সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থীকে পেটালেন শিক্ষিকা

M Techerসোনাতলা উপজেলায় অর্ধশত শিক্ষার্থীকে বেদম প্রহার করে আহত করেছেন প্রধান শিক্ষিকা।

সোমবার উপজেলার হুয়াকুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হচ্ছে- সোহান (১০), আল কাবুল (৯), পাভেল (১০), সাব্বির (৮), কুলসুম (৯), শাহনাজ (১০), রিয়াদ (৯), সৈকত (৯), হাসানুর (১০), শাফি (৯), কুসুম (৯), উপসাসহ (১০) অর্ধশত শিক্ষার্থী। এরা সবাই ওই বিদ্যালয়ের বিভিন্ন শ্রেণীর শিক্ষার্থী।

খবর পেয়ে অভিভাবকরা বিদ্যালয়ে ছুটে গেলে স্বামীসহ পালিয়ে যান ওই শিক্ষিকা।

অভিভাবকদের অভিযোগ, “বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা উম্মে কুলসুম রিক্তার স্বামী সহকারী শিক্ষক আশাদুল বারী প্রতিষ্ঠিত কোচিং সেন্টারে ভর্তি না হওয়ার কারণে তাদের ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন তারা। এর জের ধরে তাদের নির্যাতন করা হয়েছে।”

শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা জানায়, হুয়াকুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অর্ধশতাধিক ছাত্র-ছাত্রী গ্রামের আর্দশ কোচিং সেন্টার নামে একটি প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়ে লেখাপড়া করছিল। পড়ালেখায় মনোযোগী করতে ওই প্রতিষ্ঠান থেকে রোববার দিনাজপুরের স্বপ্নপুরীতে শিশুদের শিক্ষা সফরের আয়োজন করে। সফরে অংশ নিতে তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণীর অর্ধশত ছাত্র-ছাত্রী আগের দিন শনিবার প্রধান শিক্ষিকা উম্মে কুলসুম রিক্তার কাছে ছুটির আবেদন করে ২৩ মার্চ স্বপ্নপুরীতে যায়।

আদর্শ কোচিং সেন্টারের শিক্ষা সফরের আয়োজনের কথা শুনে প্রধান শিক্ষিকা শিশুদের ছুটির আবেদন গ্রহণ না করে তাদের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন।

শিক্ষা সফর শেষে সোমবার ছাত্র-ছাত্রীরা বিদ্যালয়ে উপস্থিত হলে প্রধান শিক্ষিকা তাদের এক কক্ষে ডেকে নেন। এরপর বেত দিয়ে নির্মমভাবে পেটাতে থাকেন। এতে ছাত্র-ছাত্রীদের অনেকেই রক্তাক্ত হয়।

খবর পেয়ে বিদ্যালয়ে ছুটে আসেন বিক্ষুব্ধ অভিভাবকরা। এ সময় কৌশলে প্রধান শিক্ষিকা উম্মে কুলসুম রিক্তা ও তার স্বামী সহকারী শিক্ষক আশাদুল বারী বিদ্যালয় থেকে পালিয়ে যান।

সোনাতলা উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ফিরোজ কবির জানান, তিনি মৌখিকভাবে বিষয়টি জেনেছেন। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।