সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

২০ ঘণ্টায়ও চার ছাত্রের খোঁজ মেলেনি

সেন্ট মার্টিনে সমুদ্রে গোসল করতে নেমে ঢাকার আহছানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিখোঁজ হওয়া চারজন ছাত্রের খোঁজ আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত মেলেনি। তাঁদের উদ্ধারে তল্লাশি চলছে।

গতকাল সোমবার বেলা দুইটার দিকে সেন্ট মার্টিনে সমুদ্রে গোসল করতে নেমে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রের মৃত্যু হয়। তাঁরা হলেন মফিজুল ইসলাম ওরফে ইভান (২৩) ও সাদ্দাম হোসেন ওরফে অঙ্কুর (২৩)।

এ ঘটনায় উদয় মাহমুদ, শাহরিয়ার কবির নোমান, সাব্বির হাসান ও গোলাম রহিম বাপ্পি নামের চারজন শিক্ষার্থী নিখোঁজ রয়েছেন।

মুমূর্ষু অবস্থায় ফয়সাল, আশিক, ফারহান ও ইফতেখার মাহমুদকে উদ্ধার করা হয়। তাঁদের প্রথমে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। মৃত দুই ছাত্রের লাশ একই হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হবে।

নিহত, নিখোঁজ ও উদ্ধার হওয়া শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের শেষ বর্ষের ছাত্র। তাঁদেরসহ ৩৪ জন শিক্ষার্থীর একটি দল গতকাল দুপুর ১২টায় সেন্ট মার্টিনে যান।

সেন্ট মার্টিন কোস্টগার্ড স্টেশনের কমান্ডার লে. শহিদ আল আহসান আজ সকাল সাড়ে ১০টার দিকে প্রথম আলোকে জানান, নিখোঁজ হওয়া চারজন ছাত্রকে উদ্ধারের জন্য নৌবাহিনীর ডুবুরি দল, কোস্টগার্ড, পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসন বিভিন্নভাবে তল্লাশি চালাচ্ছে। দুটি টানা জাল, ১০টি স্পিডবোট ও ছয়টি ট্রলারের মাধ্যমে উদ্ধারকাজ চলছে। তবে ওই ছাত্রদের সন্ধান মেলেনি।

এর পাশাপাশি সেন্ট মার্টিন ফিশিং বোর্ড মালিক সমিতি ও সেন্ট মার্টিন বাজার কমিটির উদ্যোগে প্রায় ২০০ শতাধিক লোক উদ্ধার অভিযানে অংশ নিয়েছেন।

স্থানীয় লোকজন, প্রত্যক্ষদর্শী, পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, ঢাকার আহছানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ৩৪ জন শিক্ষার্থী টেকনাফ থেকে কুতুবদিয়া জাহাজে করে দুপুর ১২টায় সেন্ট মার্টিনে পৌঁছেন। তাঁরা সেখানে সেন্ট সৌর রিসোর্টে ওঠেন। বেলা দুইটার দিকে কয়েকজন শিক্ষার্থী দ্বীপের জেটি ঘাটের উত্তর-পূর্ব পাশে প্রিন্স হ্যাভেন পয়েন্ট দিয়ে গোসলে নামেন। এ সময় সমুদ্রসৈকতে ভাটার টানে কয়েকজন ছাত্র ডুবে যায়। সঙ্গেসঙ্গে ছাত্রদের মধ্যে হইচই শুরু হয়। স্থানীয় লোকজন গিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় ছয়জন ছাত্রকে উদ্ধার করতে সক্ষম হলেও আরও চারজন ছাত্র নিখোঁজ হয়ে পড়ে।

উদ্ধার হওয়া ছাত্রদের কোস্টগার্ডের একটি স্পিডবোটে করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়। জরুরি বিভাগের চিকিত্সক দুজন শিক্ষার্থীকে মৃত ঘোষণা করেন। বাকিদের প্রাথমিক চিকিত্সা দিয়ে উন্নত চিকিত্সার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।