বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নিরাপদ সড়ক চাই, আমৃত্যু চলবে লড়াই

elias kanchanআমি হতাশ নই। ২১ বছর ধরে নিজের মতো করে লড়াই করছি। ভবিষ্যতেও করে যাব। আমার স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চনের মৃত্যুর পর প্রতিজ্ঞা করেছিলাম, সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে কাজ করব। সত্যি কথা বলতে কী, সড়ক দুর্ঘটনা রোধে কোনো সরকারের কাছ থেকে তেমন কোনো সহযোগিতা পাইনি। সরকার যদি কোনো কিছুতে থাকে, তাতে মানুষের আস্থা বাড়ে। যেকোনো আন্দোলন করতে গেলে টাকা লাগে। প্রচারের জন্যও দরকার অনেক অর্থ। তাই সরকারের কাছে প্রস্তাব দিলাম, সড়ক দুর্ঘটনা রোধের আন্দোলনে আর্থিক সহযোগিতা করতে। সরকার আশ্বাসও দিল। বর্তমান বাজেটের আগের বাজেটে ২০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার ঘোষণা শুনলাম অর্থমন্ত্রীর কাছে। আমি সেই টাকা আনতেও গেলাম। কিন্তু আজ পর্যন্ত সেই টাকা পাইনি। আর বর্তমান বাজেটে তো কোনো টাকাই রাখা হয়নি। তারপরেও আমি হাল ছাড়িনি। ব্যক্তিগতভাবে নিজের মতো করে কাজ করছি। সেই কাজ করতে গিয়ে আমি বেশকিছু বিষয় বুঝতে পেরেছি-


এক. সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হলে মানুষ কার কাছে যাবে তা খুঁজে পায় না। কী কী করবে তাও বুঝে উঠতে পারে না। বলতে গেলে তারা অসহায় থাকে। এ জন্য আমি বারবার বলে আসছি, একটি উচ্চ পর্যায়ের বিভাগ গঠন করবে। ওই বিভাগে একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটিও থাকবে। তাতে যোগাযোগ মন্ত্রণালয় ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবরা থাকবেন। তাদের সমন্বয়ে এ কমিটির কার্যক্রম মনিটরিং করতে পারেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। সড়ক দুর্ঘটনা কমানো, সড়ক দুর্ঘটনার শিকার, ক্ষতিপূরণ, মামলা ও বিচারের পুরো বিষয়টি ওই কমিটি দেখভাল করবে। আমি আবারও দাবি করছি, সড়ক দুর্ঘটনা ৫০ ভাগ কমিয়ে আনতে অবিলম্বে উচ্চ পর্যায়ের একটি বিভাগ গঠন করা হোক।


দুই. আমাদের দেশের সড়ক দুর্ঘটনার মূল কারণ চালকের অদক্ষতা ও খামখেয়ালিপনা। অনেক চালক এক নাগাড়ে সাতদিন গাড়ি চালান। একজন মানুষ যদি টানা সাত দিন গাড়ি চালাতে থাকেন, তাহলে কেন দুর্ঘটনা হবে না? আর অধিকাংশ চালকই অদক্ষ। তাদের প্রশিক্ষণেরও কোনো ব্যবস্থা করা হয় না। অথচ বিদেশে চালকদের সাপ্তাহিক ও মাসিক ট্রেনিং দেয়া হয়। আমেরিকায় কোনো চালক যদি অপরাধ করে, তখন আদালত তাকে বলেন, ‘আপনাকে ৩০০ ডলার জরিমানা করা হবে যদি না আপনি ট্রেনিং করতে না রাজি হন।’ আমি ভারতে দেখেছি, কোনো বাসের গায়ে আঁচড় নেই। অথচ সেখানে অনেক পুরনো বাস চলছে। মুড়ির টিন বলি যাকে। তাতেও সামান্য দাগ নেই। অথচ আমাদের ঢাকা শহরে কী দেখি, সব বাসে আঁচড় রয়েছে। তার মানে কী? সব বাস অন্য যানবাহনের সঙ্গে ঘষা খেয়েছে। আমি নেপালের মতো দেশেও দেখেছি, কোনো বাসের গায়ে সামান্য দাগ নেই।


তিন. আমাদের একটি দাবি ছিল, সড়ক দুর্ঘটনা কমানোর জন্য হাইওয়ে পুলিশ বিভাগ গঠন করতে হবে। সড়কে ডিভাইডার সৃষ্টি করতে হবে। আমাদের সেই দাবি অনুযায়ী কিছু কিছু কাজ করেছে সরকার। কিন্তু হাইওয়ে পুলিশদের কোনো ক্ষমতা নেই। আমি ভারতে দেখেছি, হাইওয়ে পুলিশ কতটা আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করছে। ভারতের হাইওয়ে পুলিশ কয়েক কিলোমিটার পরপর বাসের অবস্থা পরীক্ষা করছে। আমাদের দেশে হাইওয়ের ওপর কোনো নজরদারি নেই। চালকরা ইচ্ছামতো গাড়ি চালাচ্ছে। অনেকে নেশা করেও গাড়ি চালাচ্ছে।


চার. সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষ মারা যায় রক্তক্ষরণের কারণে। এক ঘণ্টার মধ্যে দুর্ঘটনার শিকার ব্যক্তিকে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারলে তাকে বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব। আমেরিকাসহ পৃথিবীর উন্নত বিশ্বে যেটি আছে তাহল- ২০ কিলোমিটার অন্তর অন্তর সেখানে ট্রমা সেন্টার রয়েছে। হাইওয়েতে কোনো গাড়ি দুর্ঘটনার শিকার হলে তৎক্ষণাৎ উদ্ধারকারী দল সেখানে গিয়ে মানুষজনকে উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করবে। তাই আমি বহুবার বলেছি, হাইওয়ে রাস্তার পাশে এই ধরনের ব্যবস্থা গড়ে তুলতে।

পাঁচ. আমাদের দেশে ভ্রাম্যমাণ আদালত অনেক ক্ষেত্রেই ভালো কাজ করছেন। তাদের পদক্ষেপের কারণে মানুষ উপকৃত হচ্ছে। সড়ক দুর্ঘটনা রোধে আমাদের দেশেও ভ্রাম্যমাণ আদালত কাজ করছেন। কিন্তু গলদটি কোথায়? দেশে সড়ক দুর্ঘটনার অধিকাংশ সংগঠিত হয় হাইওয়েতে। কিন্তু আমাদের দেশের ভ্রাম্যমাণ আদালত বসেন মহানগরের মধ্যে। যদি হাইওয়েতে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসানোর ব্যবস্থা করা যায়, তাহলে দুর্ঘটনা কমে আসবে।


ছয়. সড়ক দুর্ঘটনায় নির্বিচারে প্রাণহানি ঘটে চলেছে। যাদের অবহেলায় এই মৃত্যু হয়, তাদের কিছুই হয় না। না হয় তাদের কোনো শাস্তি, না দিতে হয় কোনো ক্ষতিপূরণ। সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষ নিহত হলে বাসচালককে গ্রেফতার করে পুলিশ। যেদিন গ্রেফতার হয় সেদিনই তিনি জামিনে বেরিয়ে আসেন। এ অপরাধটি কি জামিন অযোগ্য করা যায় না?


সাত. আমার সত্যি কষ্ট হয়, সরকার যখন ঘোষণা করে, দেশে প্রতি বছর মাত্র ২ হাজার লোক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায়। আমার নিজের একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল রয়েছে। নিরাপদ নিউজ ডটকম নাম। দেশের জাতীয় সংবাদপত্রের কাটিং থেকে আমরা প্রতি বছর সড়ক দুর্ঘটনা কত হয় তার সংখ্যা প্রকাশ করে থাকি। আমার ব্যক্তিগত মত, প্রতি বছর দেশে ১৩ থেকে ১৫ হাজার লোক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন। বিশ্বব্যাংকসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান যদিও বলছে, ২০ হাজারের অধিক লোক প্রতি বছর মারা যান। আমাদের দেশে আর কোনো দুর্ঘটনায় এত লোকের প্রাণহানি ঘটে না। অথচ কত লোক মারা যায় তার নির্ভরযোগ্য কোনো সূত্র নেই। নেই কোনো তথ্যভাণ্ডার।

আট. আমি আবারও বলছি। আমি হাল ছাড়িনি। ছাড়বও না। যত কষ্টই হোক জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন করে যাব। আমি সাংবাদিকদের কাছে ঋণী। গণমাধ্যমের কাছে ঋণী। তাদের সমর্থন, সহযোগিতায় আমি এতদূর এসেছি। তারা যদি পাশে থাকে, আমরা জয়ী হব নিশ্চয়। জনগণ এগিয়ে না এলে কখনও শতভাগ সাফল্য আসবে না। জনগণকে আমাদের আন্দোলনে সাড়া দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। তাদের সহযোগিতাতেই আমরা এগিয়ে যাব।
লেখক : চিত্রনায়ক ও ‘নিরাপদ সড়ক চাই’-এর চেয়ারম্যান

 

এ জাতীয় আরও খবর

৮৭ হাজার টাকার মদ খান পরীমণি, পার্সেল না দেওয়ায় চালান তাণ্ডব

যুদ্ধ পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ঢাকায় আসছেন শনিবার

পি কে হালদারের বিরুদ্ধে প্রথম চার্জশিট দিচ্ছে দুদক

কেমন ছিল জিম্মিদশার দিনগুলো, জানালেন জাহাজের ক্যাপ্টেন রশিদ

ইসরায়েলে ড্রোন হামলা হিজবুল্লাহর, ১৪ সেনাসদস্য আহত

হাথুরুকে নিয়ে ধোঁয়াশা নেই, ২১ এপ্রিল রাতে ফিরছেন ঢাকায়

উপজেলা নির্বাচন সরকারের আরেকটা ভাওতাবাজি : আমীর খসরু

গরমে গতি কমিয়ে ট্রেন চালানোর নির্দেশ

পশ্চিমবঙ্গে ৪৬ ডিগ্রিতে পৌঁছাবে তাপমাত্রা

গুলশানে চুলোচুলি করা সেই ৩ নারী গ্রেপ্তার

দায়িত্বশীল ও টেকসই সমুদ্র ব্যবস্থাপনার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর