সোমবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আসন সমঝোতা নয়, সুষ্ঠু ভোট চায় জাপা: চুন্নু

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের সঙ্গে আসন সমঝোতা নয়, সুষ্ঠু ভোটের পরিবেশ চায় জাতীয় পার্টি (জাপা)। দলের মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু রোববার রাজধানীর বনানী কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেছেন।

নির্বাচনে অংশ নিলেও পরিবেশ নিয়ে এখনও সংশয় রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচনের পরিবেশ সুষ্ঠু হবে, সে ব্যাপারে পুরোপুরি আস্থা আসেনি। কিন্তু আমরা আশ্বাস পেয়েছি। নির্বাচন কমিশন এবং সরকারের পক্ষ থেকে সুষ্ঠু পরিবেশের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। পরিবেশ সুষ্ঠু হওয়ার অপেক্ষায় আছি। ভোটার আসবে– এমন আস্থার পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। এটাই নির্বাচন কমিশনের কাছে প্রথম ও শেষ কামনা।

কাঙ্ক্ষিত পরিবেশ না পেলে জাতীয় পার্টি নির্বাচন থেকে সরে যাবে কিনা– এমন প্রশ্নে ধোঁয়াশা রেখেছেন মুজিবুল হক চুন্নু। তিনি বলেন, ‘আগে বিয়ে করি। বিয়ের পর ঝগড়া হলে, স্ত্রীকে রাখব কি রাখব না– এটা পরের কথা। আগে তো বিয়ে করতে হবে। ঝগড়া হলে তখন দেখব, কী করব।’

৩০০ আসনে প্রার্থী দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিল সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টি। শেষ পর্যন্ত ২৮৬ আসনে ৩০৪ জন দলটির প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। চুন্নু বলেছেন, ২৯৬ আসনে প্রার্থী দেওয়া হয়েছিল। কয়েক জায়গায় শেষ পর্যন্ত মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া যায়নি।

আওয়ামী লীগ ২৯৮ আসনে প্রার্থী দিয়েছে। গত নির্বাচনে জাপার জেতা ২৩টি আসনের একটি বাদে সব ক’টিতে নৌকার প্রার্থী রয়েছেন। গত তিন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট বা সমঝোতা করে নির্বাচন করে জাপা। এই তিন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ২১১টি আসনে প্রার্থী দিয়ে একটি বাদে কোথাও জিততে পারেনি। এমপি হতে এবারও জাপার কয়েকজন প্রার্থী সমঝোতায় জোর দিচ্ছেন। আসন সমঝোতা হবে কিনা, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও তা স্পষ্ট করেননি। বরং বলেছেন, নিজেদের প্রকৃত বিরোধী দল হিসেবে প্রমাণ করার মোক্ষম সুযোগ পেয়েছে জাপা।

জাতীয় পার্টির মহাসচিবও বলেছেন, “কারও সঙ্গে আলোচনা বা দরকষাকষিতে আর নেই। তারাও (আওয়ামী লীগ) বলেছে, ‘জাতীয় পার্টি সাবালক হয়েছে।’ নিজেদের শক্তিতে নির্বাচন করতে চাই। কারও সঙ্গে সমন্বয় বা যোগাযোগ হয়নি, করার ইচ্ছাও নেই।”

অনুসারীদের মনোনয়ন না দেওয়ায় নির্বাচনে প্রার্থী হননি রওশন এরশাদ। কোন্দলের বিষয়ে মুজিবুল হক চুন্নু বলেছেন, জাতীয় পার্টি থেকে বহিষ্কৃতদের মান-অভিমান থাকতেই পারে। দলের চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের নেতৃত্বে যে সাংগঠনিক কাঠামো রয়েছে, তাতে মান-অভিমান দেখি না। প্রায় ১ হাজার ৮০০ জন জাপার মনোনয়ন চেয়েছিলেন। যারা মনোনয়ন পাননি, তাদের মান-অভিমান আছে; থাকতেই পারে।