শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ব্যাট করতে হবে সারা দিন

চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র করতে হলে এখন একটাই উপায়—৯০ ওভার ব্যাটিং। চতুর্থ ইনিংসে ৪৬৭ রান বা পঞ্চম দিনে ৪৫৫ রান করে ম্যাচ জেতা এখনো কেবল কল্পলোকেই সম্ভব। শেষ দিনে বাংলাদেশ দলের লক্ষ্য হওয়া উচিত একটাই, উইকেট আঁকড়ে থেকে ৯০টি ওভার পার করে দেওয়া। তাতে টেস্টটা অন্তত ড্র হবে।

প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ অবশ্য ড্র করাটাও কঠিন হবে বলে মনে করেন, ‘টেস্ট বাঁচানোটা কঠিন হবে। আমি মনে করি কাল (আজ) ব্যাটসম্যানদের একটাই কাজ, মাথা ঠান্ডা রেখে উইকেটে পড়ে থাকা। ভালো বলে উইকেট পড়তেই পারে, কিন্তু বাজে বলে যেন সেটা না হয়। শ্রীলঙ্কান বোলাররা আমাদের আউট করুক। আমরা কোনো উইকেট দিয়ে আসব না।’ ব্যাটসম্যানদের কাছে শেষ দিনে একই প্রত্যাশা জার্গেনসেনেরও, ‘ধৈর্য্য ধরে পুরো দিন ব্যাট করতে হবে। শ্রীলঙ্কার দুই গ্রেট ব্যাটসম্যানের কাছ থেকে আমাদের শেখা উচিত এবং সেভাবে কাজ করা উচিত।’

বাংলাদেশ ড্রেসিংরুমে ইতিবাচক ব্যাটিংয়ের অর্থ সম্ভবত আক্রমণাত্মক ব্যাটিং। সেটার মাশুল দিতে গিয়েই তো দুটি সেঞ্চুরির পরও বেশি দূর এগোয়নি দলের প্রথম ইনিংস। অথচ কোচপ্রধান নির্বাচক দুজনের অভিধানেই ইতিবাচক ব্যাটিংয়ের অর্থ পরিস্থিতি অনুযায়ী ব্যাটিং করা। আজকের পরিস্থিতি যেমন ব্যাটসম্যানদের কাছে দাবি করছে ধৈর্য। ‘এই উইকেটে আপনি রক্ষণাত্মক ব্যাটিং করে বেশিক্ষণ টিকে থাকতে পারবেন না। আবার মিডল স্টাম্পের ওপর আসা বলে ছক্কাও হাঁকাতে পারবেন না। সে ক্ষেত্রে ব্যাটসম্যানদের উচিত হবে এক রান করে নিয়ে প্রান্ত বদলে খেলা’—বলছিলেন জার্গেনসেন।

চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ এক দিনেরও বেশি ব্যাটিং করেছে। দ্বিতীয় ইনিংসেও ব্যাটসম্যানদের কাছে সেটাই চান কোচ। শুধু ধৈর্য ধরতে হবে আরেকটু বেশি, ‘আমাদের সারা দিন ব্যাট করতে হবে। প্রথম ইনিংসে সেটা করেছিও। দ্বিতীয় ইনিংসে তামিম-শুভ (শামসুর) ভালো শুরু করেছে। এখন এটাকেই এগিয়ে নিতে হবে।’ প্রথম ইনিংস নিয়ে কোচের আফসোস এখনো যায়নি, ‘অনেক কিছুই আমাদের পক্ষে যায়নি। গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেট হারিয়েছি, একটা বাজে সিদ্ধান্তও হয়েছে আমাদের বিপক্ষে। গতকাল (পরশু) যদি আমাদের ৫ বা ৬টা উইকেট পড়ত, তাহলে আজ (গতকাল) আরও ভালোভাবে শুরু করতে পারতাম। পরিস্থিতিটাই তখন অন্যরকম হতো এবং শ্রীলঙ্কার ওপর আমরা আরও চাপ তৈরি করতে পারতাম।’

বাংলাদেশ দলের বিপক্ষে বাজে আম্পায়ারিংয়ের উদাহরণ প্রায় প্রতিটি সিরিজেই দেখছেন জার্গেনসেন। গত জিম্বাবুয়ে সফরে তো এ নিয়ে প্রতিদিনই ম্যাচ রেফারির দরজায় কড়া নাড়তে দেখা গেছে তাঁকে। চলতি শ্রীলঙ্কা সিরিজের আম্পায়ারিং নিয়েও কাল জার্গেনসেনকে একটু হতাশ মনে হলো, ‘এতে কোনো সন্দেহই নেই যে কিছু সিদ্ধান্ত আমাদের পক্ষে যায়নি। এটা খুব হতাশাজনক। আমাদের এ থেকে বেরিয়ে আসার উপায় খুঁজতে হবে। গত আড়াই বছর ধরে তো এই দেখছি। দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমাদের পক্ষে কিছুই আসে না।’

আম্পায়ারদের ওপর আস্থার অভাব উইকেটে ব্যাটসম্যানদের সন্ত্রস্ত করে তোলে। অথচ উচ্চ প্রযুক্তির আম্পায়ারিংয়ের এই যুগে এসব ভুল এড়ানো কোনো ব্যাপারই নয়। সরাসরি না বললেও প্রকারান্তরে কোচও যেন বোঝাতে চাইলেন, হোম সিরিজে ডিআরএস প্রযুক্তি ব্যবহারটা এখন সময়েরই দাবি।

জার্গেনসেন অবশ্য সমালোচনা করতে ছাড়েননি ব্যাটসম্যানদের বাজে শট খেলার প্রবণতারও। উদাহরণ হিসেবে টানলেন বিতর্কিত আউটের সিদ্ধান্তের শিকার নাসির হোসেনকেই, ‘আমাদের বিপক্ষে হয়তো কিছু বাজে সিদ্ধান্ত গেছে। তবে কখনো কখনো আমরাও বাজে শট খেলেছি। দিন শেষ হওয়ার চার ওভার বাকি থাকতে নাসিরের কি উচিত হয়েছে ওভাবে খেলা? আউটের সিদ্ধান্তটা নিয়ে প্রশ্ন আছে, কিন্তু আমরাই বা কেন দিনের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ওই শট খেলতে যাব!’

কোচের মতো এটা সবারই প্রশ্ন এবং কোচের মতো সবার এটাও আশা যে প্রথম ইনিংসের ভুল থেকে শিক্ষা নেবেন ব্যাটসম্যানরা। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের উইকেট চতুর্থ দিনের শেষভাগেও যে রকম আচরণ করেছে, তাতে প্রধান নির্বাচক ফারুক আশাবাদী, ‘রিয়াদের (মাহমুদউল্লাহ) বল শুরুতে টার্ন করলেও পরের দিকে উইকেটে সে রকম কিছু দেখিনি। আশা করব শেষ দিনেও উইকেট এ রকমই থাকবে।’

সেটা হলে ভালো। কিন্তু উইকেটের আচরণ তো আর কারও হাতে নেই। টেস্ট বাঁচানোর আশাটা তাই পূরণ করতে হবে ব্যাটসম্যানদেরই।

এ জাতীয় আরও খবর