সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তাঁর শাসনামল ফরমালিনের যুগ: ফখরুল

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বর্তমান শাসনামলকে ‘ফরমালিনের যুগ’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।প্রধানমন্ত্রীর গতকালের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেছেন, ‘তাঁর শাসনামলের যুগ ফরমালিনের যুগ।রাজনীতি, অর্থনীতি ও সমাজে ফরমালিনের প্রয়োগ তাঁরা খুব দক্ষভাবে করছেন।’



আজ রোববার দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল এ কথা বলেন।গতকাল শনিবার দেওয়া প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানাতে বিএনপি এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।



মির্জা ফখরুল বলেন, বিএনপি কারও দয়ায় চলে না।জনগণের ভালোবাসা আর সমর্থন নিয়েই বিএনপি এগিয়ে চলছে। জামায়াতে ইসলামীর বিচার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, জামায়াত সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য আরও পর্যবেক্ষণ করতে হবে।তবে আওয়ামী লীগ তাদের আগের অবস্থানে আছে কি না তা নিয়ে আওয়ামী লীগের লোকজনের মধ্যেই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করে ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর বক্তব্যের মধ্যে রাজনৈতিক শিষ্টাচার থাকে না।রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে অরাজনৈতিক ভাষায় অবলীলায় আক্রমণে তিনি দ্বিধা করেন না।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তাঁর (প্রধানমন্ত্রী) বক্তব্যে স্বৈরতান্ত্রিক, একনায়কতান্ত্রিক ও ফ্যাসিবাদী চেহারা প্রকটভাবে ফুটে উঠেছে।’

প্রধানমন্ত্রীর বিএনপিকে অবৈধ বলা প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের যে বিধিবিধানে বিএনপির জন্ম হয়েছে, ’৭৫-পরবর্তী সেই বিধিবিধানেই আওয়ামী লীগের পুনর্জন্ম হয়েছে।তাই বিএনপিকে অবৈধ বলার সঙ্গে সঙ্গে আওয়ামী লীগের জন্মের বিষয়টিও দেখতে হবে।

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করে বিএনপির এই নেতা বলেন, তিনি বিচারকদের হুমকি দিতেও ছাড়েননি।প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে তিনি বিচারকদের হুমকি দিয়েছেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে জোর করে ক্ষমতা ধরে রেখেছে।অবিলম্বে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, তখন দেখা যাবে কারা বৈধ, কারা অবৈধ।

শেখ হাসিনা প্রচণ্ড অহংকার নিয়ে সরকার পরিচালনা করছেন মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল, ‘তিনি (প্রধানমন্ত্রী) বলেছেন আই ডোন্ট কেয়ার। এর মাধ্যমে প্রমাণ হলো, তিনি জনমতের কোনো পরোয়া করেন না।’