দেশগুলোতে শরণার্থী বণ্টনের প্রশ্নে গত মে মাসে একই ধরনের আরেকটি পরিকল্পনা ঘোষণা করা হয়। তখন ইতালি ও গ্রিস থেকে ৪০ হাজার শরণার্থীকে ইউরোপের অন্য দেশে পাঠানোর প্রস্তাব করা হয়। সব মিলিয়ে অতিরিক্ত এই এক লাখ ৬০ হাজার শরণার্থীর গন্তব্য নিয়ে জুংখার উত্থাপিত পরিকল্পনা নিয়ে আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর আলোচনায় বসবেন ইইউভুক্ত দেশগুলোর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীরা। ওই বৈঠকে সবাইকে ঐকমত্যে পৌঁছানোর আহ্বান জানিয়েছেন ইইউ প্রেসিডেন্ট। ফ্রান্সের স্ত্রসবার্গে ইউরোপীয় পার্লামেন্টে দেওয়া প্রথম স্টেট অব দ্য ইউনিয়ন ভাষণে জুংখা শরণার্থীদের আশ্রয় দেওয়ার প্রশ্নে ধর্মের বিষয় সামনে না আনার ব্যাপারেও সতর্কতা উচ্চারণ করেন।

হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর ওরব্যান গত সপ্তাহে বলেন, মূলত মুসলমান শরণার্থীরা ইউরোপে আসছে। তাদের আগমনে ওই মহাদেশের খ্রিস্টান সংস্কৃতি হুমকির মুখে পড়তে পারে বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

চলতি বছর এ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে তিন লাখ শরণার্থী ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে পা রেখেছে। জাতিসংঘ মঙ্গলবার বলেছে, তাদের অনুমান আগামী বছরের মধ্যে কমপক্ষে সাড়ে আট লাখ শরণার্থী ইউরোপে প্রবেশ করবে। ইইউয়ের নতুন প্রস্তাব অনুযায়ী, যেসব শরণার্থী এখন ইতালি, গ্রিস ও হাঙ্গেরিতে রয়েছে তাদের ৬০ শতাংশ জার্মানি, ফ্রান্স ও স্পেনের মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হতে পারে। এ ছাড়া কোন দেশ কতজন শরণার্থী নেবে সে বিষয়ে বাধ্যতামূলক কোটার প্রস্তাবও রাখা হয়েছে। শরণার্থী বণ্টনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দেশের জিডিপি (মোট দেশজ উৎপাদন), জনসংখ্যা, বেকারত্বের হার এবং ইতিমধ্যে দেশটিতে আশ্রয়ের জন্য আবেদন করা শরণার্থীর সংখ্যা বিবেচনায় নেওয়া হবে। এ ছাড়া কোনো দেশ যদি শরণার্থী গ্রহণে অস্বীকৃতি জানায়, তাহলে আর্থিক জরিমানার বিধানেরও প্রস্তাব করা হয়েছে।

তবে নতুন প্রস্তাবে যে বাধ্যতামূলক কোটার বিধান রাখা হয়েছে, চেক প্রজাতন্ত্র, স্লোভাকিয়া, পোল্যান্ড ও রোমানিয়া তার বিরোধিতা করেছে। তবে পোল্যান্ড এরই মধ্যে কিছুটা নমনীয় হয়েছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী এভা কোপাট মঙ্গলবার জানান, এর আগে তাঁরা যে দুই হাজার শরণার্থীকে আশ্রয় দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন, সেই সংখ্যা আরো বাড়াতে চান তিনি। তবে হাঙ্গেরি তার আগের কঠোর অবস্থান থেকে সরে আসেনি। সার্বিয়া সীমান্ত দিয়ে যাতে কোনো শরণার্থী তাদের ভূখণ্ডে প্রবেশ করতে না পারে সে জন্য কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণের কাজ শুরু করেছে তারা। মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকার দেশগুলো থেকে যেন আর কাউকে স্বদেশ ছাড়তে বাধ্য হতে না হয় সে জন্য ওই সব দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নয়নে সহযোগিতা করাসহ মানবপাচার প্রতিরোধের পরিকল্পনার কথাও উল্লেখ করা হয়েছে ইইউয়ের প্রস্তাবে।

রক্তক্ষয়ী সংঘাত ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতির কারণে মূলত সিরিয়ার নাগরিকরা মরিয়া হয়ে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে প্রবেশ করছে। এ দলে আছে ইরাক, আফগানিস্তান ও আফ্রিকার কয়েকটি দেশের নাগরিকও। মেসিডোনিয়া প্রথমে সীমান্তে শরণার্থীদের আটকে রাখলেও পরে তাদের ভূখণ্ডে প্রবেশ করতে দেয়। শরণার্থীরা যাতে অস্ট্রিয়া কিংবা জার্মানিতে যেতে না পারে সে জন্য ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছিল হাঙ্গেরি।

এমন পরিস্থিতিতে তুরস্কের সৈকতে ভেসে আসা সিরীয় শিশু আয়লান কুর্দির (৩) মরদেহের ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশের পর শরণার্থী সংকট বিষয়ে ইউরোপীয় নেতাদের ভূমিকা নিয়ে বিশ্বব্যাপী কড়া সমালোচনা শুরু হয়। এর পর অনেক নেতাই সুর নরম করেন। ব্রিটেন ২০ হাজার শরণার্থী নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। অন্যদিকে শরণার্থী প্রশ্নে কঠোর নীতিতে অটল অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবোট ১২ হাজার সিরীয় শরণার্থী নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

গত সোমবার সকাল পর্যন্ত কেবল জার্মানিতেই প্রবেশ করেছে ২৬ হাজারের বেশি শরণার্থী। ওই দিন মেসিডোনিয়ায় ঢুকেছে সাত হাজার। গ্রিসের লেসবস দ্বীপসহ কয়েকটি স্থানে অবস্থান করছে প্রায় ৩০ হাজার আশ্রয়প্রত্যাশী মানুষ। এ ছাড়া বিপৎসংকুল ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপ অভিমুখে স্বদেশ ছাড়া অসহায় মানুষের ঢল অব্যাহত রয়েছে। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।

 

এ জাতীয় আরও খবর

দুদকের মামলা স্থগিতে বদির আবেদন খারিজ

সকালে তীব্র, দুপুরে সহনীয় যানজট

অর্থ আত্মসাৎ: নর্থ সাউথের চার ট্রাস্টিকে গ্রেফতারের নির্দেশ

‘মুজিব’ সিনেমার ট্রেলার দেখে সবাই কেন হতাশ তার কারণ পাচ্ছেনা পরিচালক

হয়রানির শিকার বলিউড অভিনেত্রী দিয়া মির্জা

অ্যান্থনি নরম্যান আলবানিজকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

উত্তরায় নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

আজ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু

কাশিমপুর কারাগারে নারী হাজতির মৃত্যু

সিঙ্গাপুরের হেড কোচ হলেন সালমান বাট

ধানুশের আসল বাবা-মা নাকি তারাই! মানতে নারাজ অভিনেতা

পাকিস্তানি নারীর ‘প্রেমের ফাঁদে’ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাচার, ভারতীয় সেনা গ্রেপ্তার