শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ক্রিকেটার শচিনের শেষ কথাগুলো

Sachin-2আমার বন্ধুদের বলছি। আমি হয়তো কথা বলতে বলতে কিছুটা আবেগাপ্লুত হয়ে পড়বো, তবে আমি অনুরোধ করবো স্থির দাঁড়িয়ে আমার কথা শুনতে।

ভাবতে অবাক লাগে, বাইশ গজে আমার ২৪ বছরের বিস্ময়কর জীবনের শেষ দিনটাতে পৌঁছে গেছি আমি! তবে এই সুযোগে আমি ধন্যবাদ জানাতে চাই সেই সব মানুষকে, এই সুদীর্ঘ সময়ে যারা আমার জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। আর কেউ যেন সেই তালিকা থেকে বাদ না পড়েন, সেজন্য জীবনে প্রথমবারের মতো আমি তাদের একটা তালিকাও সঙ্গে এনেছি। এই মুহূর্তে কথা বলাটা আমার জন্য বেশ কঠিনই বটে, তবে আশা করি আমি চালিতে যেতে পারবো। আর আপনারাও বিষয়টি বুঝবেন।

আমার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি, ১৯৯৯ সালে বিদায়ের পর প্রতিটি দিনই যার শূন্যতা আমি অনুভব করছি; তিনি আমার বাবা। আমার মনে হয় না তার দিক-নির্দেশনা ছাড়া, আজ এই মুহূর্তে আপনাদের সামনে আমি দাঁড়াতে পারতাম। মাত্র ১১ বছর বয়সেই তিনি আমাকে আমার স্বপ্নের পেছনে ছোটার স্বাধীনতা দিয়েছিলেন। তবে সেই যাত্রায় যে কোন শর্টকাট পথ নেই, স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন সে কথাও। বলেছেন, পথটা হয়তো দুরূহ, তবে তোমাকে হাল ছাড়লে চলবে না। আমি শুধু অন্ধভাবে তার নির্দেশনা অনুসরণ করে গেছি। আর, সবসময়ই তিনি আমাকে বলেছেন একজন ভালো মানুষ হতে। যেটা হবার জন্য সবসময়ই আমি আমার সর্বোচ্চ চেষ্টা করে চলেছি। যতবারই আমি বিশেষ কিছু করার পর ব্যাট তুলেছি, সেটা ছিল বাবার উদ্দেশে।

আমার মা, জানি না আমার মতো দুষ্ট একটা বাচ্চাকে সে কিভাবে সামলেছেন। আমাকে সামলানোটা সত্যিই কঠিন ছিল। এজন্য তাকে দারুণ ধৈর্যশীল হতে হয়েছে সন্দেহ নেই। একজন মায়ের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে তার বাচ্চাকে নিরাপদ এবং সুস্থ রাখা। আর আমার এ বিষয়টি নিয়েই তিনি সবচেয়ে বেশি চিন্তিত ছিলেন। ভারতের হয়ে খেলা গত ২৪ বছর ধরেই তিনি আমাকে আগলে রেখেছেন। সত্যি বলতে, যেদিন থেকে আমি ক্রিকেট খেলছি সেদিন থেকেই তিনি এই কাজটা করে আসছেন। তিনি আমার জন্য প্রার্থনার পর প্রার্থনা করেছেন। তার দোয়া এবং আশীর্বাদই আমাকে শক্তি যুগিয়েছে মাঠে দারুণ কিছু করার। এই বিশাল আত্মত্যাগের জন্য তাকে ধন্যবাদ।

আমার বড় ভাই নিতিন এবং তার পরিবারের কথাও বলতে হয়। পুরোটা সময় জুড়েই তারা আমাকে অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন। আমার বড় ভাই কখনোই খুব বেশি কথা বলতে পছন্দ করেন না, তবে একটি কথা তিনি আমাকে সবসময়ই বলতেন, যাই করো নিজেকে উজাড় করে দিয়ে করো। আমার তোমার প্রতি শতভাগ আস্থা এবং বিশ্বাস আছে। আর অনুপ্রেরণা সবসময়ই ছিল বিশেষ কিছু। আমার বোন সাভিতাও অনেকটা তারই মতো। জীবনের প্রথম ক্রিকেট ব্যাটটা আমি তার কাছ থেকেই পেয়েছি। এটা ছিল কাশ্মির উইলোর একটি ব্যাট। এটা ছিল মাত্র যাত্রার শুরু। ধন্যবাদ তাকেও।

অজিত, আমার ভাই। তাকে নিয়ে আমি আলাদা করে কি বা বলতে পারি? আমি আসলেই জানি না। আমরা দু'জনেই একই স্বপ্ন লালন করেছি। সে এমনই একজন, যে আমার জন্য তার ক্যারিয়ারকে বিসর্জন দিয়েছে। সেই আমার মধ্যে সুপ্ত বিষয়টি ধরতে পেরেছিল। আর এর শুরুটা হয়েছিল এগার বছর বয়সে সে যখন আমাকে আর্চরেকার স্যারের কাছে নিয়ে যায়। সেখানেই আমার জীবনের পরিবর্তনের শুরু। আপনাদের বিশ্বাস করতে হয়তো কষ্ট হবে যে, আমার আউটটা নিয়ে কথা বলতে গতকাল রাতেও সে (অজিত) আমাকে ফোন করেছিল! সে জানতো, জীবনে হয়তো কখনোই আমার আর ব্যাট করা হবে না তবুও সে এটা করেছেন। যে অভ্যাস, যে আত্মিক যোগাযোগ জন্মের পরই আমাদের মধ্যে গড়ে উঠেছে সে কারণেই এটা হয়েছে। আর সামনেও এটা এমনই হবে। আমি হয়তো আর ক্রিকেট খেলবো না, তবে টেকনিক নিয়ে আমাদের মধ্যে আলোচনা চলবেই।

ব্যাটিং টেকনিকের অনেক বিষয়েই তার সাথে আমি একমত হয়েছি, হইনি এমন বিষয়ের সংখ্যাও নিতান্তই কম নয়। আমরা বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তর্ক করেছি। তবে এখন যখন পেছনে তাকাই তখন মনে হয়, এগুলো না হলে আমি এরকম একজন ক্রিকেটার হতে পারতাম না।

আমার জীবনের সবচেয়ে সুন্দর ঘটনাটি ঘটেছিল ১৯৯০ সালে। যখন স্ত্রী অঞ্জলির সাথে আমার দেখা হয়। সেগুলো ছিল বিশেষ কিছু সময় এবং সেভাবেই (সুন্দরভাবেই) সময়টা এগিয়েছে। আমি নিশ্চিত, ভবিষ্যতেও এমনই যাবে। আমি জানতাম ডাক্তার হিসেবে অঞ্জলির জন্য সফল একটি ক্যারিয়ারই অপেক্ষা করছে। তবে যখন আমরা বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিলাম, তখন সে নিজেই (ডাক্তার হবার সিদ্ধান্ত থেকে) সরে দাঁড়াল এবং আমাকে বললো, 'তুমি তোমার ক্রিকেট চালিয়ে যাও। পরিবারের বিষয়গুলো আমি দেখবো।'

 

মনে হয় না, এরকমটা না হলে আমার জন্য চিন্তামুক্তভাবে ক্রিকেট উপভোগ করা সম্ভব হতো। আমার অকারণ ব্যস্ততা, হতাশা আর ফালতু কথাগুলো এতবছর ধরে সহ্য করার জন্য ধন্যবাদ। সাফল্য আর ব্যর্থতার সময়গুলোতে আমার পাশে থাকার জন্য, আমাকে বয়ে নেয়ার জন্য ধন্যবাদ। জীবনের সেরা জুটিটা আমি তোমার সঙ্গে বেঁধেছি।

 

এরপরেই বলতে হয় দুটি হিরার টুকরোর কথা, সারা এবং অর্জুন। তারা এরই মধ্যে বড় হয়ে গেছে। সময় কোথা থেকে কোথায় উড়ে গেছে। তাদের জন্মদিন, সমাপনী দিন (স্কুলে) কিংবা ছুটিতে বেড়াতে যাওয়ার মতো বিশেষ দিনগুলোতে তাদের সাথে আমি অনেক সময় কাটাতে চাইতাম। তবে বেশিরভাগ সময়ই আমি থাকতে পারিনি। তোমরা জানো না, আমার কাছে তোমাদের মূল্য কতটুকু। আমি জানি, গত ১৪ কিংবা ১৬ বছরে আমি তোমাদের সাথে যথেষ্ট সময় কাটাতে পারিনি। তবে আমি প্রতিজ্ঞা করছি পরবর্তী ১৪, ১৬ কিংবা এরচেয়েও বেশি যেটুকু সময় আমি তোমাদের সাথে আছি তার পুরোটুকুই তোমাদের জন্য।

এ জাতীয় আরও খবর

রংপুরে করোনা শনাক্তের হার বাড়ছে  : একদিনে সর্বোচ্চ  ৪৩৮ জন

রংপুর নগরীর প্রধান সড়কগুলো চার্জার ও অটো রিকশার দখলে

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ ফল

ইতালিতে হাইপোথার্মিয়ায় আক্রান্ত হয়ে সাত বাংলাদেশির মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে : দূতাবাস

সাড়ে ৪ ঘণ্টা পর পোশাক কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত বলেই ষড়যন্ত্র-অপপ্রচারে বিএনপি : তথ্যমন্ত্রী

কাদের টাকায় লবিষ্ট নিয়োগ, ফখরুলকে কাদের

শাবিপ্রবি উপাচার্য ক্যাম্পাস ত্যাগ না করা পর্যন্ত আন্দোলনের ঘোষণা

রাতে তাপমাত্রা কমতে পারে

ফল ঘোষণা হয়নি, বাইরে বিজয়ের গুজব

রাত ৮টার পর রাজশাহীতে বন্ধ থাকবে সব দোকান

জোড়া সেঞ্চুরির ম্যাচে ঢাকার মধুর প্রতিশোধ