শুক্রবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বের শীর্ষ ১০ ধনী নারী

news-image

নিউজ ডেস্ক : সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্বের শীর্ষ ধনী ব্যক্তিদের শীর্ষ তালিকায় নিয়মিত পরিবর্তন হচ্ছে, এর সঙ্গে যোগ হয়েছে নানা আলোচনা এবং সমালোচনা। শীর্ষ সম্পদশালীদের তালিকায় নারীরাও পিছিয়ে নেই। চলুন জেনে নেওয়া যাক যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসাভিত্তিক ম্যাগাজিন ফোর্বসের ২০২৪ সালের ৩ মার্চ পর্যন্ত হিসাব অনুযায়ী বিশ্বের শীর্ষ ১০ ধনী নারী কারা এবং কীভাবে এই বিপুল সম্পদের মালিক হলেন তারা। বিস্তারিত জানাচ্ছেন শামস বিশ্বাস

ফ্রাঁসোয়া বেটেনকোর্ট মেয়ার্স এবং পরিবার
মার্কিন সাময়িকী ফোর্বসের তথ্যানুযায়ী বর্তমানে বিশ্বের শীর্ষ নারী ধনীর তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন ফরাসি প্রসাধন সামগ্রী লরিয়েলের কর্ণধার ফ্রাঁসোয়া বেটেনকোর্ট মেয়ার্স। বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের মধ্যে তার অবস্থান শীর্ষ ১৫তে। তার সম্পদের পরিমাণ ৯৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বেটেনকোর্ট মেয়ার্স এবং তার পরিবারের কাছে লরিয়েলের ৩৩ শতাংশ শেয়ারের মালিকানা রয়েছে।

তিনি কিন্তু স্বপ্রতিষ্ঠিত ধনী নন। লরিয়েলের প্রতিষ্ঠাতা ইউজেন শুয়েলারের নাতনি তিনি। তিনি লরিয়েলের পরিচালনা পর্ষদে যোগ দেন ১৯৯৭ সালে। তার মা লিলিয়ান বেটেনকোর্টের মৃত্যুর পর ২০১৮ সাল থেকে তিনি প্রথম শীর্ষ ধনীর তালিকায় উঠে আসেন। বেটেনকোর্ট মেয়ার্স প্যারিসে থাকেন। পারিবারিক প্রতিষ্ঠান বেটেনকোর্ট শুয়েলার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান তিনি। বৈজ্ঞানিক গবেষণা, মানবিক সাহায্য এবং সাংস্কৃতিক ও শৈল্পিক ঐতিহ্য রক্ষার মতো নানা কাজের সঙ্গে জড়িত এ সংগঠন। ব্যবসায়ী পরিচয়ের বাইরে মেয়ার্স একজন লেখকও। তিনি গ্রিক দেবতাদের নিয়ে যেমন লিখেছেন, তেমনি বাইবেলের ওপরও ভাষ্য লিখেছেন।

অ্যালিস ওয়ালটন
দ্বিতীয় শীর্ষ নারী ধনী মর্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম বৃহৎ সুপার মার্কেট ওয়ালমার্টের প্রতিষ্ঠাতা স্যাম ওয়ালটনের একমাত্র মেয়ে অ্যালিস ওয়ালটন। তার সম্পদের পরিমাণ ৭১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। কলেজ থেকে পাস করে বেরোনোর পর বহু বছর তিনি ইকুইটি অ্যানালিস্ট ও মানি ম্যানেজার হিসেবে কাজ করেছেন। তবে এখন ব্যবসার চেয়ে তিনি শিল্প সংগ্রহেই বেশি আগ্রহী।

আর্ট কিউরেটর হিসেবে তিনি বিখ্যাত। ২০১১ সালে তিনি তার নিজের শহর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্য আরকানসাসের বেন্টনভিলে ক্রিস্টাল ব্রিজেস মিউজিয়াম অব আমেরিকান আর্ট প্রতিষ্ঠা করেন। তার ভাই রব ও জিম ওয়ালটনও উৎসাহী শিল্প সংগ্রাহক। বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের মধ্যে তার অবস্থান শীর্ষ ২১তে।

জুলিয়া কোচ এবং পরিবার
নারী শীর্ষ ধনীর তালিকায় ৬১ দশমিক চার বিলিয়ন মার্কিন ডলার নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছেন জুলিয়া কোচ এবং পরিবার। যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত কোচ ইন্ডাস্ট্রিজের ৪২ শতাংশ শেয়ারের মালিক জুলিয়া এবং তার ৩ সন্তান। স্বামী ডেভিড কোচের মৃত্যুর পর শীর্ষ ধনী নারীর তালিকায় তিনি উঠে আসেন। বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের মধ্যে তার অবস্থান শীর্ষ ২৪-এ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্য আইওয়ার মেয়ে জুলিয়া ১৯৮০-এর দশকে নিউইয়র্ক সিটিতে চলে আসেন এবং ফ্যাশন ডিজাইনার অ্যাডলফোর সহকারী হিসেবে কাজ শুরু করেন।

সে সময় তিনি ফার্স্ট লেডি ন্যান্সি রেগানসহ অনেক হাইপ্রোফাইল ক্লায়েন্টের সঙ্গে কাজ করেছেন। ১৯৯১ সালে ডেভিড কোচের সঙ্গে দেখা হয়। ছয় মাসের মধ্যে তারা সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন এবং ১৯৯৬ সালে বিয়ে করেন। জুলিয়া কোচ নিউইয়র্ক সিটিতে অবস্থিত মেমোরিয়াল স্লোয়ান কেটারিং ক্যানসার সেন্টারের ডেভিড এইচ কোচ সেন্টার ফর ক্যানসার কেয়ারের প্রতিষ্ঠাতা এবং চেয়ারওম্যান। জুলিয়া কোচ শিক্ষা, সংস্কৃতি, মেডিক্যাল রিসার্চ ইত্যাদি মানবসেবামূলক কাজের সঙ্গে জড়িত।

জ্যাকুলিন মার্স
নারীদের শীর্ষ ধনীর তালিকায় ৩৮ দশমিক সাত বিলিয়ন মার্কিন ডলার নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছেন বিশ্বের বৃহত্তম ক্যান্ডি প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান মার্সের এক-তৃতীয়াংশের মালিক জ্যাকুলিন মার্স। তার দাদা ফ্র্যাংকলিন ক্লারেন্স মার্স ১৯১১ সালে এই কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রে পোষা প্রাণীর জন্য যারা খাবার তৈরি করে তাদের মধ্যে অন্যতম বৃহৎ এই মার্স কোম্পানি।

জ্যাকুলিন মার্স পরিবারের এই ব্যবসায় তিনি কাজ করেছেন প্রায় দুই দশকের বেশি সময় ধরে। ২০১৬ সাল পর্যন্ত তিনি বোর্ডের সদস্যও ছিলেন। এর বাইরেও জ্যাকুলিন একজন দক্ষ অশ্বারোহী এবং বহু বছর ধরেই তিনি ঘোড়ার প্রজনন ও ঘোড়দৌড়ের সঙ্গে যুক্ত আছেন। বর্তমানে তিনি পরিচিত অত্যন্ত দানশীল এক ব্যক্তি হিসেবে। বিশেষ করে প্রাণী কল্যাণ ও পরিবেশ সংরক্ষণের ক্ষেত্রে তার অবদান চোখে পড়ার মতো। ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ডলাইফ ফান্ড ও স্মিথসোনিয়ান ন্যাশনাল জুসহ বেশ কিছু সংস্থাকে তিনি নানাভাবে সাহায্য করে চলেছেন।

ম্যাকেনজি স্কট
পঞ্চম শীর্ষ নারী ধনী সমাজসেবী লেখক ম্যাকেনজি স্কট। মানবকল্যাণমূলক কাজে ইতোমধ্যেই বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার দান করেছেন তিনি। তিনি অ্যামাজন প্রধান জেফ বেজোসের সাবেক স্ত্রী।

তার সম্পদের পরিমাণ ৩৬ দশমিক এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের মধ্যে তার অবস্থান শীর্ষ ৪৩-এ। ২০১৯ সালের মাঝামাঝিতে জেফ বেজোস এবং ম্যাকেঞ্জি দীর্ঘ ২৫ বছরের বৈবাহিক সম্পর্কের ইতি টানেন। জেফ বেজোসের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের আপসরফা হিসেবে ম্যাকেনজি স্কট অ্যামাজনের ৪ শতাংশ শেয়ারের মালিক হন। হেজ ফান্ড ডি. ইউতে কাজ করার সময় জেভ বেজোস ও ম্যাকেনজির পরিচয়। ১৯৯৩ সালে বিয়ে করেন তারা।

মিরিয়াম অ্যাডেলসন এবং পরিবার
ষষ্ঠ শীর্ষ নারী ধনী মার্কিন চিকিৎসক ও মানবসেবী মিরিয়াম। ২০২১ সালে স্বামী বিলিয়নিয়ার ক্যাসিনো ব্যবসায়ী শেলডন অ্যাডেলসনের মৃত্যুর পর তিনি শীর্ষ ধনীদের তালিকায় আসেন। তিনি এখন নিউইয়র্ক স্টক এক্সচেঞ্জ-তালিকাভুক্ত ক্যাসিনো সাম্রাজ্যের অর্ধেকেরও বেশির মালিক, যার সিঙ্গাপুর এবং ম্যাকাওতে ক্যাসিনো রয়েছে।

তার সম্পদের পরিমাণ ৩৪ দশমিক আট বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের তালিকায় তিনি আছেন ৪৫ নম্বরে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিকান ন্যাশনাল কমিটির মেগাডোনার হিসেবে, মিরিয়াম এবং শেলডন অ্যাডেলসন ২০২০ সালে রিপাবলিকান পার্টির প্রচারাভিযান এবং রাজনৈতিক অ্যাকশন কমিটিতে ১৮০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার চাঁদা দিয়েছেন।

সাবিত্রী জিন্দাল এবং পরিবার
সপ্তম শীর্ষ নারী ধনী বিশিষ্ট ভারতীয় ব্যবসায়ী এবং রাজনীতিবিদ সাবিত্রী দেবী জিন্দালের জন্ম ভারতের আসামের তিনসুকিয়া জেলায়। ১৯৭০ সালে তিনি ওম প্রকাশ জিন্দালিনকে বিয়ে করেন, যিনি জিন্দাল গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা। সাবিত্রী বর্তমানে জিন্দাল স্টিল অ্যান্ড পাওয়ার লিমিটেডের ইমেরিটাস চেয়ারপারসন।

সাবিত্রী জিন্দাল হরিয়ানার হিসার থেকে নির্বাচিত হরিয়ানা বিধানসভার সদস্য ছিলেন। তিনি ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত হরিয়ানা বিধানসভা নির্বাচনে পরাজিত হন। ২০০৫ সালে তার স্বামী ওম প্রকাশ জিন্দাল হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় মারা গেলে তিনি জিন্দাল গ্রুপের চেয়ারপারসনের দায়িত্ব নেন।

তিনি কোম্পানির দায়িত্ব নেওয়ার পর কোম্পানির আয় ৪ গুণ বৃদ্ধি পায়। ১৯৫২ সালে সাবিত্রী দেবীর স্বামী ওম প্রকাশ জিন্দাল ও.পি জিন্দাল গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেন, যিনি একজন প্রকৌশলী ছিলেন। পরে এটি ইস্পাত, শক্তি, খনি, তেল ও গ্যাস উৎপাদন শুরু করে। কোম্পানির এই চারটি খাত তার চার পুত্র পৃথিভিরাজ, সজ্জন, রতন এবং নাভেন জিন্দাল কর্তৃক পরিচালিত হয়। জিন্দাল গ্রুপ ভারতের ৩য় শীর্ষ ইস্পাত উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। সাবিত্রী দেবী ভারতের সবচেয়ে ধনী নারী এবং এবং বিশ্বর শীর্ষ ধনীদের মধ্যে তার অবস্থান ৫০-এ।

সাবিত্রী দেবী ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সদস্য। ২০০৫ সালে জিন্দাল হিসার সংসদীয় আসন থেকে হরিয়ানা বিধানসভায় নির্বাচিত হন, এই আসনে তার স্বামী ওম প্রকাশ জিন্দাল প্রতিনিধিত্ব করেন। ২০০৯ সালে তিনি পুনরায় নির্বাচিত হয়ে ২০১৩ সালের ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত রাজ্য সরকারের মন্ত্রী ছিলেন।

জিনা রাইনহার্ট
নারীদের শীর্ষ ধনীর তালিকায় অষ্টম স্থানে আছেন অস্ট্রেলিয়ার শীর্ষ ধনী জিনা রাইনহার্ট। তার মোট সম্পদের পরিমাণ ৩০ দশমিক তিন বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের মধ্যে তার অবস্থান শীর্ষ ৫৩তে। হ্যানকক প্রসপেকটিং গ্রুপের মালিক এবং চেয়ারম্যান জিনা। জিনা লৌহমানবী হিসেবে পরিচিত। ১৯৯২ সালে জিনা তার পিতা লৌহ খনির ধনাঢ্য ব্যবসায়ী ল্যাং হ্যানককের কাছ থেকে এই বিশাল সম্পক্তি উত্তরসূরি হিসেবে পেয়েছিলেন। প্রায় এক দশক সৎমা ও তিন ভাইবোনের সঙ্গে বিভিন্ন আইনি লড়াইয়ে জর্জরিত ছিলেন। তিনি আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত সংস্থা হ্যানকক প্রসপেক্টিং পুনর্নির্মাণ করেন।

পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ায় প্রাকৃতিক সম্পদ উর্বর বিপুল পরিমাণ জমি ক্রয় করে তিনি সেই সম্পদকে কয়েকশ গুণ বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছেন। লৌহ খনি থেকে ব্যবসার পরিধি এখন স্বর্ণ খনি পর্যন্ত বিস্তৃতি লাভ করেছে। জিনা রাইনহার্টের সব থেকে বেশি আয় হয় রিনো টিন্টের সঙ্গে যৌথ মালিকানার প্রতিষ্ঠান হোপ ডাউন্স থেকে। সেই সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার বৃহত্তম গবাদি পশুর উৎপাদক প্রতিষ্ঠানটিও তার।

অ্যাবিগাইল জনসন
২০১৪ সাল থেকে ফিডেলিটি ইনভেস্টমেন্টস এর সিইও হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন অ্যাবিগাইল জনসন। তার দাদা দ্বিতীয় এডওয়ার্ড সি. জনসন এই বোস্টনভিত্তিক মিউচুয়াল ফান্ড জায়ান্ট প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। অ্যাবিগাইল এ প্রতিষ্ঠানটির ২৪ দশমিক ৫ শতাংশ শেয়ারের মালিক, যার পরিচালিত সম্পদে তিন দশমিক সাত ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার রয়েছে। অ্যাবিগাইল জনসন ক্রিপ্টোকারেন্সি গ্রহণ করেছে এবং ২০১৮ সালে ফিডেলিটি একটি প্ল্যাটফর্ম চালু করেছে যা প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের বিটকয়েন এবং ইথার বাণিজ্য করতে দেয়।

ফোর্বসের মতে, বিশ্বের শীর্ষ ধনকুবের নারীদের মধ্যে তিনি রয়েছেন নবম স্থানে। ২৯ দশমিক সাত বিলিয়ন মার্কিন ডলার নিয়ে বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের মধ্যে তিনি রয়েছেন ৫৪ নম্বরে।

অ্যাবিগাইল জনসন বিভিন্ন জনহিতকর এবং নাগরিক সংস্থার সঙ্গেও জড়িত। তিনি তার নেতৃত্বদান এবং ফাইন্যান্সিয়াল ইন্ডাস্ট্রিতে অবদানের জন্য নানা স্বীকৃতি পেয়েছেন। ফোর্বসের প্রকাশিত বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর নারীদের তালিকায়ও তার নাম অন্তর্ভুক্ত ছিল।

রাফায়েলা আপন্টে-ডায়ামান্ট
নারীদের শীর্ষ ধনীর তালিকায় ২৮ দশমিক সাত বিলিয়ন মার্কিন ডলার নিয়ে দশম স্থানে আছেন রাফায়েলা আপন্টে-ডায়ামান্ট। তিনি একজন ইতালীয় ধনকুবের। তিনি এবং তার স্বামী জিয়ানলুইজি আপন্টে মেডিটেররানিয়ান শিপিং কোম্পানি (এমএসসি) গ্রুপের একজন প্রধান শেয়ারহোল্ডার। রাফায়েলা আপন্টে-ডায়ামান্ট এবং তার স্বামী জিয়ানলুইজি আপন্টে প্রত্যেকেই বিশ্বের বৃহত্তম শিপিং লাইন এমএসসির ৫০% শেয়ারের মালিক।

রাফায়েলা ডায়মান্টের জন্ম ফিলিস্তিনের হাইফায়। শৈশবে তিনি এবং তার বাবা-মা তার পর সুইজারল্যান্ডে চলে আসেন, যেখানে তার বাবা সুইজারল্যান্ডের জেনেভাতে একজন নির্বাহী ব্যাংকার হিসাবে কাজ করতেন। রাফায়েলা ডায়মান্ট বিয়ে করেছেন ইতালীয় ব্যবসায়ী জিয়ানলুইজি আপন্টেকে। রাফায়েলা ১৯৬০-এর দশকে ইতালীয় দ্বীপ ক্যাপ্রি ভ্রমণে জিয়ানলুইগির সঙ্গে প্রথম দেখা করেছিলেন, যখন জিয়ানলুইগি একজন জাহাজের ক্যাপ্টেন ছিলেন। তারা ১৯৭০ সালে একসঙ্গে শিপিং শিল্পে প্রবেশ করে, যখন তারা দুই লাখ মার্কিন ডলার ঋণ দিয়ে একটি জাহাজ কিনেছিল। এমএসসি হলিডে ক্রুজ (MSC Cruises), অভ্যন্তরীণ লজিস্টিকস (Medlog) এবং পোর্ট অপারেশন (টার্মিনাল ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড) এও কাজ করে।

এ জাতীয় আরও খবর

টানা ১১ জয়ে প্রথম পর্ব শেষ করল আবাহনী

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বক্তব্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়বে : বেসিক ব্যাংক

‘শুল্ক ফাঁকি’ দেওয়া ২৪২ মেট্রিকটন ভারতীয় চিনি পাবনায় জব্দ

নির্বাচনের টিকিট না পেয়ে খোলামেলা রূপে হাজির নুসরাত!

বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম বাড়ায় ক্ষুব্ধ ভোক্তারা

ইরানের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলের শাড়ি বন্ধুদের দিলেন ব্যারিস্টার সুমন

শিল্প এবং সংস্কৃতির উন্নয়নে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে : তথ্যপ্রতিমন্ত্রী

ভারতের পররাষ্ট্র সচিবের ঢাকা সফর স্থগিত

এক বন্ধুরাষ্ট্রকে খুশি করতে গিয়ে অন্যের বিরাগভাজন হতে পারি না: সেনাপ্রধান

সোনার দাম আবারও বাড়ল, ভরি ১ লাখ ১৯ হাজার ৬৩৮ টাকা

ব্রিটিশ দূতের সঙ্গে বিএনপির বৈঠক