রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রবাসে বাংলাদেশি রাজনীতিকে দুর্ভাগ্যজনক বললেন নিউইয়র্ক পুলিশ অফিসার জামিল সরোয়ার জনি

jamilবিদেশ বিভুঁইয়ে বাংলাদেশ ভিত্তিক রাজনীতি চর্চাকে চরম দুর্ভাগ্য ও হতাশাজনক বলে মনে পরেন নিউইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্ট NYPD-এর পদকপ্রাপ্ত চৌকস কর্মকর্তা Jamil Sarwar Jony। বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত এই পুলিশ অফিসার দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন, ‘‘প্রবাসে যদি সত্যিসত্যিই কেউ দেশপ্রেমের বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে চান তথা বাংলাদেশকে ভালোবেসে কিছু করতে চান তাহলে সবারই উচিত বাংলাদেশি নোংরা রাজনীতি পরিহার করা। যোগ্যতা ও সাধ্য অনুযায়ি এক্ষেত্রে তাদের উচিত নিজ নিজ দেশের মেইনস্ট্রিম রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে অংশ নেয়া।’’ বিদেশের মাটিতে সংশ্লিষ্ট দেশের মূলধারার রাজনীতিতে সার্থক অংশগ্রহনের মধ্য দিয়েই একজন প্রবাসীর পক্ষে সম্ভব হতে পারে বাংলাদেশের কল্যানে কিছু করার, এমনটাই মনে করেন তিনি। 



নিউইয়র্কে দুই গ্রুপের মুখোমুখি অবস্থানের প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সংবর্ধনা বাতিল হয়ে যাবার দুঃখজনক ঘটনার প্রেক্ষিতে ১৮ জুন বুধবার এই প্রতিবেদকের সাথে কথা বলছিলেন নিউইয়র্কের আলোচিত পুলিশ অফিসার জামিল সরোয়ার জনি। প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ‘‘এ আর নতুন কি। কঠিন বাস্তবতা আমলে নিয়ে হয়তো এ ধরণের সংবর্ধনা আয়োজনের প্রয়োজনও ছিলো না। তাছাড়া রাজনীতির নামে নোংরামির খেলায় একজন সম্মানিত ব্যক্তিকে অপমান করারও কোন মানে হয় না। যারা এসব করে তারা শুধু পদের জন্য বা নমিনেশন পাবার জন্যই এসব করে থাকে। যা হচ্ছে এখানে তা আমাদের জন্য এক কথায় লজ্জা, লজ্জ্জা এবং শুধুই লজ্জার। কি সরকারি দল কি বিরোধী দল কোন পক্ষেরই উচিত নয় ভিনদেশের মাটিতে দেশি রাজনীতি চর্চা করে মাতৃভূমির মানসম্মান বিনষ্ট করা।’’ 



প্রভাবশালী এই পুলিশ কর্মকর্তা আরো জানান, ‘‘নিউইয়র্কে দেখা যাচ্ছে বাংলাদেশের একই জেলার ২৭ টি সমিতি বা সংগঠন, তাদের মধ্যে আবার আভ্যন্তরিণ অশান্তি। দুঃখজনক হলেও সত্য, বাংলাদেশের ইউনিয়ন ভিত্তিক ভিলেজ পলিটিক্সও চলে এখানে।’’ উল্লেখ করা যেতে পারে, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দায়িত্ব পালন করার স্বীকৃতিস্বরূপ সম্প্রতি নিউইয়র্ক পুলিশ সদর দপ্তরে আয়োজিত ‘এশিয়ান হেরিটেজ নাইট’ শীর্ষক এক বিশেষ অনুষ্ঠানে জামিল সরোয়ার জনির হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন পুলিশ কমিশনার উইলিয়াম জে. ব্রাটন। ২০১৩ সালের ৪ জুলাই ব্রুকলিনের সাইপ্রাস হিল এলাকায় ডিউটিতে থাকা অবস্থায় সন্ত্রাসীদের গুলীতে মারাত্মকভাবে জখম হন বাংলাদেশের গৌরব এই দুঃসাহসী অফিসার। একই বছর নিউইয়র্ক স্টেটের পক্ষ থেকে আমেরিকান ল’ এনফোর্সমেন্টের সর্বোচ্চ সম্মানজনক পদক ‘পারপল হার্ট’ লাভ করেন তিনি। 



দক্ষিণ বাংলাদেশের পিরোজপুর জেলার অ্যাডভোকেট সরোয়ার হোসেন এবং স্থানীয় সোহরাওয়ার্দী কলেজের সাবেক প্রিন্সিপ্যাল রেনু সুলতানার সুযোগ্য সন্তান জামিল সরোয়ার জনির যুক্তরাষ্ট্রে আগমন মাত্র ৮ বছর আগে। ২০১২ সালে তিনি নিউইয়র্ক পুলিশের ‘অপারেশন ইমপ্যাক্ট’ ইউনিটে যোগদান করেন এবং শুরু থেকেই অসীম সাহসিকতা ও নৈপুন্যের পরিচয় দিয়ে ডিপার্টমেন্টে বিশেষ আস্থা অর্জনে সক্ষম হন।