সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পদ্মা সেতুর কাজ পাচ্ছে চায়না মেজর ব্রিজ

padma_51796পদ্মা সেতুর মূল অবকাঠামো নির্মাণে আর্থিক প্রস্তাব জমা দেয়ার শেষ দিন ছিল গতকাল বৃহস্পতিবার। কারিগরিভাবে যোগ্য বিবেচিত তিন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দক্ষিণ কোরিয়ার স্যামসাং সিঅ্যান্ডটি করপোরেশন ও ডেলিম-এলঅ্যান্ডটি জেভি তাদের প্রস্তাব জমা দেয়নি। আর্থিক প্রস্তাব জমাদানকারী একমাত্র প্রতিষ্ঠান হওয়ায় তাই কাজ পেতে যাচ্ছে চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেড।
চায়না মেজর ব্রিজের আর্থিক প্রস্তাব যাচাই-বাছাইয়ের জন্য গতকালই তা পদ্মা সেতুর ক্রয় পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এইকমের কাছে পাঠানো হয়েছে। এইকমের মতামতের পর তা দরপত্র মূল্যায়ন কমিটিতে (টিইসি) যাবে। সবকিছু ঠিক থাকলে জুনের মধ্যেই কার্যাদেশ দেয়া হবে।

যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ প্রসঙ্গে বলেন, চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানই কাজ পেতে যাচ্ছে। পদ্মা সেতুর কাজ শুরুর জন্য অনন্তকাল অপেক্ষা করা সম্ভব নয়। অন্য দুই প্রতিষ্ঠান অংশ না নেয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, সবকিছু বলা সম্ভব নয়। তবে এর পেছনে বাইরের ষড়যন্ত্র রয়েছে।

 
মূল্যায়নে কোনো ত্রুটি পাওয়া গেলে পুনরায় দরপত্র আহ্বান করা হবে কিনা জানতে চাইলে যোগাযোগমন্ত্রী বলেন, ‘যদির কথা নদীতে ফেলেন। জুনের মধ্যেই পদ্মা সেতুর কার্যাদেশ দেয়া হবে।’

সেতু বিভাগের তথ্যমতে, পদ্মা সেতুর মূল অবকাঠামো নির্মাণে চূড়ান্ত দরপত্র আহ্বান করা হয় গত বছরের ২৬ জুন। কারিগরি প্রস্তাব জমা দেয়ার শেষ সময় ছিল ৯ সেপ্টেম্বর। তবে ঠিকাদারদের অনুরোধে চার দফা সময় বাড়ানো হয়। ৯ জানুয়ারি কারিগরি প্রস্তাব জমা দেয়ার পর যাচাই-বাছাই শেষে তিন প্রতিষ্ঠানকেই যোগ্য ঘোষণা করা হয়। আর্থিক প্রস্তাব চাওয়া হয় ৬ মার্চ। প্রথমে চার সপ্তাহ সময় দিলেও ঠিকাদারদের দাবিতে তা আরো তিন সপ্তাহ বাড়ানো হয়। এ হিসাবে গতকাল ছিল আর্থিক প্রস্তাব জমার শেষ দিন।

যদিও আর্থিক প্রস্তাব জমার সময় বাড়াতে ২০ ও ২২ এপ্রিল চিঠি দেয় দক্ষিণ কোরিয়ার দুই প্রতিষ্ঠান। স্যামসাং সিঅ্যান্ডটি করপোরেশন ১০ সপ্তাহ ও ডেলিম-এলঅ্যান্ডটি জেভি ১১ সপ্তাহ সময় বাড়ানোর দাবি জানায়। তবে পদ্মা সেতু প্রকল্পের ক্রয় পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এইকম ও দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি তাতে সম্মত হয়নি।

এ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আইন অনুযায়ী আমরা ঠিক পথেই আছি। ক্রয় পরামর্শক ও মূল্যায়ন কমিটির মতামতের ভিত্তিতেই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

তবে পদ্মা সেতু প্রকল্পে একটিমাত্র ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণ নিয়ে শঙ্কিত দরপত্র মূল্যায়ন কমিটির একাধিক সদস্য। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কমিটির একাধিক সদস্য বলেন, এমনিতেই পদ্মা সেতুর মূল অবকাঠামো নির্মাণে তিনটি প্রতিষ্ঠান ছিল। এখন দুটি না আসায় কোনো প্রতিযোগিতাই থাকছে না। এছাড়া ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-ময়মনসিংহ চার লেন প্রকল্পে চীনা ঠিকাদারদের অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের জন্য সুখকর নয়। এ কারণে আরো সময় দিয়ে অন্য দুই প্রতিষ্ঠানকে আনা উচিত ছিল।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. শামছুল হক এ প্রসঙ্গে বলেন, আন্তর্জাতিক দরপত্রে অন্তত পাঁচজন ঠিকাদার থাকা উচিত। এতে সুষ্ঠু প্রতিযোগিতা হয়, নির্মাণকাজও ভালো মানের হয়। তবে পদ্মা সেতুতে তিনজন ঠিকাদার থাকায় সিন্ডিকেট হওয়ার সম্ভাবনা ছিল। এখন দুজন না আসায় প্রকল্পটির ভবিষ্যত্ নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে। এছাড়া নির্মাণকাজের মান নিয়েও প্রশ্ন উঠতে পারে।

 
এদিকে পদ্মা সেতুর নদী শাসন অংশের কারিগরি দরপত্র জমা দেয়া পাঁচ প্রতিষ্ঠান যোগ্য বিবেচিত হয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলো হলো— জাপানের পেন্টা-ওশান কনস্ট্রাকশনস, নেদারল্যান্ডস ও বেলজিয়ামের যৌথ বিনিয়োগের প্রতিষ্ঠান পদ্মা আরটিসি, বেলজিয়ামের জেন ডি লুন, চীনের সিনো হাইড্রো করপোরেশন লিমিটেড ও কোরিয়ার হুন্দাই ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন। গত সপ্তাহে প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে আর্থিক প্রস্তাবনা চাওয়া হয়েছে।
 
মূল অবকাঠামো ও নদী শাসন অংশের জন্য পরামর্শক নিয়োগে কারিগরিভাবে যোগ্য বিবেচিত হয়েছে চার প্রতিষ্ঠান। এগুলো হলো— যুক্তরাষ্ট্রের লুইস বার্জার গ্রুপ ইনকরপোরেশন, ফ্রান্সের ইগিস ইন্টারন্যাশনাল, দক্ষিণ কোরিয়ার কোরিয়া এক্সপ্রেসওয়ে করপোরেশন ও ভারতের ইন্টারন্যাশনাল কনসালট্যান্টস অ্যান্ড টেকনোক্র্যাটস প্রাইভেট লিমিটেড। প্রতিষ্ঠান চারটির কাছে গত সপ্তাহে আর্থিক প্রস্তাবনা চাওয়া হয়েছে।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের অন্য তিন অংশ জাজিরা সংযোগ সড়ক, মাওয়া সংযোগ সড়ক ও সার্ভিস এলাকা ২-এর নির্মাণকাজ এরই মধ্যে শুরু হয়েছে। এ তিন অংশের ঠিকাদার হিসেবে কাজ করছে মালয়েশিয়া ও বাংলাদেশের যৌথ বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান এএমএল-এইচসিএম। এ তিন অংশের পরামর্শক হিসেবে কাজ করছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও বুয়েট। এছাড়া প্রকল্প এলাকার নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। -বি.বার্তা