বুধবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফেসবুকে সোহেল তাজের মন্তব্য নিয়ে বিতর্ক: ছবি মুছে দিলেন পরীমণি!

news-image

অনলাইন ডেস্ক : চলচ্চিত্র নায়িকা পরীমণি ও সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেতা সোহেল তাজকে নিয়ে ফেসবুকে চলছে বিতর্ক।

পরীমণির সিগারেট খাওয়া ছবির সমালোচনা করায় বিতর্কের মুখে পড়েছেন সোহেল তাজও। অনেকে তার বিভিন্ন সময়ে ফেসবুকে দেওয়া খালি গায়ের ছবি দিয়ে তুলনামূলক আলোচনা করছেন। কেউ কেউ তাকে রাজনীতিতে মনযোগী হওয়ারও পরামর্শ দিয়েছেন।

তবে সোহেল তাজের মন্তব্যের পর পরীমণি ছবিটি মুছে দিয়েছেন। সেটি আর তার ফেইসবুকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে তার মন্তব্য নেয়াও সম্ভব হয়নি।

বৃহস্পতিবার রাতে সিগারেট হাতে তোলা ছবিগুলো পোস্ট করেন পরীমণি। সেখানে তার পরনে সাদা-কালো রঙের টপস, অনাবৃত পা, খোলা চুল, চোখে চশমা ও পায়ে কেডস। হাতে দেখা যাচ্ছে আলোচিত ‘…ক মি মোর’ লেখাটি। ক্যাপশনে পরী লিখেছেন, ‘সিগারেট স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।’

ওই ছবিতে সোয়া লাখ রিয়্যাক্ট পড়েছে, শেয়ার হয়েছে কয়েক হাজার। অবশ্য পরীমণির মন্তব্য অপশন কিছুদিন ধরে বন্ধ রয়েছে।

এ নিয়ে শুক্রবার নিজের ফেসবুক পেজে সোহেল তাজ বলছেন, ‘একজন সেলিব্রিটির কাছ থেকে এ রকম অশোভন আচরণ কাম্য নয়, আমাদের ছেলে-মেয়েদের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।’

তারপর শনিবার দিনজুড়ে এ নিয়ে চলছে বিতর্ক।

সোহেল তাজের ওই পোস্টে মন্তব্য পড়েছে ৪৮০০টি। তাতে অনেকেই আপত্তি জানিয়েছেন সাবেক এ প্রতিমন্ত্রীর মন্তব্যের। এর জবাবও দিয়েছেন সোহেল তাজ।

যেমন নারী আন্দোলন নামে একজন মন্তব্য করেছেন, ‘আপনার এতো বাধলে সরকারকে সিগারেট সাপ্লাই বন্ধ করে দিতে বলেন। সন্তানের সামনে বাপ সিগারেট খাচ্ছে তখন যুব সমাজ নষ্ট হচ্ছে না। আসছে জ্ঞানের ভান্ডার নিয়ে’।

জবাবে সোহেল তাজ লেখেন, ‘সিগারেট এখানে মুখ্য বিষয় না- আমি নারী অধিকার এবং সবার জন্য সমান অধিকারের পক্ষ্যে- এই ধরণের সার্বিক আচরণ নারী পুরুষ কারোরই করা উচিত না।’

ওই পোস্টে সোহেল তাজকে সমর্থন জানিয়ে এবং পরীমণির সমালোচনা করেও অনেকে মন্তব্য করেছেন। শনিবার ফেসবুকে অনেকে নিজস্ব অ্যাকাউন্ট থেকে এ বিষয়ে পোস্ট দেন।

শনিবার শাশ্বতী বিপ্লব লেখেন, ‘জনাব সোহেল তাজ, পরীমণি সিনেমার নায়িকা। মডেলও। কারণে-অকারণে তার শরীর প্রদর্শন এবং সিগারেট হাতে মডেলিংয়ের তবুও একটা যুক্তি খুঁইজা পাওয়া যায়।

কিন্তু, সোস্যাল মিডিয়ায় আপনি যে অধিকাংশ সময় অর্ধ-উলঙ্গ থাকেন, তার কোনো কার্যকারণ আমি খুঁইজা পাই না। আপনি শোবিজের কেউ না। সিনেমা-নাটকের নায়কও না, মডেলও না। তবু আপনি শরীর দেখাবেন। কারণ আপনার ভাল্লাগে। আপনার ইচ্ছা। আপনার অভিরুচি। কার কি বলার আছে? দেশের তরুণ সমাজের প্রতি আপনি কোন দায়িত্বটা পালন করতেসেন জানি না। তবে, ২৪/৭ অতি কসরতে গড়া এই অর্ধ-উলঙ্গ শরীর প্রদর্শন অবশ্যই অশোভন।

আপনার বাবা আমাদের নমস্য। তাকে সম্মান করি, ভালোবাসি। তাই অনেক কিছু লিখেও মুছে দিতে হইতেসে। বৈরিতার মুখোমুখি হইয়া রাজনীতির মাঠ থেইকা আপনি একরকম পালায়া গেসেন, হাল ছেড়ে দিসেন। পরীমণি হাল ছাড়েন নাই। সেইটাই শিক্ষণীয়।

আপনি দয়া কইরা শরীর নিয়াই ব্যস্ত থাকেন। নীতি-নৈতিকতা, শোভন-অশোভনের আলাপ দিয়েন না।

পরীমণি কোনো হোমড়া-চোমড়া পরিবারের কেউ না। তার বাবাও তেমন কেউ ছিলেন না। তবুও পরীমণি কোনো ব্যায়াম ছাড়াই তার মেরুদণ্ডটা শক্ত কইরা বানাইসেন। আমাদের মেয়েরা ওইটাই শিখবে। আপনি চিন্তা কইরেন না’।

বুদ্ধিজীবী ড. আসিফ নজরুল লেখেন, ‘পরীমণি সিগারেট খাচ্ছে বা আপত্তিকর কথা বলছে সেটি নিয়ে সোহেল তাজকে সমালোচনামুখর দেখলাম। এটি উনি করতেই পারেন। কিন্তু যারা দেশই গিলে খাচ্ছে বা ক্ষমতায় থাকার সুযোগে আরো বহুগুণ অশালীন কথা বলছে, তাদের বিরুদ্ধে সমালোচনা নেই কেন উনার? সোহেল তাজ, আপনি মহান নেতা তাজউদ্দিন সাহেবের পুত্র। পরীমণি না, আরো বড় ক্যানভাসের দিকে তাকান। নিজের শরীর শুধু না, দেশ গড়ার চিন্তা করেন’।

কবি ব্রাত্য রাইসু লেখেন, ‘পরীমণির সিগারেট হাতে ছবি পোজ দেওয়া বিষয়ে সোহেল তাজ যা বলছেন পুরাই ঠিক বলছেন। আমি সোহেল তাজকে সমর্থন করলাম’।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সুস্মিতা চক্রবর্তী লিখেছেন, ‘দুটো ছবিই দেহ প্রদর্শনের যদিও পরীমণির ছবিটাই সুন্দর! সোহেল তাজ, আপনি সিনেমার নায়ক না হয়েও যদি এরকম উন্মুক্ত শরীর দেখাতে পারেন, তবে পরীমণি নায়িকা হিসেবে এমন ছবি চাইলে দিতেই পারেন। শোভন-অশোভনের প্রশ্ন আপ্নার তোলা কী শোভা পায় বলেন তো!’;