বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিশ্বকাপের কিংবদন্তি জিনেদিন জিদান: বল পায়ে যিনি ছিলেন ‘অতিমানব’

দুয়ারে বিশ্বকাপ। এ উপলক্ষে বিশ্বকাপের সেরা ১০ কিংবদন্তির সঙ্গে পাঠকদের নতুন করে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছি আমরা। সপ্তম পর্বে আজ থাকছে ফরাসি কিংবদন্তি জিনেদিন জিদানকে নিয়ে বিশেষ রচনা—

জিদান কি অতিমানব ছিলেন? প্রশ্নটি শুনে অনেকেই হাসবেন। তিনি অতিমানব হতে যাবেন কেন? তিনি ছিলেন আর দশজনের মতোই রক্ত-মাংসে গড়া একজন মানুষ। রক্ত-মাংসের মানুষ ছিলেন বলেই ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচে মাতেরাজ্জিকে দিয়েছিলেন অমন এক ঢুস। মাতেরাজ্জির সেই কুখ্যাত ‘খিস্তি’ সহ্য করে তিনি যদি ছোট্ট একটা হাসি দিতেন, তবেই তাঁকে ‘অতিমানব’ হিসেবে অভিহিত করা যেত। কিন্তু তিনি তা করেননি, আর করেননি বলেই লালকার্ডের খড়্গ নেমে এসেছিল তাঁর ওপর। বিশ্বকাপ ফাইনালের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে তাঁর সেবা থেকে বঞ্চিত হয়েছিল তাঁর দেশ।

কিন্তু ফুটবল মাঠে তাঁর ক্যারিকেচার দেখলে তাঁকে অতিমানবই মনে হতে পারে। কী অবলীলায় তিনি প্রতিপক্ষের একের পর এক খেলোয়াড়কে ফাঁকি দিয়ে বল নিয়ে এগিয়ে যেতেন। বলটাকে পায়ের সঙ্গে এমনভাবে আটকে রাখতেন মনে হতো যেন ওটা তাঁর কোনো ঐশ্বরিক নিয়ন্ত্রণের দাস। দৌড়রত অবস্থায় বলে ওপরের অংশে পা দিয়ে তিনি ঘুরিয়ে দিতে পারতেন তাঁর গতি-প্রকৃতি। চেষ্টা করলে যে কেউই কি বলের সঙ্গে অমন সখ্য গড়তে পারবেন? মনে তো হয় না। এই জায়গাতেই তিনি ‘অতিমানব’, অনন্য, অসাধারণ এক ফুটবল প্রতিভা।

জিদানকে অনেকেই পেলে-ম্যারাডোনার পর সবচেয়ে বড় ফুটবল প্রতিভা হিসেবে চিহ্নিত করেন। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ওই দুই ফুটবল কিংবদন্তির সমকক্ষ হতে হলে যা যা থাকা দরকার, তার সবটাই ছিল জিদানের মধ্যে। দেশকে বিশ্বকাপ জিতিয়েছেন। নিজের খেলা দিয়ে দেশের ফুটবলকে নিয়ে গেছেন অন্যরকম উচ্চতায়। তাঁর সময়ে অমন আর একজন ফুটবলারও কি পাওয়া যাবে?

বিশ্ব একটু দেরি করেই চিনেছিল ফুটবলের এই রাজাকে। নব্বইয়ের দশকের শুরুতে ক্যারিয়ার শুরু করা জিদানকে বিশ্বকাপের জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছে অনেক দিন। ১৯৮৬-এর বিশ্বকাপে ঝড় তোলা প্লাতিনি-টিগানার ফ্রান্স বাছাইপর্বের বাধা পেরোতে পারেনি পরপর দুটো বিশ্বকাপে (১৯৯০, ১৯৯৪)। আটানব্বইয়ে দেশের মাটিতে বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পেয়েই নিজের জাত চিনিয়েছেন জিদান। প্রায় একক প্রচেষ্টায় ফ্রান্সকে প্রথমবারের মতো এনে দেন বিশ্বকাপ জয়ের গৌরব। ফাইনালে ব্রাজিলের বিপক্ষে সেই অসাধারণ দুটি গোলই তাঁকে তুলে দিয়েছিল ফুটবলের ‘হল অব ফেমে’। ২০০৬ সালে তিনি যেন নিজেকেও ছাড়িয়ে গিয়েছিলেন। ফ্রান্সকে আবারও একাই ফাইনালে তুললেও এবার আর জয় এনে দিতে পারেননি। বরং রক্ত-মাংসের মনুষ্য-প্রবৃত্তির কাছে আত্মসমর্পণ করে ট্র্যাজিক নায়ক হিসেবেই শেষ হয়েছে তাঁর ক্যারিয়ার।

২০০২ সালের বিশ্বকাপের কথা বলা হয়নি? জিদানের ব্যাপারে এই বিশ্বকাপ নিয়ে আসলে বলার কিছু নেইও। চোটের কারণে সেনেগাল ও উরুগুয়ের বিপক্ষে ফ্রান্সের প্রথম দুটো ম্যাচে খেলেননি তিনি। ডাগআউটে বসেই তিনি দেখেছিলেন নবিশ সেনেগালের কাছে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন নিজ দেশের পরাজয়, উরুগুয়ের বিপক্ষে নির্বিষ ড্র। পুরোপুরি সেরে ওঠার আগেই দলের প্রয়োজনে মাঠে নেমে দেখলেন ডেনমার্কের বিপক্ষে ২-০ গোলের হার, সেই সঙ্গে গায়ে মাখলেন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হিসেবে পরবর্তী বিশ্বকাপে খেলতে এসে ‘সবচেয়ে বাজে ফলে’র গ্লানি। তিনটি ম্যাচে একটি গোলও না করে সেবার প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায় নিয়েছিল ফ্রান্স। ২০০২ বিশ্বকাপের কাহিনিটি বলার একটা বিশেষ কারণ আছে। জিদান নিজেকে ঢেলে দিয়েছিলেন বলেই ১৯৯৮ ও ২০০৬ সালে ফাইনাল অবধি গিয়েছিল ফ্রান্স। ফাইনালে নিজেকে ছাড়িয়েছিলেন বলেই আটানব্বইয়ে ব্রাজিলকে ৩-০ গোলে হারাতে পেরেছিল তাঁর দল। ২০০৬ সালে ফাইনালটা পুরোপুরি খেলতে পারেননি বলেই কী ফ্রান্সের হার? নাহ, এই তর্কটা তোলাই থাক। তবে জিদানের রাজকীয় উপস্থিতিতে ফ্রান্স দলের বাকিরা যে বড্ড বেশি অনুজ্জ্বল—এটা তর্ক ছাড়াই মেনে নেবেন অনেকে।