সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিজয়নগর উপজেলা পরিষদ সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে দুই প্রার্থীর সংশয়

upzila-election-1_14280_01প্রতিনিধি: উপজেলা হওয়ার পর এই প্রথমবারের মতো নির্বাচন হচ্ছে। তাই ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার পূর্বাঞ্চলের দশটি ইউনিয়ন নিয়ে নবগঠিত বিজয়নগর উপজেলা নির্বাচন ঘিরে ভোটারদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ। তবে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন দুই চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। তাঁরা হলেন বিএনপি-সমর্থিত প্রার্থী শরীফুল ইসলাম ও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী কাজী রফিকুল ইসলাম।

২০০৯ সালের ৩ আগস্ট তিতাস নদীর পূর্বপাড়ের এ উপজেলা প্রতিষ্ঠিত হয়। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত অঞ্চল বলে নাম রাখা হয় বিজয়নগর। উপজেলা নির্বাচনের ষষ্ঠ দফায় আজ সোমবার এখানে ভোট গ্রহণ করা হচ্ছে। দশটি ইউনিয়নের ৫৮টি কেন্দ্রে ভোট হবে। এর মধ্যে ৫১টি কেন্দ্রকেই ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। 

সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়ার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করে সহকারী রিটার্নিং বশিরুল হক ভূঁইয়া বলেন, পুরো জেলার মধ্যে একটি উপজেলাতেই নির্বাচন হচ্ছে। সে জন্য সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব হয়েছে।

এত কিছুর পরও শরিফুল ইসলাম আতঙ্কমুক্ত হতে পারছেন না বলে জানালেন। তিনি বলেন, ‘৩১ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর ও আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনে কেন্দ্র দখল, জাল ভোট, এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার যে চিত্র দেখেছি, বিজয়নগরেও তার পুনরাবৃত্তি ঘটতে পারে।’ রফিকুল ইসলামও একই রকমের আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, ‘সরকারদলীয় সাংসদ পুলিশ ও প্রশাসনের পাহারায় তাঁদের প্রার্থীর সমর্থনে এলাকা চষে বেড়িয়েছেন। আমরা প্রয়োজনের সময় ডেকে একজন চৌকিদারও পাইনি।’

জানতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগর) আসনের সাংসদ র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বলেন, ‘আমি দল-সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালাতে পারব না—নির্বাচনী আইনে এমন কোনো বিধিনিষেধ নেই। তবে পুলিশ বা জনপ্রশাসনের কারোর সঙ্গেই নির্বাচন নিয়ে আমার কোনো কথা হয়নি। সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের দায়িত্ব তাঁদের।’ পুলিশ প্রহরা নিচ্ছেন কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এটি একটি মৌলবাদ অধ্যুষিত অঞ্চল। ইতিপূর্বে আমার গাড়িতে হামলা হয়েছে। নিজের নিরাপত্তার জন্য পুলিশের পাহারা নিয়ে থাকি আমি।’

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জহিরুল ইসলাম ভূইয়া বলেন, বিএনপি এখানে দ্বিধাবিভক্ত। বিএনপি এমন একজনকে সমর্থন দিয়েছে, যাঁর কোনো জনসম্পৃক্ততা নেই। তুলনায় বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীর অবস্থান অনেক ভালো। তবে ভোট হিসাব করলেও দুই প্রার্থী নিয়ে বিএনপির বিজয়ের কোনো সুযোগ নেই। এটা বুঝতে পেরেই বিএনপির প্রার্থীরা অমূলক কথা বলে বেড়াচ্ছেন।

নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ছয়জন প্রার্থীর মধ্যে অন্য তিনজন হলেন জাতীয় পার্টি সমর্থিত ইমদাদুল হক, নির্দলীয় প্রার্থী আবদুস সাত্তার ও সাহিদ সিরাজী।