শনিবার, ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরকারের বৈধতার প্রশ্নে উপজেলা নির্বাচনের গুরুত্ব বেড়েছে’


Upzila-election ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত সরকারের বৈধতার প্রশ্নে এবারের উপজেলা নির্বাচন আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। জাতীয় নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক না হওয়ায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নিজেও মনে করে সরকারের বৈধতা সংকটের সম্মুখীন এবং ভিত্তি দুর্বল বলে। এ কারণে তারা উপজেলা নির্বাচনে বড় ধরনের সাফল্য পেতে চায়। দেখাতে চায়, তাদের পেছনে বড় ধরনের জনসমর্থন রয়েছে।

অন্যদিকে বিএনপি মনে করছে, তাদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে জনগণ ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বর্জন করেছে। এর মানে হচ্ছে তাদের পেছনে বড় ধরনের জনসমর্থন রয়েছে। এই জন্যই তারা এবার অতিমাত্রায় রাজনৈতিকভাবে উপজেলা নির্বাচন মোকাবিলা করছে। এতে তারা জয় পেয়ে দেখাতে চায় আওয়ামী লীগের প্রতি জনগণের সমর্থন নেই।

বিবিসি বাংলাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে কথাগুলো বলেছেন স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ তোফায়েল আহমেদ।

উপজেলা নির্বাচনে প্রথম দফা ভোটগ্রহণের আগে আজ সোমবারই শেষ হচ্ছে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা। প্রথম পর্যায়ে বুধবার দেশের ৯৭টি উপজেলায় ভোটগ্রহণ হবে। এসব উপজেলায় ১২শ’রও বেশি প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এটি দলীয় কোনো নির্বাচন না হলেও প্রতিবারই প্রার্থীদের পেছনে প্রধান দলগুলোর সমর্থন থাকে। এবার তার ব্যতিক্রম হচ্ছে না। বরং ৫ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচনের পর এই নির্বাচনকে খুব বেশি রাজনৈতিক বলে মনে করা হচ্ছে।

আর তাতে আঞ্চলিক পর্যায়ের এই নির্বাচনের তাৎপর্য কতটুকু সে ব্যাপারে স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ তোফায়েল আহমেদ বলেন, কোনো নির্বাচনই রাজনীতি ব্যতিত হয় না। নির্বাচনের সঙ্গে রাজনীতির একটি ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক আছে। তবে স্থানীয় সরকারগুলোর ঐতিহ্য ও ইতিহাস লক্ষ্য করলে দেখা যায়, স্থানীয় পর্যায়ের নির্বাচনগুলো দলীয়ভাবে হয়নি।

তিনি বলেন, এসব নির্বাচনে দলীয় প্রাথীরাই প্রতিযোগিতা করে। দল থেকে একাধিক লোক থাকে। দলের বাইরেও লোকেরাও থাকে। মানুষ জানে নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী কারা। এরপরও দলের বাইরের কিছু লোক থাকায় তাদের মধ্য থেকে ভোটাররা পছন্দের প্রার্থীকে বেছে নিতে পারে। এখানে ভোটারদের পছন্দের বি¯ত্মৃত একটা ক্ষেত্র আছে। কিন্তু একেবারে দল থেকে যদি প্রার্থী মনোনীত করে দেয়া হয়, তাহলে আর মানুষের পছন্দের ক্ষেত্রটি সংকীর্ণ হয়ে আসে।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, বর্তমানে আইনগতভাবে দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচন না হলেও কিন্তু প্রধান দলগুলো অত্রিমাত্রায় তৎপর। এর প্রমাণ তারা বিদ্রোহীদের প্রার্থীদের বসিয়ে দিচ্ছে এবং দলীয় প্রার্থীদের কাজ করার জন্য নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিচ্ছে।

স্থানীয় নির্বাচনকে প্রধান দলগুলোর এত গুরুত্বের সঙ্গে নেয়ার মূল কারণটা কি?

জবাবে স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ তোফায়েল আহমেদ বলেন, এর প্রধান কারণ হচ্ছে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক না হওয়া। ওই নির্বাচনের মাধ্যমে যারা সরকারে আছে তারা মনে করছে তাদের বৈধতা সংকটের মুখে। নৈতিকভাবে তাদের ভিত্তিও দুর্বল। সুতরাং এই নির্বাচনে জয় পেয়ে তারা দেখাতে চায় তাদের পেছনে জনগণের সমর্থন আছে।

অন্যদিকে বিএনপি নেতৃত্বাধীন যে জোট নির্বাচন বর্জন করেছে তাদের বিশ্বাস ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে জনগণ যেহেতু স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ করেনি, এর মানে হচ্ছে তাদের পেছনে বড় ধরনের জনসমর্থন রয়েছে। এই জন্যই তারা এবার অতিমাত্রায় রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করছে এই নির্বাচন।

দলীয় সমর্থন নিয়ে বিজয়ী প্রার্থীরা বিজয়ী হলে নির্বাচিত হওয়ার পর এর কোনো প্রভাব থাকে কি না?

এমন প্রশ্নের জবাবে তোফায়েল আহমেদ বলেন, অতি রাজনৈতিকতা, অতি দলীয়করণ এটা অবশ্যই একটা সমস্যা। কারণ, বাংলাদেশের স্থানীয় প্রশাসন পদ্ধতি হচ্ছে এক ব্যক্তি কেন্দ্রীক বা চেয়ারম্যান কেন্দ্রীক। এক্ষেত্রে যখন কোনো দলের নির্বাহী বা কোনো নেতা সেই পদে নির্বাচিত হবেন তখন তো উনি দলের হয়েই কাজ করবেন, অন্য দলকে বঞ্চিত করবেন। সুতরাং এর মাঝে ক্ষতিকর প্রবণতা রয়েছে। কারণ, এখানে সেই রক্ষাকবচ নেই।

আরেকটি বিষয় হচ্ছে, রাজনৈতিক দলগুলো স্থানীয় পর্যায়ে গণতান্ত্রিকভাবে সুগঠিত নয়। এগুলো ব্যক্তি কেন্দ্রীক দল হওয়াতে পুরোপুরি দলীয় প্রার্থী নির্বাচিত হয়ে গেলে অতি দলীয়করণের সম্ভাবনা থাকে।