মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৭ প্রার্থী

7 memberসংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি হতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ৭ জন গতকাল মনোনয়নবোর্ডে হাজির হয়েছিলেন। এদের মধ্যে যেমন রয়েছেন দলের বিদ্রোহী প্রার্থী তেমন রয়েছেন দলের জন্য ত্যাগ স্বীকার করা প্রার্থীও। নেত্রীরা দশম জাতীয় সংসদে ৩১২নং কুমিল্লা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া এলাকার এমপি হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এখন মাঠে। দলীয় একাধিক সূত্র জানায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে সংরক্ষিত মহিলা আসনের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন নবম জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনের এমপি জোবায়দা খাতুন পারুল, বিশিষ্ট শিল্পপতি সরাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও দলীয় প্রতিপক্ষের হাতে নিহত এ কে এম ইকবাল আজাদের সহধর্মিণী উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম ওরফে শিউলী আজাদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ ও জাতীয় মহিলা সংস্থা জেলা শাখার সভানেত্রী মিনারা আলম, জেলা আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদিকা রেহেনা বেগম রানী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট হুমায়ুন কবীরের স্ত্রী নায়ার কবীর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ বাশার ও সরাইল উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাহমুদা পারভীন। প্রার্থীদের মধ্যে শিউলী আজাদ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছিলেন। পরে জাতীয় পার্টির সঙ্গে সিট ভাগাভাগি করতে গিয়ে দলীয় হাইকমান্ডের নির্দেশে তিনি মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন। আবার দলের নির্দেশে তিনি জাতীয় পার্টিকে সমর্থন দেন।  ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসী চান শিউলি আজাদ এ আসনের এমপি হতে। অন্যদিকে মিনারা আলম দলের প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রাম ও কর্মসূচিতে তিনি মাঠে থাকেন। মনোনয়ন প্রত্যাশী আওয়ামী লীগ নেতা হুমায়ুন কবীরের স্ত্রী নায়ার কবীর দশম সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে নির্দলীয় প্রার্থী হয়ে (আনারস) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। ওই নির্বাচনে তিনি জাতীয় পার্টির প্রার্থী এডভোকেট জিয়াউল হক মৃধার কাছে পরাজিত হয়েছেন। মিনারা আলম বলেন, আমি নির্বাচিত হতে পারলে দলমত নির্বিশেষে জেলাবাসীর উন্নয়নমূলক কাজ করে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করবো। শিউলী আজাদ বলেন, দশম সংসদ নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পেয়েছিলাম। দলীয় সিদ্ধান্তে ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছি। আবার দলের হাইকমান্ডের নির্দেশে নির্বাচনী মাঠে কাজ করেছি। আশা করি সংসদ সদস্য হিসেবে জননেত্রী মনোনয়ন দিয়ে দেশ ও জাতীর জন্য তৃণমূল পর্যায়ে কাজ করার সুযোগ দেবেন।