বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১২ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মেয়ের কবর জিয়ারতের শেষ ইচ্ছাও পূরণ হলো না ইলিয়াস শেখের

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : ছয় বছর ধরে নিখোঁজ মেয়ের জন্য অপেক্ষার পালা সাঙ্গ হলো বাবা ইলিয়াস শেখের। দীর্ঘ অপেক্ষার পর জানলেন মেয়ে শম্পা বেগম আর বেঁচে নেই। তাকে খুন করা হয়েছে। মরদেহ দাফন হয়েছে অজ্ঞাতপরিচয় তরুণী হিসেবে। ভেবেছিলেন মেয়ের কবরের সামনে গিয়ে একটু দোয়া-মোনাজাত করবেন। সে ইচ্ছাটুকুও থেকে গেলো অপূর্ণ।

প্রায় অর্ধযুগ আগে রাজধানীর গাবতলী বাসস্ট্যান্ডে ঈগল পরিবহনের একটি বাসে এক নারীর মরদেহের খোঁজ মেলে। মরদেহ উদ্ধারের পর নিহতের পরিবারের কাউকে খুঁজে না পেয়ে অজ্ঞাতপরিচয় হিসেবে দাফন করে পুলিশ। এ ঘটনায় কেউ বাদী না হওয়ায় দারুস সালাম থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহানুর আলী বাদী হয়ে ২০১৫ সালের ৩ মে একটি মামলা করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শম্পার মরদেহ দাফন করেছিল আঞ্জুমান মফিদুল ইসলাম। সংস্থাটির কর্মকর্তা আল-আমিন জাগো নিউজকে বলেন, ছয় বছর পরে কবরের চিহ্ন পাওয়ার কথা নয়। বেওয়ারিশ কবর দীর্ঘদিন সংরক্ষণ ও চিহ্নিত করে রাখা হয় না। তবে কোন কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে, মামলার নথি দেখে তা বের করা যাবে।

২০১৫ সালের ৩ মে দারুস সালাম থানা পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করার পর শুরুতে প্রায় তিন মাস তদন্ত করে পুলিশ। এরপর ঘটনার তদন্ত শুরু করে সিআইডি। কিন্তু দীর্ঘ চার বছর তদন্ত করেও খুনের রহস্য উন্মোচন করতে না পারায় মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দেন আদালত। গত দুই বছর তদন্ত করে এ ঘটনার রহস্য উন্মোচন ও জড়িত এক আসামিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট পিবিআই। হত্যাকাণ্ডের মূল আসামি রেজাউল করিম স্বপনকে গত শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ভোরে কুমিল্লার ইপিজেড এলাকার ভাড়া বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর তিনি দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।

শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে পিবিআই হেডকোয়ার্টার্সে সংস্থাটির প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার তুলে ধরেন শম্পা বেগমকে হত্যা ও তার কথিত স্বামী স্বপনকে গ্রেফতারের তথ্য।

এসময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন শম্পা বেগমের বাবা ইলিয়াস শেখ। পিবিআইয়ের সংবাদ সম্মেলন কক্ষের বড় পর্দায় মেয়ের ছবি দেখে ডুকরে কেঁদে ওঠেন তিনি।

রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে শম্পার বাবা ইলিয়াস শেখ জাগো নিউজকে জানান, ছয় বছর আগে মেয়ে নিখোঁজ হলেও আবার দেখা পাবেন, এমন আশায় ছিলেন এতদিন। গত বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) পিবিআই সদস্যরা তাকে জানান, শম্পা হত্যার শিকার হয়েছেন। এ খবরে মেয়েকে জীবিত দেখার আশা ছেড়ে মরদেহ বা কবরের চিহ্নটুকু খুঁজতে খুলনা থেকে মেয়ের জামাই মান্নান শেখকে সঙ্গে নিয়ে তিনি ছুটে আসেন ঢাকায়।

ছয় বছর আগে শম্পার সঙ্গে শেষ কথা হয়েছিল জানিয়ে আবেগাপ্লুত কণ্ঠে তিনি বলেন, হত্যার আগের রাতে মোবাইলে শেষ কথা হয়। পরদিন খুলনায় আসার কথা ছিল শম্পার। এরপর থেকে দীর্ঘ ছয় বছর অপেক্ষায় ছিলাম।

শম্পার বাবা আরও বলেন, গত দুদিন অনেক খোঁজাখুঁজি করেছি। সারাদিন দারুস সালাম থানায় ছিলাম। পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। ছয় বছর আগে সংশ্লিষ্ট থানায় যে পুলিশ সদস্যরা ছিলেন, এখন তারা কেউ সেই থানায় নেই। তবে থানা পুলিশ আমাদের অনেক সাহায্য করেছে।

তিনি বলেন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মেয়ের ময়নাতদন্ত হয়। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট ও দাফনের রিপোর্ট দেখলে হয়তো কবরের সন্ধান পাওয়া যেতে পারে। আশা করছি, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এ বিষয়ে আমাদের সাহায্য করবে। আমি ঢাকায় আসার পর টেলিভিশনে শম্পার বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন দেখে আমার স্ত্রী বারবার অজ্ঞান হয়ে পড়ছেন। গ্রামের বাড়িতে কেউ না থাকায় নিরুপায় হয়ে আমি বাড়ির পথে রওয়ানা হয়েছি।

এদিকে, মেয়ের মরদেহ দেখার জন্য ইলিয়াসের শেষ ইচ্ছা এখন পূরণ হওয়ার নয় বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত সংশ্লিষ্টরা।

তারা বলছেন, কবরের জায়গায় মরদেহের চিহ্ন পাওয়া যাবে না। এরই মধ্যে জুরাইন কবরস্থানে মাটি ভরাট করা হয়েছে, সেখানে দাফন হলে তো কিছুই করার থাকবে না। অন্য কবরস্থানে হলেও দাফনের তিন মাস পরই মরদেহ পাওয়া যায় না। নথি যাচাই করে শম্পার মরদেহ সম্পর্কে যতটুকু জানা যায়, সেটুকুই তার বাবাকে বলা যাবে।

হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় করা মামলাটির তদন্ত হয়েছে পিবিআইয়ের বিশেষ পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলমের তত্ত্বাবধানে।

তিনি বলেন, আমাদের প্রাথমিক ও অন্যতম লক্ষ্য ছিল তরুণীর পরিচয় শনাক্ত করা। এরপর ছিল আসামি শনাক্ত ও গ্রেফতারের বিষয়। দুটি কাজই আমাদের কর্মকর্তারা সফলভাবে করতে পেরেছেন। এখন মামলার স্বার্থেই যাচাই করা হবে কবর কোথায় হয়েছিল।

ধানমন্ডিতে পিবিআই হেডকোয়ার্টার্সে সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার বলেন, ২০১৫ সালের ৩ মে সকাল ৯টার দিকে চট্টগ্রামে কে খান মোড়ে ঈগল পরিবহনের কাউন্টারে টিকিট কেটে এক ব্যক্তি একটি ট্রাংক বাসে তুলে দেন। এসময় তিনি চালকের সহকারীকে বলেন, সামনের ভাটিয়ারী কাউন্টার থেকে এই টিকিটের যাত্রী উঠবে। কিন্তু পরবর্তী কাউন্টার থেকে যাত্রী না ওঠায় বাসটি ঢাকায় রওয়ানা করে এবং বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিটের দিকে গাবতলী এসে পৌঁছায়। এরপর বাসের সব যাত্রী তাদের জিনিসপত্র নিয়ে নেমে যান। পরে সহকারী দেখেন একটি ট্রাংক মালিকবিহীন পড়ে আছে।

‘তখন বাসচালক-সহকারী মিলে ট্রাংকটি নামিয়ে দেখেন এটি খুব ভারী। তাদের সন্দেহ হওয়ায় তাৎক্ষণিকভাবে দারুস সালাম থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে ট্রাংকটি খুলে একজন অজ্ঞাতপরিচয় তরুণীর মরদেহ দেখতে পান। এরপর মরদেহের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ। পরিচিতি শনাক্ত না হওয়ায় অজ্ঞাতপরিচয় হিসেবে মরদেহটি দাফন করা হয়।

ডিআইজি বনজ কুমার বলেন, পিবিআই ঢাকা মেট্রোর (উত্তর) ইউনিট ইনচার্জ বিশেষ পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গীর আলমের তত্ত্বাবধানে তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ ইন্সপেক্টর আশরাফুজ্জামান ভিকটিমকে শনাক্ত করার জন্য সব ধরনের পদ্ধতি প্রয়োগ করেন। ২০১৫ সালে চট্টগ্রাম শহর ও জেলা এলাকার সব থানায় নিখোঁজ জিডির অনুসন্ধান করে তথ্য নিয়ে আসার জন্য পাঠানো হয় তদন্তকারী কর্মকর্তাকে।

এরপর তদন্তকারী কর্মকর্তা এক সপ্তাহ ধরে কাছাকাছি প্রায় ১০-১২টি নিখোঁজ জিডির তথ্য উদ্ঘাটন করেন। ২০১৫ সালের ১০ জুন ৫৯৯ নম্বর একটি জিডিতে দেখা যায়, শম্পা বেগম চট্টগ্রামের পাহাড়তলী থেকে নিখোঁজ হন। ওই ঘটনায় নিহত শম্পা বেগমের ভগ্নিপতি আব্দুল মান্নান পাহাড়তলী থানায় জিডি করেন।

পিবিআই প্রধান আরও বলেন, ওই জিডির সূত্র ধরে তদন্তকারী কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান ও নিহত শম্পা বেগমের বাবা ইলিয়াস শেখের (অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য) সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এরপর তিনি জানতে পারেন, ২০১৩ সালে রেজাউল করিম স্বপন (অবসরপ্রাপ্ত নৌবাহিনী সদস্য) খুলনা তিতুমীর নৌঘাঁটিতে কর্মরত ছিলেন। এসময় শম্পা হাসপাতালে মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্টের কাজ করতেন। হাসপাতালে ইলিয়াস শেখের স্ত্রীর চিকিৎসার সময় তার মেয়ে শম্পার সঙ্গে রেজাউলের পরিচয় হয়।

পরিচয়ের সূত্র ধরে প্রথমে প্রেম ও পরে বিয়ের জন্য চাপ দিলে রেজাউল বদলি হয়ে চট্টগ্রাম চলে যান। সেখানে তারা ২০১৪-২০১৫ সালের মে পর্যন্ত একত্রে বসবাস করেন। স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে বসবাস করলেও বিয়ে করেননি।

পরে তাদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মনোমালিন্য দেখা দিলে রেজাউল করিম ২০১৫ সালের ২ মে গভীর রাতে শম্পাকে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। মরদেহ গোপন করার উদ্দেশ্যে একটি ট্রাংকে ভরে ঈগল পরিবহনের বাসে তুলে দেন। শম্পার বাবাকে জানান, তাকে খুলনার বাসে তুলে দেওয়া হয়েছে।

কিন্তু পরে শম্পা বাড়িতে না পৌঁছালে তারা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। না পেয়ে ভিকটিমের ভগ্নিপতি আব্দুল মান্নান পাহাড়তলী থানায় একটি জিডি করেন। ভিকটিমের বাবা ঘটনার বছর ২৭ মে আসামি রেজাউল করিমের বিরুদ্ধে নৌবাহিনী চট্টগ্রাম অফিসে একটি লিখিত অভিযোগ করেন।