শনিবার, ১৩ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঘন কুয়াশায় সড়কে তিনদিনে ৩ জনের মৃত্যু

kowasaঘন কুয়াশার কারণে সড়ক দুর্ঘটনায় তিনদিনে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।  প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে  জনজীবনও। ব্যাহত হচ্ছে যানবাহন চলাচল। দিনের বেলায় হেড লাইট জ্বালিয়ে চলছে যানবাহন।

 
সরেজমমিনে দেখা গেছে, ক’দিন ধরে শৈত্যপ্রবাহ বাড়তে থাকায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বেড়েছে শীতের প্রকোপ। গত দুই দিন ধরে সকালে সূর্যের মুখ দেখা যাচ্ছে না। তবে, মাঝে মাঝে সূর্য উকি দিলেও আবার ঢেকে যায় ঘন কুয়াশায়।
 
এদিকে, প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় শিশু, বৃদ্ধরা কাবু হয়ে পড়েছে। ঘর থেকে প্রয়োজন ছাড়া বের হচ্ছেনা লোকজন। সকালে শহরও প্রায় লোকশূন্য থাকে।
 
গত তিন দিনে ঘন কুয়াশার কারনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তিনটি সড়ক দুর্ঘটনায় তিন জনের মৃত্যু হয়েছে।
 
বিজয়নগর উপজেলার চান্দুরা এলাকায় কালীশিমা ব্রীজের মাঝখানে অকেজো হয়ে পড়া একটি ট্রাককে পেছন দিক থেকে সজোরে ধাক্কা দেয় আরেকটি ট্রাক। এতে ঘটনাস্থলেই চলন্ত ট্রাকের হেলপার রাশেদ মিয়া (২৫)নিহত হন।
 
কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সুলতানপুরে মোটরসাইকেল আরোহীকে ট্রাক চাপা দিলে আহত অবস্থায় জেলা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার ঢাকায় নেয়ার পরামর্শ দিলে ঢাকায় নেয়ার সময় পথিমধ্যে আনিসুর রহমান(৫০) নামের এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়।
 
বৃহস্পতিবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ফুলবাড়িয়ায় প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় রাস্তা পার হতে গেলে ট্রাকচাপায় নিপা আক্তার (২০) নামের এক কলেজ ছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। সে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি মহিলা কলেজের ডিগ্রী দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী।
 
এছাড়াও ঘন কুয়াশায় বিভিন্ন এলাকায় প্রতিদিনই ঘটছে ছোট খাট দুর্ঘটনা।
 
সাইদুর নামের এক পথচারী জানান, তীব্র শীত আর ঘন কুয়াশার মধ্যে ট্রাক ও বাসের বেপরোয়া চলাচলের কারণে রাস্তায় চলাচল কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রতিদিন ঘটছে দুর্ঘটনা। চালকদের একটু সাবধানতা প্রয়োজন।
 
এ ব্যাপারে ট্রাক চালক কাশেম মিয়া বলেন, ‘রাস্তায় কুয়াশার কারণে কিছুই দেখা যায়না। গাড়ির লাইট জ্বালিয়েও কোনো কাজ হয়না। আমাদের চলাচল করতেও মারাত্বক সমস্যা হচ্ছে।’
 
ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর ট্রাফিক বিভাগের পরিদর্শক মো. বায়েজিদ তিন দিনের দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।